Home » প্রচ্ছদ কথা » কোটা সংস্কার আন্দোলন : হাতুড়ি, রিমান্ড, নিস্ক্রিয়তা এবং কটাক্ষ

কোটা সংস্কার আন্দোলন : হাতুড়ি, রিমান্ড, নিস্ক্রিয়তা এবং কটাক্ষ

সি আর আবরার ::

বেসামরিক আমলাতন্ত্রে নিয়োগের বিতর্কিত ও পৃষ্ঠপোষকতামূলক কোটাব্যবস্থা সংস্কারের পর্যালোচনার দাবি জানাতে গিয়ে দুই সপ্তাহেরও বেশি সময় ধরে সারা দেশের ক্যাম্পাসগুলোতে ছাত্ররা ভয়াবহ মাত্রায় নৃশংসতার মুখে পড়েছে। ৩০ জুন তারা কোটা সংস্কার প্রশ্নে গ্যাজেট প্রজ্ঞাপন জারির জন্য চাপ সৃষ্টি করতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রাঙ্গনে একটি সংবাদ সম্মেলন আয়োজনের পরিকল্পনা করেছিল। অত্যন্ত শান্তিপূর্ণ, নিয়মতান্ত্রিক ও গণতান্ত্রিক একটি পদ্ধতিকে অবশ্য ক্ষমতাসীন দলের সমর্থকেরা ‘ক্যাম্পাস অস্থিতিশীল করার স্বার্থেন্বেষী মহলের ষড়যন্ত্র’ এবং ‘সরকারের জন্য চ্যালেঞ্জ’ হিসেবে বিবেচনা করে। ফলে তারা আর সময় ক্ষেপণ না করে কোটাব্যবস্থা সংস্কারের আন্দোলনকারীদের সংগঠকদের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে, ‘সফলভাবে’ সংবাদ সম্মেলন ভন্ডুল করে দেয়। আর এর মাধ্যমে ক্ষমতাসীন দলের উৎসাহী অনুসারীদের হাতে ভিন্নমত প্রকাশকারী ছাত্রদের ওপর দমনপীড়নের নতুন মাত্রা শুরু হয়।

কয়েকটি ঘটনায় রাষ্ট্রীয় সংস্থাগুলোর নিস্ক্রিয়তায় মনে হয়েছে তারা অপরাধমূলক কাজে সহায়তা করছে এবং অন্য কয়েকটি ঘটনায় দেখা যায়, তারা বিপুল উৎসাহে বিক্ষোভকারী, তাদের পরিবার ও বন্ধুদের প্রতি অপূরণীয় ক্ষতি সাধন করেছে। সুস্পষ্টভাবে অপরাধে জড়িতদের গ্রেফতার করে তাদেরকে আইন লঙ্ঘনের জন্য বিচারের মুখোমুখি করার বদলে তারা কোটা সংস্কার আন্দোলনের নেতা ও অংশগ্রহণকারীদের খুঁজছে, আটক করছে ও রিমান্ডে নিচ্ছে। তারা শক্তি প্রদর্শন করে শিক্ষক, অভিভাবক ও উদ্বিগ্ন নাগরিকদের প্রতিবাদ ও বিক্ষোভ ছত্রভঙ্গ করে দিচ্ছে। মন্ত্রীদের পাশাপাশি বিশ্লেষক, সাংবাদিক ও এমনকি ভিসিরাসহ এস্টাবলিশমেন্টের অ-রাষ্ট্রীয় গ্রুপগুলো ক্ষুব্ধ ছাত্রদের ‘বিঘ্ন সৃষ্টিকারী’ হিসেবে অভিহিত করার  ক্ষেত্রে সুর মেলাচ্ছে।

মিডিয়ায় সহিংসতার মাত্রা ও তীব্রতা ব্যাপকভাবে প্রচারিত হয়েছে। দেশের বিভিন্ন অংশে শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভকারীদের রড, বাঁশ, এমনকি হাতুড়ি দিয়ে নির্মমভাবে প্রহার করার ক্ষমতাসীন দলের ছাত্র সংগঠনের সিনিয়র  নেতাদের ছবি ও ফুটেজ অহরহ দেখা যাচ্ছে। কোটা আন্দোলনের সমর্থক ও সহানুভূতিশীলদের প্রতি বিনা উস্কানিতে সহিংসতা চালানো, ছাত্রীদের হয়রানি ও ভীতি প্রদর্শন করার বিস্তারিত প্রতিবেদন ও সাক্ষী-প্রমাণ প্রিন্ট মিডিয়ায় এই সহিংসতা ব্যাপকভাবে দেখা যায়। এসব কিছু সত্ত্বেও সরকার ও ক্ষমতাসীন দলের দায়িত্বশীল কোনো সদস্যের এ ধরনের কাজের সমালোচনা করা তো দূরের কথা, এগুলো ঠিক হয়নি পর্যন্ত তারা বলেননি। তার পরেও সপ্তাহের পর সপ্তাহ ধরে অপরাধীরা ভিন্নমত দমনের জঘন্য এজেন্ডা বাস্তবায়নে অবাধ সুযোগ পেয়েছে। গত ১৫ জুলাই অবস্থার আরো অবনতি ঘটে যখন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজ বিজ্ঞান অনুষদের দুই বিবেকবান শিক্ষক সহিংসতায় আহতদের সাথে সংহতি প্রকাশ করার কারনে অপদস্ত হন।

সহিংসতামূলক কাজ করে অপরাধীরা কেবল বিশ্ববিদ্যালয় প্রাঙ্গণের পবিত্রতাই লঙ্ঘন করেনি, ভিন্নমত প্রকাশের প্রতীকি সৌধ শহিদ মিনারের অলঙ্ঘনীয়তাও নস্যাৎ করেছে। প্রতিবাদকারীদের শান্ত করার জন্য সরকারপন্থী ছাত্র সংগঠনের নেতা-কর্মীরা সব ধরনের অপরাধমূলক তৎপরতা চালায় ; গুম ও ধর্ষণ; বাঁশ, রড, চাপাতি, এমনকি হাতুড়ি নিয়ে হামলা করে, নিগৃহীত ও অপহরণ করার হুমকি ও ভীতি প্রদর্শনও করে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগ যে নৈরাজ্যের সৃষ্টি করে, তা দ্রুততার সাথে চট্টগ্রাম, রাজশাহী, সাভার, রংপুর ও দেশের আরো অনেক নগরীতে ছড়িয়ে পড়ে। ক্যাম্পাসকে ছাত্রলীগের নিয়ন্ত্রণে রাখার নামে অনৈতিক কর্তৃত্ব দাবি করে সংগঠনটি ‘ক্যাম্পাস অস্থিতিশীল করার কাজে জড়িতদের’ হাত থেকে মুক্ত করার তাদের দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করে ।

কথাকে কাজে পরিণত করার একটি ঘটনায় শহিদ মিনারে প্রতিবাদকারীদের রক্ষা করতে গিয়ে বেশ কয়েকজন ছাত্রী আক্রান্ত হয়েছেন। আরেক ঘটনায় এক কোটা সংস্কার সমর্থককে লাইব্রেরি থেকে টেনে বের করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ও লাইব্রেরিয়ানের সামনে প্রহার করার সময় তাকে আহত করে। কয়েকটি ঘটনায় ছাত্রলীগ প্রতিবাদকারী ছাত্রদের আটক করে তাদের সাথে খারাপ আচরণ করে তাদেরকে আইন-শৃঙ্খলা সংস্থার কাছে হস্তান্তর করে। শীর্ষস্থানীয় প্রতিবাদকারীদের তাদের বাড়িতে ও হলে গিয়ে ভয়াবহ পরিণতির জন্যে হুমকি দেওয়া হয়।

বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনগুলোর প্রতিক্রিয়া ছিল ভয়াবহ রকমের হতাশাজনক। প্রতিবাদকারীদের রক্ষা করা ও উদ্বেগ প্রশমিত করতে বলতে গেলে কিছুই করা হয়নি। দিনের পর দিন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সহিংসতা চলা ও এতে ক্যাম্পাস জীবন বিঘ্নিত হলেও প্রক্টর এমন দাবিও করলেন যে, ‘এ ধরনের হামলা হওয়ার কোনো খবর তার জানা নেই’। তিনি দাবি করলেন, ‘অভিযোগ পাওয়া গেলে, তিনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন’। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরিয়াল বডি হামলা ও হয়রানি থেকে ছাত্রদের রক্ষা করতে ভয়াবহভাবে ব্যর্থ হলেও একজন মাত্র শিক্ষক ক্যাম্পাস সহিংসতার প্রতিবাদে নগ্ন পায়ে ক্যাম্পাসে এসে তার বিরক্তি প্রকাশ  করায় আসল কারন রেখে ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধেই বিরল সাফল্য লাভ করেছে। সহিংসতার শিকারদের প্রতি সমর্থন, সহানুভূতি প্রদর্শন ও চিকিৎসার ব্যবস্থা করার দীর্ঘ ঐতিহ্য ছুঁড়ে ফেলে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ও শিক্ষক সমিতিগুলো হামলাকারীদের  পক্ষেই অবস্থান নিয়েছে বলে মনে হচ্ছে।

কোটাবিরোধী আন্দোলনের ব্যাপারে আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলোর প্রতিক্রিয়া ভীতিকর যদি না-ও হয়ে থাকে, অন্তত তা রীতিমতো চোখে পড়ার মতো। ছাত্রলীগ কর্মীরা যখন কোটা সংস্কারপন্থী ছাত্রদের শান্তিপূর্ণ সমাবেশ ভন্ডুল করার কর্মসূচি ঘোষণা করে, তখন পুলিশ ও অন্যান্য সংস্থা তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি। ছাত্রলীগ কর্মীরা যখন শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভকারীদের সাথে সঙ্ঘাতে জড়ায়, তখন পুলিশ সদস্যরা প্রতিকারমূলক ব্যবস্থা গ্রহন না করে বরং শহিদ মিনার প্রাঙ্গণ খালি করে দেয়। এ ধরনের যেকোনো সহিংস ঘটনার পর হামলাকারীদের গ্রেফতার করার বদলে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা হামলার শিকারদের আটক, গ্রেফতার করে রিমান্ডে নিচ্ছে। প্রিন্ট, ইলেকট্রনিক ও সামাজিক মাধ্যমে হামলাকারীদের ছবি, ভিডিও ব্যাপকভাবে দেখা গেলেও তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে সুস্পষ্ট উদাসিনতা দেখা যায়। ডেইলি স্টারসহ বেশ কয়েকটি দৈনিকে হামলাকারীদের ছবি, নাম ও পদবি (ছাত্রলীগের বিভিন্ন পদে তারা রয়েছে) প্রকাশ করেছে। তারা অবাধে ক্যাম্পাসজুড়ে বিচরণ করলেও হামলার শিকার শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভকারীরাই আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলোর ধাওয়ার মুখে পড়ছে। এক্ষেত্রে খুব কম সংশয়ই আছে যে, আইনকে নিজের ধারায় চলতে দেওয়া হলে বেশির ভাগ হামলাকারীই ক্ষতিকর অস্ত্র বহন, দৈহিকভাবে মারাত্মক ক্ষতি সাধন, অন্যায়ভাবে আটক ও অপহরণসহ নানা অপরাধমূলক অভিযোগে অভিযুক্ত হতো। মরিয়ম ফারার বক্তব্য ছিল মর্মভেদী। ছাত্রলীগের হাতে হয়রানির শিকার হওয়ার পর বাড়ি ফেরার পথে তাকে থানায় নিয়ে আরেক দফা অপদস্থ ও লাঞ্ছনার শিকার হতে হয়েছে। তিনি বলেছেন, ‘আমি ভাবতাম, থানা হবে নিরাপদ, কিন্তু এটা মনে হয়েছে দ্বিতীয় দোজখ।’

ছাত্রদের সক্রিয়বাদী বা অ্যাক্টিভিস্টদের বিরুদ্ধে ব্রিটিশ উপনিবেশিক ও পাকিস্তানি পুলিশের গৃহীত বাড়াবাড়িকে লজ্জায় ফেলে সরকারি হাসপাতালগুলো মারাত্মক আহত অন্তত দুজন কোটা সংস্কারবাদী ছাত্রকে চিকিৎসা দিতে অস্বীকার করেছে। একটি ঘটনায় মা-বাবা অভিযোগ করেছেন, আহত ছাত্রকে একটি বেসরকারি ক্লিনিক থেকেও চলে যেতে বাধ্য করা হয়েছে।

আইন শৃঙ্খলা সংস্থাগুলো সময় ক্ষেপণ না করে নির্দোষ প্রতিবাদকারীদের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেছে, এমনকি আহতদের রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন করে সফলও হয়েছে। সম্মানিত ম্যাজিস্ট্রেটরা কোন যুক্তিকে এসব আবেদন মঞ্জুর করেন, তা ভাবলে বিস্মিত হতে হয়। হতভাগ্য ছাত্ররা তাদের ও জাতির ভবিষ্যতকে আক্রান্ত করতে পারে এমন সরকারি নীতির ব্যাপারে উদ্বেগ প্রকাশ করার তাদের সাংবিধানিক অধিকার প্রয়োগ করছিল। তারা হামলকারী নয়, বরং হৃদয়হীন সহিংসতার শিকার।

বিক্ষুব্ধ ছাত্রদের হতাশা বোধগম্য। প্রধানমন্ত্রী ‘কোটা ব্যবস্থা বিলুপ্তি’ করার প্রতিশ্রুতি দেওয়া সত্তে¡ও বলতে গেলে কোনো পদক্ষেপই গ্রহণ করা হয়নি। মনে রাখতে হবে, ছাত্ররা কিন্তু পুরো কোটাব্যবস্থা বাতিল চায়নি। দীর্ঘ নীরবতা ও প্রায় নিষ্ক্রিয়তার মধ্যে নিয়মিতভাবে দায়িত্বশীল ব্যক্তিদের কাছ থেকে ‘অবগত নই,’ ‘নির্দেশনা নেই,’ ‘অগ্রগতি নেই,’ ‘প্রধানমন্ত্রী ফেরার পর সিদ্ধান্ত,’ ‘ঈদের পর গ্যাজেট’ ইত্যাদি বিভ্রান্তমূলক বক্তব্য পাওয়া যাচ্ছিল। কয়েক মাস আগে বিক্ষুব্ধ ছাত্রদের সাথে আলোচনার সময় শিগগিরই উচ্চপর্যায়ের কমিটি গঠন করার প্রতিশ্রতি দেওয়া হয়েছিল। মন্ত্রিপরিষদ সচিবও প্রতিশ্রুতিটি পুনর্ব্যক্ত করেছিলেন। সর্বশেষ দফার বিক্ষোভের পরই কেবল ৩ জুলাই কমিটি গঠন করতে বাধ্য হয় প্রশাসন।

বৈধ চ্যালেঞ্জ রাজনৈতিকভাবে মোকাবিলা করতে গিয়ে সংশ্লিষ্ট মহলগুলোকে অন্যায় ও ভ্রান্ত বক্রোক্তি ও কটাক্ষের আশ্রয় গ্রহণের দিকে ধাবিত করছে। এর ফলে এমনকি আইনমন্ত্রী বলে ফেলেছেন, বিএনপি ও জামায়াতই কোটা সংস্কার আন্দোলনকে উস্কানি দিচ্ছে। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগৈর শক্তিশালী সাধারন সম্পাদকও একই ধরনের দৃষ্টিভঙ্গি পোষণ করেন। ক্যাম্পাসে বিশৃঙ্খলার জন্য ছাত্রলীগের দায়দায়িত্ব নাকচ করে দিয়ে তিনি যুক্তি দেখান যে, এখন সেখানে ছাত্রলীগের কোনো কমিটিই যেহেতু নেই, তাই সংগঠনটিকে দায়ী করার কোনো অবকাশই নেই। মন্ত্রী কি সত্যিই জনগণকে বিশ্বাস করাতে চান যে কমিটি ভেঙে দেওয়া হলে ছাত্রলীগের সদস্যরা গুটিয়ে যায় ? পাঠকদের স্মরণে থাকতে পারে যে, একসময়ে তেজোদীপ্ত ছাত্রকর্মী হিসেবে পরিচিত এক সিনিয়র মন্ত্রী গত এপ্রিলে প্রতিবাদকারীদের রাজাকার হিসেবে চিহ্নিত করেছিলেন। কোনো প্রমাণ ছাড়াই ঢাবির ভিসির বাসভবন ভাংচুরকারীদের দায় কোটা সংস্কার কর্মীদের ওপর চাপিয়ে দেওয়া হয়েছিল। তা-ই যদি হবে, তবে কি প্রশাসনের দায়িত্ব নয় তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশ করে হামলাকারীদের শাস্তি প্রদান করা? যদি তাই না হবে তবে প্রশ্ন করা যায় কিনা, ঘটনা কী  এতোই বিস্বাদপূর্ণ যে তা প্রকাশ করা সম্ভব নয়?

গোয়েন্দা না হলেও পুলিশের অদৃশ্য পোশাক পরিহিত রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি সিদ্ধান্তে পৌঁছেছেন যে, কোটা সংস্কার আন্দোলন আসলে ‘অন্তর্ঘাত চালানোর লক্ষ্যে একটি সরকারবিরোধী আন্দোলন।’ আর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি একই ধরনের পরিভাষা ব্যবহার করে একে ‘অপ:শক্তির কৌশল’ হিসেবে অভিহিত করেছেন। তিনি সাংবাদিকদের সাথে বেশ খোলামেলাভাবেই বলেছেন, প্রতিবাদকারীদের ভিডিও ফুটেজ তাকে ‘তালেবান, আল শাবাব ও বোকো হারামের উস্কানিমূলক ভিডিও বার্তার’ কথাই মনে করিয়ে দিয়েছে।

কোটা সংস্কার অ্যাক্টিভিস্টদের বৈধ দাবির প্রতি সরকার, ক্ষমতাসীন দল ও তাদের সঙ্গী-সাথীদের প্রতিক্রিয়া সুস্পষ্টভাবে জনগণ ও তাদের সমস্যা থেকে তাদের গভীর বিচ্ছিন্নতার কথাই প্রকাশ করছে। এটি যেকোনো ধরনের সম্মিলিত প্রতিরোধে তাদের নাজুকতাই প্রকাশ করছে। এতে আরো সুস্পষ্ট হয়েছে যে, রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানগুলোর দলীয় পক্ষপাতিত্ব কেবল অপরাধের শিকারদের রক্ষা করতেই ব্যর্থ হচ্ছে না, সেইসাথে অমানবিক, অবৈধ ও প্রজাতন্ত্রের সংবিধানে থাকা ব্যবস্থার সংঘর্ষিক তৎপরতাও শাস্তির বাইরে থেকে যাচ্ছে।

একথাটি মনে রাখতে হবে যে, তরিকুলের ওপর হাতুড়ির আঘাত কেবল তার পা বা মেরুদন্ডেরই ক্ষতি করেনি, তা মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকেও মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে।

(সি আর আবরার- অধ্যাপক, আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়)