Home » মতামত » এরশাদ কাল বা পরশু কি সিদ্ধান্ত নেবেন তা শুধু তিনিই জানেন

এরশাদ কাল বা পরশু কি সিদ্ধান্ত নেবেন তা শুধু তিনিই জানেন

. আকবর আলি খান

politics-32রাজনীতিতে এরশাদের শেষ কথা বলে কোনো কথা নেই। কাজেই তিনি যে নির্বাচনে অংশ নেবেন না বলে সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছেন, তা যে পরিবর্তিত হবে না, সংশোধিত হবে না সে ব্যাপারে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা বা নিশ্চিত হওয়া খুবই শক্ত। তিনি যা করছেন তা মূলত রাজনীতিতে দরকষাকষি করছেন। তিনি যখন এই সরকারের সমর্থক ছিলেন তখন তার দলকে মাত্র একটি মন্ত্রীর পদ দেয়া হয়েছিল। আর তিনি যখন সরকার থেকে বেরিয়ে আসার ঘোষণা দিলেন তখন তিনি ৭টি মন্ত্রীত্বের পদ দখল করতে সক্ষম হলেন। সুতরাং দেখা যায় যে, এরশাদ খুবই ভালো দরকষাকষি করেন। এখন কি নিয়ে দরকষাকষি করছেন তা আমরা জানি না। তবে তার যা করা উচিত ছিল সেটা হলো তার দলের মন্ত্রীদের উচিত ছিল পদত্যাগ করা। তারপরে এই ঘোষণাটি আসলে বিষয়টি বিশ্বাসযোগ্য হতো। কিন্তু তার মন্ত্রীরা ঠিকই বহাল রয়েছেন। আবার তিনি নির্বাচন করবেন না বলে বলছেন। এর তাৎপর্য কি তা বিশ্লেষণ করা অত্যন্ত কঠিন। এটা কেউই বলতে পারবেন না যে, এরশাদ আগামীকাল বা পরশু কি সিদ্ধান্ত নেবেন। এটা তিনিই জানেন। তবে আমি মনে করি না তার এ সিদ্ধান্তে বাংলাদেশের রাজনীতির উপরে বড় কোনো প্রভাব পড়বে। কারণ বাংলাদেশের রাজনীতি নিয়ন্ত্রণ করছে প্রধান দুটি বড় জোট। এরশাদের দল প্রান্তিক অবস্থানে আছে। সেখানে এর প্রভাব পড়বে না। সরকারের জন্য অবশ্য এটা বিব্রতকর হতে পারে এ জন্য যে, নির্বাচনটি যদি হয়ে যায় তখন একজন নির্ভরযোগ্য ও বিশ্বাসী বিরোধী দলীয় নেতা আবিষ্কার করা অত্যন্ত শক্ত হয়ে দাঁড়াবে। আর এর উপরে ভরসা করেই এরশাদ দরকষাকষি করছেন।

এরশাদ যদি স্থির থাকেন তাহলে নির্বাচনের ব্যাপারে অবশ্যই এটা একটা সঙ্কটের সৃষ্টি হতে পারে। বিশেষ করে বিশ্বাসযোগ্য কোনো বিরোধী নেতা উপস্থাপন করা শক্ত হবে। তবে সেটা সরকারের জোটের মধ্যে অন্যান্য যারা আছে তাদের মধ্যে কাউকে দায়িত্ব দেয়া হবে।।