Home » আন্তর্জাতিক » নারীর বিরুদ্ধে নতুন সহিংসতার সৃষ্টি হচ্ছে

নারীর বিরুদ্ধে নতুন সহিংসতার সৃষ্টি হচ্ছে

অরুন্ধতী রায়

অনুবাদ: মোহাম্মদ হাসান শরীফ

arudhati-roy-3এক সহকর্মীর যৌন হয়রানির অভিযোগের প্রেক্ষাপটে ভারতের শীর্ষস্থানীয় সাময়িকী তেহেলকার সাবেক সম্পাদক তরুণ তেজপালকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তেজপালের বিরুদ্ধে এখনো আনুষ্ঠানিকভাবে অভিযুক্ত করা হয়নি, তিনিও তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। তেজপালের সঙ্গে অরুন্ধতী রায়ের পরিচয় দীর্ঘদিনের। বুকার পুরস্কারজয়ী এই লেখক ও অ্যাক্টিভিস্ট এ প্রসঙ্গে বিবিসির সঞ্জয় মজুমদারের সঙ্গে কথা বলেছেন।

প্রশ্ন: তরুণ তেজপালের বিরুদ্ধে অভিযোগটি সম্পর্কে আপনি যখন প্রথম শুনলেন, তখন আপনার প্রতিক্রিয়া কেমন ছিল, বিশেষ করে আপনি তাকে চিনতেন এবং তেহেলকার সঙ্গেও আপনার সম্পর্ক দীর্ঘ দিনের?

অরুন্ধতী: হৃদয়বিদারক। আমার মনে হয়, আমাদের সবাই বুঝে নিয়েছে যে আমরা যা জানি তা নিয়ে মিডিয়ায় গণউন্মাদনা সৃষ্টি হতে চলেছে। কেউই চিন্তা করার সময় বা জায়গাই পাচ্ছে না। তবে বাস্তবতা হলো, তার বিরুদ্ধে যে অপরাধের অভিযোগ আনা হয়েছে, তা মারাত্মক। আবার ওই তরুণী সহকর্মীরও প্রশংসা করতে হয়, কারণ সে প্রতিবাদ করার সাহস দেখিয়েছে। তার বিরুদ্ধে যা ঘটেছে, সে তা বলতে পেরেছে, এটা সাধারণত হয় না।

গত ডিসেম্বরে দিল্লিতে গণধর্ষণের প্রেক্ষাপটে মারমুখী জনতা চরমপন্থা অবলম্বন করছে। আমার মনে হয়, আমরা যা মিস করছি তা হলো সমস্যার প্রকৃত সমাধান। প্রতিটি নারী যে যৌন হয়রানি, নির্যাতন ও ধর্ষণের মুখোমুখি হচ্ছে, তাকে আমরা বিস্ময়কর ঘটনা হিসেবে অভিহিত করছি। এই মিডিয়া উন্মাদনা কি সমস্যাটির সমাধান করতে যাচ্ছে?

প্রশ্ন: নারীরা যে বাস্তবতার মুখে পড়ছে তা নিয়ে সৃষ্ট প্রতিক্রিয়ায় আপনি কি বিস্মিত হয়েছেন?

অরুন্ধতী: একদিকে আপনি আপনার দেশটি এমন যেখানে দেশটির বেশির ভাগ লোক সামন্ততান্ত্রিক, পিতৃতান্ত্রিক অতীতে বাস করছে আর উচ্চবর্ণের পুরুষেরা তাদের অধিকার বিবেচনা করে দলিত [সাবেক অচ্ছুৎ] নারীদের ধর্ষণ করেছে। তারপর আপনার মধ্যে এমন এক বিস্ময় জেগেছে যে পুরুষদের চেয়ে নারীরা অনেক দ্রুত বদলে যাচ্ছে, অনেক বেশি সংখ্যায় কর্মস্থলে প্রবেশ করছে, ক্ষমতাপ্রাপ্ত হচ্ছে। নারীরা তাদের পোশাকের ধরন, অবস্থান, দৃষ্টিভঙ্গি, প্রত্যাশা বদলে ফেলছে। আর এর ফলে নারীদের বিরুদ্ধে নতুন ধরনের সহিংসতার সৃষ্টি হচ্ছে।

আরেকটি বিষয়ও মনে রাখতে হবে, মনিপুর, কাশ্মীর, ছত্তিশগড়ের মতো সামরিকৃত এলাকায় নারীদের বিরুদ্ধে সহিংসতা ঘটছে। আর কিছু লোক এসব এলাকায় পরিকল্পিতভাবে যা কিছু ঘটছে তাতে ক্ষুব্ধ না হয়ে তরুণ তেজপাল ও তার তরুণী সহকর্মীর মধ্যে যা ঘটেছে, তাতে ক্ষুব্ধ হয়ে পড়েছে।

নারীরা ধর্ষণের আইনি সংজ্ঞা সম্প্রসারণের জন্য লড়াই করছে। আমি মনে করি এক্ষেত্রে কিছু একটা হচ্ছে। এটা একটা অর্থহীন আইনকিছুটা ভালো, কিছুটা নির্মম।

আইন সম্প্রসারিত করে এবং গুটিকতেক হাইপ্রোফাইল ঘটনার পর সৃষ্ট উন্মাদনায় শাস্তির জন্য সোরগোল করা যায়, কিন্তু সমস্যার সুরাহা হয় না।

প্রশ্ন: আপনি কি বলতে চান, এটা এমন এক বিষয়, যা আইন দিয়ে পুরোপুরি সমাধান করা যায় না?

অরুন্ধতী: আমি অংশত এর সঙ্গে একমত। এই সমস্যা সমাধানের জন্য একটা প্রাতিষ্ঠানিক পন্থা থাকা দরকার, যা অসম্পূর্ণ থাকা উচিত নয়। প্রত্যেকেই মৃত্যুদণ্ড বা যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়া যাবে না বা লোকচোক্ষুতে অপদস্থ করা যাবে না। আমাদের সংযত প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করা উচিত, শান্ত থেকে একটু চিন্তা করা দরকার।

প্রশ্ন: ক্ষতিগ্রস্তের জন্য ন্যায়বিচারের ব্যবস্থা করার পাশাপাশি আপনি এটা কিভাবে করবেন?

অরুন্ধতী: আপনি যদি এসব ব্যবস্থা সক্রিয় রাখেন, তবে ক্ষতিগ্রস্তরাও গভীরভাবে চিন্তা করবে, তারা আদালতে যাবে না ভিন্ন পন্থায় মোকাবিলা করবে। প্রতিবন্ধকতা রয়েছে, তবে আপনাকে আরো সভ্য হতে হবে।।