Home » অর্থনীতি » চিনি শিল্প সঙ্কটে

চিনি শিল্প সঙ্কটে

আমাদের বুধবার প্রতিবেদন

sugar-industryএকের পর এক টানা হলতাল অবরোধে এবার সংকটে পড়েছে চিনি শিল্প। আখ ক্রয় কেন্দ্র গুলো থেকে মিল গুলো আখ পরিবহনে বাঁধার সম্মুখীন হচ্ছে। একটি মিলের উৎপাদন বন্ধ হয়ে গেছে। ৪টি মিলের উৎপাদন মাঝে মাঝে বন্ধ রাখেতে হচ্ছে। বাকি গুলো আংশিক চালু আছে। কৃষি ভিত্তিক দেশের এ বৃহৎ শিল্প সংকটে পড়ায় আখ চাষিরাও সমস্যায় পড়েছে। লোকসানে রোকসানে জর্জড়িত চিনি শিল্প করপোরেশনের লোকসানের পরিমান চলতি মাড়াই মৌসুমে আরো বাড়বে বলে আশংকা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।

চিনি ও থাদ্য শিল্প করপোরেশনের অধীন ১৫টি চিনি কল আছে। এ বছর ( ২০১৩ ২০১৪ ) ১৮ লাখ ৬০ হাজার টন আখ মাড়াই করে এক লাখ ৩৮ হাজার একশ’ ৫০ টন চিনি উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধার্য করেছে করপোরেশন। ২২ নভেম্বর থেকে চিনি উৎপাদন শুরু হয়। আখ মাড়াই শুরুর পরই হরতাল অবরোধে পড়ে রাজশাহী ও নাটোর চিনিকল। বিভিন্ন স্থানে স্থাপিত ক্রয় কেন্দ্র গুলো থেকে মিলে আখ পরিহন হরতাল অবরোধকারীদের বাঁধার মুখে পড়ে। রাজশাহী চিনি কলের একটি আখবাহী গাড়ি পুড়িয়ে দেয় অবরোধকারীরা। একই পরিস্থিতির মুখে পড়ে নাটোর চিনি কল। পঞ্চগড় চিনিকলও অবরোধকারিদের বাঁধায় ক্রয় কেন্দ্র গুলো থেকে আখ মিলে বহন করতে পারছে না বলে করপোরেশনের হেড অফিসের ইক্ষু বিভাগের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মকর্তা জানান। শ্যমপুর চিনিকল প্রয়োজন মত আখ সংগ্রহ করতে পারছে না। ঠাকুরগা, নর্থ বেঙ্গল, জয়পুরহাট, কুষ্টিয়া, দর্শনার কেরু, ঝিনাইদহের মোবারকগঞ্জ, ফরিদপুর, পাবনা ও জিলবাংলা চিনিকল পর্যায়ক্রমে চিনি উৎপাদন শুরু করে। আখের অভাবে পুরোপুরি উৎপাদন করতে পারছে না। রংপুর চিনিকল এখনও উৎপাদন শুরু করতে পারেনি। করপোরেশনের হেড অফিসের এক উর্ধতন সুত্র জানায়, সোমবার পর্যন্ত ১০ হাজার ৫শ’ ২৮ টন চিনি উৎপাদিত হয়েছে। করপোরেশনের এ কর্মকর্তা জানান, তার দীর্ঘ চাকরি জীবনে করপোরেশন এমন সংকটে পরেনি। এখন চিনি উৎপাদনের ভরা মৌসুম। চাষিরা আখ কেনার জন্য চাপ দিচ্ছে।

মোবারকগঞ্জ চিনিকলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক দেলওয়ার হোসেন জানান, রাতের বেলায় আখ বহন করা হচ্ছে। চাষিদের গরু মহিষের গাড়ি ও পাওয়ার টিলার ট্রলি যোগে মিল গেটে আনা আখ দিয়ে মিলের উৎপাদন চালু রাখা হয়েছে। তবে অবরোধে উৎপাদন ব্যাহত হচ্ছে। রাজশাহী চিনিবলের ডিজিএম (ইক্ষু) আনোয়ার হোসেন জানান, কয়েক দিন পরপর আখের অভাবে মিল বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। কুষ্টিয়া চিনিকলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সুদর্শন মল্লিক জানান, আখ পরিবহনে বাঁধা না দেওয়ার জন্য তিনি অবরোধকারীদের সাথে যোগাযোগ করছেন। তিনি বলেন, অনেক চেষ্ঠা করে মিল চালু রেখেছেন। চাষিরা আখ কেটে জমি পরিষ্কারের পর ওই জমিতে বোরো চাষ করে থাকে। বিলম্ব হওয়ার জন্য বোরো চাষ ব্যহত হবে।।