Home » শিল্প-সংস্কৃতি » ইরানের কিংবদন্তী চিত্রনির্মাতা আব্বাস কিয়ারসতামির সাক্ষাৎকার

ইরানের কিংবদন্তী চিত্রনির্মাতা আব্বাস কিয়ারসতামির সাক্ষাৎকার

সাধারণ নাগরিক হিসেবেও সেন্সরশীপ আরোপিত হয়ে আছে

ফ্লোরা সরকার

abbas-iran১৯৪০ সালে ইরানের তেহরানে আন্তর্জাতিক খ্যাত চিত্রনির্মাতা আব্বাস কিয়ারসতামি জন্ম গ্রহণ করেন। ইরানের বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তিনি ফাইন আর্টস এ গ্র্যাজুয়েশন করার পর গ্র্যাফিক ডিজাইনার হিসেবে তার কর্মজীবন শুরু করেন। তিরিশ বছয় বয়সে সেন্টার ফর ইন্টেলেকচুয়াল ডেভেলপমেন্ট অফ চিল্ড্রেন অ্যান্ড অ্যাডাল্টস এর ফিল্ম সেকশানে যোগদান করেন এবং তখন থেকেই চিত্রনির্মাতা হিসেবে তার আত্মপ্রকাশ ঘটতে থাকে। সেখানে বেশ কিছু শিশুতোষ এবং ডকুমেন্টারি নির্মাণের পর ১৯৭৩ সালে নির্মাণ করেন পূর্ণ দৈর্ঘ্য ছবি ‘দ্য এক্সপেরিয়েন্স’। এরপর একে একে দ্য ট্র্যাভেলার, দ্য ওয়েডিং স্যুট, দ্য রিপোর্ট, হোয়ার ইজ দ্য ফ্রেন্স হোম, হোমওয়ার্ক, ক্লোজ আপ, এ্যান্ড লাইফ গোজ অন, থ্রু দ্য অলিভ ট্রিজ এবং তার অন্যতম অনবদ্য ছবি ‘টেস্ট অফ এ চেরি’ সহ আরও অনেক ছবি নির্মাণ করেন। ১৯৮৩ সালে কান ফিল্ম ফেস্টিভালের জুরি মেম্বার হিসেবে তাকে নির্বাচিত করা হয়। ভেনিস ফিল্ম ফেস্টিভেলে ১৯৯৫ সালে জুরি হিসেবে ছিলেন। লাইফ টাইম এ্যাচিভমেন্টের জন্যে তাকে ২০০৫ এ ইয়েরেভেন ইন্টারন্যাশানাল ফিল্ম ফেস্টিলে অ্যাওয়ার্ড দেয়া হয়। চিত্র নির্মাতা হিসেবে অবদানের জন্যে ব্রিটিশ ফিল্ম ইন্সটিটিউট থেকে ফেলো হিসেবে সম্মাননা প্রদান করে। সম্প্রতি ২০১০ এর ৯ মার্চ তেহরানের একটি পত্রিকায় সরকারের কাছে চিঠির মাধ্যমে ইরানের স্বতন্ত্র ধারার দুজন বিশিষ্ট চিত্রপরিচালক জাফার পানাহি এবং মোহাম্মদ রোজুউলফ এর কারাবন্দী মুক্তির জন্যে আবেদন করেন। সে আবেদনের সাড়ায় পরবর্তিতে তারা মুক্তিলাভ করেন। সেই কিংবদন্তী পরিচালকের বিরল একটি ভিডিও সাক্ষাৎকার সংক্ষেপিত আকারে উপস্থাপন করা হলো। বিষয়ভিত্তিতে তিনি সাক্ষাৎকারে তার নিজের কথা বলে গেছেন।

সেন্সরশীপ প্রসঙ্গে

আমার ছবির ক্ষেত্রে আমি বলতে পারি বিপ্লবের আগে সেন্সরশীপ আমার ছবিতে খুব একটা প্রভাব ফেলতো না। কিন্তু এটা সবার ক্ষেত্রে এরকম ঘটতো তা বলা যায় না। আসলে ইরানে ছবির সেনসারশীপ মূলতো ধর্মীয় কারণে কিছু বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়। বিশেষ করে ছবিতে নারীর হিজাব পরিধানের ক্ষেত্রে ইরানে বেশ কড়াকড়ি নিয়ম বা আইন উল্লি­খিত আছে। নারীরা হিজাব ছাড়া ছবিতে অভিনয় করতে পারবে না, এমনকি ঢিলেঢালা হিজাবও পরিত্যাজ্য। তাছাড়া নারীপুরুষের স্পর্শের ব্যপারেও বিধিনিষেধ আছে। আমাদের নিজেদের অর্থাৎ চিত্রপরিচালকদের মাঝে সেন্সরশীপ নেই তা বলবো না, কিন্তু এসব বিধিনিষেধ অবলম্বন করেই আমরা আমাদের ছবি নির্মাণ করি। আর তাই আমি শুধু সেসব ছবিই নির্মাণ করি যেগুলো নির্মাণ করতে চেয়েছি। আমি কখনো স্বামীস্ত্রী একত্রে একটি এ্যাপার্টমেন্টে বসবাসরত কোন গল্প নির্বাচন করি না। কারণ আপনি যখন একটি ছবি নির্মাণ করেন তখন আপনাকে সেই ছবির গল্পের প্রতি বিশ্বাস থাকতে হবে। ছবিতে আমরা সাধারণত এক সারিবাঁধা মিথ্যের মধ্যে দিয়ে সত্যে উপনিত হই। যেমন ছবিতে যখন একটি পরিবারের কাহিনী দেখানো হয় তখন বাস্তব কোন পরিবার উপস্থাপিত হয় না। ভিন্ন ভিন্ন নারী, পুরুষ এবং শিশু অভিনেতাঅভিনেত্রীদের সমন্বয়ে পরিবার গঠন করা হয়। বাস্তব পরিবারে স্ত্রী তার স্বামীর সামনে হিজাব পরিহিত অবস্থায় থাকে না। কিন্তু ছবির প্রয়োজনে আমাকে তা দেখাতে হয়। আমার ছোটবেলায় আমি কখনো আমার মাকে বাবার সামনে হিজাব পরিহিত অবস্থায় দেখিনি। কাজেই আমি যা দেখিনি তা ছবিতে উপস্থাপন করতে চাই না বলেই আমার ছবিতে সাধারণত এই ধরণের কোন গল্প রাখি না। আর এই কারণেই হয়তো অবচেতন ভাবেই আমি আমার ছবির গল্পের জন্যে গ্রাম বেছে নেই।

আমি যখন ইরানের বাইরে যাই বিশেষত পাশ্চাত্যে, তখন আমাকে সেনসারশীপ সংক্রান্ত নানা প্রশ্নের মুখোমুখি হতে হয়, যা আমাকে খুবই বিব্রত করে। পাশ্চত্যের লোকেরা মনে করে আমরা যারা তৃতীয় বিশ্বের নির্মাতা তারা কড়া বিধিনিষেধের সেন্সরশীপের ঘেরাটপের মধ্যে থেকে ছবি নির্মাণ করে। এটা নিয়ে যখন ভাবি তখন আমি অনুধাবন করি যে শুধু ছবি নির্মাণের ক্ষেত্রে নয়, আমাদের দেশে সাধারণ নাগরিক হিসেবেও সেনসারশীপ আরোপিত হয়ে আছে। সেনসারশীপের যাত্রা শুরু হয় পারিবারিক পরিমন্ডল থেকে। পরিবারিক বিধি নিষেধের কারণে আমার মন যা চায় তা বলতে বা করতে পারি না। কারণ আমার অভিভাবক কোনটা ঠিক আর কোনটা ঠিক না তা আগে থেকেই নির্ধারণ করে দেন। বিদ্যালয় অধিকতর সেন্সরশীপের একটি জায়গা যেখানে কঠোর শৃঙ্খলা বজায় রেখে চলতে হয়। এবং যা আমাদের কর্মক্ষেত্র পর্যন্ত প্রসারিত হতে থাকে। কাজেই আমার মনে হয় না সেনসারশীপ আমাদের খুব একটা বিব্রত করে বা অসুবিধায় ফেলে, কারণ আমরা আমাদের মতো করে তা সামাল দিতে পারি। বিশেষত নির্মাতা হিসেবে আমরা যত বেশি বিধি নিষেধের মধ্যে পরিবেষ্টিত হই তত বেশি নতুন নতুন পন্থা এবং সমাধানের পথ নিজেরা নিজেদের মতো করে খুঁজে নেই। আমার বাবা বলতেন তোমার মাথা যদি ভাঙ্গে তবে তা যেন তোমার টুপির ভেতরেই ভাঙ্গে। কাজেই সেনসারশীপ নিয়ে দেশের বাইরে আমি যতই কথা বলি না কেনো, তা কখনো কোন সমাধান এনে দেবে না। আর তাই এই বিষয় নিয়ে দেশের বাইরে আমি কখনো কথা বলি না বা বলতে চাই না, বিশেষত সাংবাদিকদের সঙ্গে। বরং উল্টো তাদের প্রশ্ন করি – ‘তোমাদের নিজেদেরও কী কোন সেনসারশীপ নেই?’ তাছাড়া আমাদের সরকার সেনসারশীপ আরোপের সঙ্গে ছবি নির্মাণের জন্যে আর্থিক সহায়তাও প্রদান করে থাকে। ব্যক্তিগত এবং পেশাগত জীবনে সদর্থক দৃষ্টিভঙ্গীর কারণে সেন্সরশীপের ব্যপারে আমার খুব বেশি অসুবিধার সম্মুখীন হতে হয় না। এর অর্থ এই নয় যে সেন্সরশীপের পৃষ্টপোষকতা করি, আমি তাদের বলি তোমরা তোমাদের কাজ করো, আমরা আমাদেরটা করি। কারণ আমি জানি শেষ পর্যন্ত আমাদের কাজগুলোই(সিনেমা) টিকে থাকবে।

পাশ্চাত্যে সমাদর

দেশের বাইরে বিশেষত পাশ্চাত্যে যখন আমাদের ছবি প্রদর্শিত হয় তখন সে সব বেশ সমাদৃত হয় যা আমাদের ছবি নির্মাণের ক্ষেত্রে অনুপ্রেরণা জাগায়। এবং যখনই আপনার ভেতর অনুপ্রেরণা জন্মাবে আপনি তখন আরও বেশি সাহসী হয়ে উঠবেন, নতুন নতুন ধারণায় উজ্জীবিত হবেন। দেশের ভেতরে আমাদের ছবি খুব বেশি সমাদৃত না হলেও বিদেশে আমাদের ছবি বেশ সমাদৃত। তবে সেই সঙ্গে এটাও ঠিক পাশ্চাত্যের এই পৃষ্টপোষকতা আমার ছবির স্টাইল এবং টেকনিকের ক্ষেত্রে খুব বেশি পরিবর্তন আনতে পারেনি। অর্থাৎ যেভাবে পাশ্চাত্য সমালোচকরা আশা করে সেভাবে ছবি নির্মাণ করা আমার পক্ষে সম্ভব হয় না। কারণ, আমি যখন ছবি নির্মাণ করি তখন গল্পের বিষয়বস্তুর ওপর প্রথমে গুরুত্ব আরোপ করি। আমি মনে করি ছবির বিষয় ছবির শৈলীকে নির্মাণ করে। শৈলী বিষয়কে নির্মাণ করে না। আরও বিশ্বাস করি ছবি নির্মাণের এটাই সঠিক পদ্ধতি। পাশ্চত্য সমালোকদের বা ফেস্টিভেলের দর্শকদের ইচ্ছানুযায়ী ছবি নির্মাণ করা তাই আমার পক্ষে সম্ভব না। প্রত্যেক ছবি তার নিজস্ব প্রয়োজনানুযায়ী নির্মিত হয়।

পরিচালকের শৈলী

আমার ছবির ভালোমন্দ দিক নিয়ে কথা বলা একটু অসুবিধাজনক, কারণ সেটা আপনারই ভালো বলতে পারবেন। তবে আমার যা ভালো লাগে না সে বিষয়ে আমার পক্ষে বলাটা তুলনামুলকভাবে সুবিধাজনক। আমার যা ভালো লাগে না তা আপনারা আমার ছবিতে দেখতে পাবেন না। ছবিতে গল্প বলা আমার পছন্দ নয়। কারণ আমি দর্শকদের কোন ধরনের আবেগে আপ্লুত করতে বা উপদেশ দিতে পছন্দ করি না। দর্শককে খাটো করা বা অপরাধবোধে যুক্ত করা আমার ভালো লাগে না। আমি মনে করি সেই ছবি ভালো যার দীর্ঘস্থায়িত্ব আছে। হল থেকে বের হয়ে আসার পর দর্শকরা সেই ছবির বিনির্মাণ করতে থাকবে। এমন অনেক ছবি আছে যা আপাতদৃষ্টিতে ক্লান্তিকর মনে হলেও প্রকৃতপক্ষে পরিচ্ছন্ন ছবি। অপর দিকে এমন অনেক ছবি আছে যেসব ছবি দর্শককে তীব্র ভাবে ধরে রাখে এবং সবকিছু ভুলিয়ে রাখে। কিন্তু ছবি দেখা শেষ হলে পরে দর্শক বুঝতে সে ভীষণভাবে প্রতারিত হয়েছে। এসব ছবি দর্শককে পণবন্দি করে রাখে। এ ধরণের ছবি আমার একদম পছন্দ নয়। কিছু ছবি মনে এমন ভাবে দাগ কাটে যে সেই ছবির অর্থোদ্ধার লক্ষ্যে মাঝরাতে আমার ঘুম ভেঙে যায়। এমনকি সপ্তাহের পর সপ্তাহ সেই ছবি নিয়ে ভাবতে থাকি। এই ধরণের ছবি আমার অত্যন্ত পছন্দীয়।

ছবির চরিত্রাবলী

অনেকে বলে থাকেন আমার ছবির চরিত্রগুলি অস্বাভাবিক। প্রচলিত প্রথার বাইরের চরিত্র। যেমন ‘দ্য ট্র্যাভেলার’ এর ছোট্ট শিশুটি, ‘দ্য রিপোর্ট’ ছবির মি.ফিরোজকুহি, ‘ক্লোজ আপ’এর হোসেইন সাবজাইন বা ‘থ্রু দ্য অলিভ ট্রিজ’ এর হোসেন চরিত্র। যেহেতু সমাজের সব চরিত্রকে একত্রে ক্যামেরা বন্দী করা সম্ভব নয় তাই আমাকে সমাজের বিশেষ ধরণের মানুষটিকে খুঁজে নিতে হয় বা কোন ব্যতিক্রমী পরিবেশের খুব সাধারণ মানুষ। তাদের সেই বিশেষত্ত্বটা কি? বিশেষত্ত্বটা হচ্ছে ছবির ঐ বিশেষ চরিত্রের মানুষটি ঠিক আমাদের মতোই এবং আমি মনে করি এই কারণেই একজন চিত্রপরিচালক সেসব খুঁজে ছবি নির্মাণ করেন।

বাস্তব এবং বিভ্রম

বাস্তব এবং বিভ্রমের মাঝে পার্থক্যের বিষয়টি এতো জটিল এবং বিশাল যে আমি ভেবে পাই না কোত্থেকে শুরু করবো।

আমার কর্মক্ষেত্র এবং আমার জীবনের কতটুকু অংশ বাস্তব এবং কতটুকু অংশ কাল্পনিক, এই অভিজ্ঞতা কীভাবে আমি অর্জন করেছি তা বলতে পারবো না। শুধু চিত্রপরিচালক হিসেবে নয় ব্যক্তিগত জীবনেও এই খেলাটি অর্থাৎ একবার কল্পনা থেকে বাস্তব আবার বাস্তব থেকে কল্পনা আবার বাস্তবে ইতস্তত: ভাবে ঘোরাঘুরি করে। এই বিষয়টি শুধু চিত্রপরিচালক বা বুদ্ধিজীবীদের ক্ষেত্রেই নয় সাধারণ মানুষের মাঝেও একই ভাবে অনুভূত হয়। মানব চরিত্রের সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে ‘স্বপ্ন দেখার যোগ্যতা অর্জন’। যদিও প্রত্যেকেই আমরা কমবেশি স্বপ্ন দেখি কিন্তু খুব কম মানুষই স্বপ্নের কথা বলতে পারি অর্থাৎ বাস্তবায়ন করতে পারি। মানব জীবনের সবথেকে স্বতন্ত্র এবং বিশেষ অবদান হচ্ছে কল্পনা করার ক্ষমতা অর্জন করা। আমরা আমাদের অন্যান্য অনুভূতি যেমন দেখা, শোনা এবং স্বাদ এসব ব্যপারে অত্যন্ত সচেতন এবং কৃতজ্ঞ। কিন্তু কল্পনার মাধ্যমে কত অমেয় পরিমাণ সম্ভাবনার দ্বার খুলে যেতে পারে তা কখনো অনুধাবন করি না। স্বপ্নের কাজ কী? স্বপ্নের আগমন কোত্থেকে উদয় হয়? আমরা স্বপ্ন দেখতে সক্ষম কেনো? এবং কেনো অবশ্যম্ভাবী ভাবে আমরা স্বপ্ন দেখবো? স্বপ্ন যদি আমাদের জীবনে কোন কাজেই না লাগে তবে স্বপ্ন দেখার কি কারণ থাকতে পারে? তবে শেষ পর্যন্ত একটা কারণ আমি পেয়েছি। আর তা হচ্ছে আমরা কখন স্বপ্নকে অবলম্বন করি? যখন আমরা আমাদের পারিপার্শ্বিক নিয়ে অসুখী হয়ে পড়ি। এবং কত বিস্ময়কর ভাবে সত্য হয় যে, পৃথিবীর কোন স্বৈরাচারও এই স্বপ্ন দেখাকে প্রতিহত করতে পারে না। পৃথিবীর কোন আইন দিয়ে মানুষের এই কাল্পনিক অনুভূতিকে নিয়ন্ত্রণ করা যায় না। মানুষ তার মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত স্বপ্ন দেখে যায়। শুধুমাত্র ফ্যান্টাসি বা কল্পনা দিয়েই আপনি জীবনের অলঙ্ঘ দেয়াল পার করতে পারেন। সেই দেয়াল পার হবেন, আবার পেছন ফিরে চাইবেন। এই পেছন ফিরে চাওয়াটাই বাস্তবতা। অর্থাৎ আপনার স্বপ্নকে কতটুকু আপনি বাস্তবায়ন করতে পেরেছেন আর কতটুকু পারেননি। প্রকৃত পক্ষে একমাত্র স্বপ্ন বা কল্পনাই আপনাকে আপনার কঠিন জীবন থেকে নি®কৃতি দিতে পারে, আপনাকে নতুন ঔজ্জ্বল্যে উদ্দীপিত করতে পারে, সেই উদ্দীপনায় আপনাকে সেই স্বপের বাস্তবায়নের দিকে চালিত করে তা বাস্তবায়নযোগ্য করে তুলতে পারে। আর এভাবেই বাস্তব আর কল্পনায় আমাদের যাওয়া আর আসা চলে। কল্পনা হচ্ছে বাস্তব একটি বদ্ধ ঘরের জানালার মতো। মাঝে মাঝে সেই জানালা খুলবেন পরিপূর্ণ নিশ্বাস নেয়ার জন্যে। আর সিনেমা হচ্ছে আমাদের বদ্ধ বাস্তবতার সেই জানালাটি।।

১টি মন্তব্য

  1. ইলিয়াস উদ্দিন পলাশ

    ভালো লাগলো। চমৎকার এরকম একটি লেখার জন্য ধন্যবাদ।