Home » অর্থনীতি » ব্যবসায়ী ফাটকা পুজিপতিদের ‘রাজনীতি দখল’ : জিম্মি জনগন

ব্যবসায়ী ফাটকা পুজিপতিদের ‘রাজনীতি দখল’ : জিম্মি জনগন

শাহাদত হোসেন বাচ্চু ::

প্রফেসর ড. সিরাজুল ইসলাম চৌধুরীর বক্তব্য দিয়ে শুরু করা যাক। সম্প্রতি তিনি এক অনুষ্ঠানে বলেছেন, “নির্বাচন বাণিজ্যে যারা অর্থ বিনিয়োগ করবে তারা সে অর্থ বহুগুন তুলে নেবে”। এই অপ-আকাঙ্খার কারনেই কি ৩’শ আসনে মনোনয়নপত্র জমা পড়ে হাজার চারেক?‌‌‌ নির্বাচন বিশেষজ্ঞ ড. তোফায়েল আহমেদের মতে, ১৯৫৪ সালে জাতীয় নির্বাচনে নির্বাচিত ব্যবসায়ীর সংখ্যা ছিল দশমিক ৫৪ শতাংশ। সে সংখ্যা এখন দাঁড়িয়েছে ৮০-৮৫ শতাংশে। এভাবেই নির্বাচনকে শেষতক বাণিজ্যে পরিনত করা হয়েছে।

এক. প্রত্যেক ব্যবসায়ী দেশের একজন নাগরিক। কোন কোন ক্ষেত্রে ‘কমার্শিয়ালি ইম্পর্টেন্ট পারসন” (সিআইপি)। ফাটকা পুঁজিবাদী বা এমন পুঁজিবাদী সমাজে ব্যবসায়ীদের কদর আলাদা। ব্যবসায়ী মানে টাকার ক্ষমতা, বিনিয়োগের ক্ষমতা এবং এর মাধ্যমে নিয়ন্ত্রনের ক্ষমতা। রাজনীতিতে যুক্ত হতে বা কোন দলের নেতৃত্ব দিতে ব্যবসায়ীদের জন্য কোন সাংবিধানিক বিধি-নিষেধ নেই। কিন্তু আছে নানা সন্দেহ-অস্বস্তি। বিশ্লেষকদেরও আছে নানা প্রশ্ন। আদর্শিক দলগুলো জোরে-সোরেই ব্যবসায়ীদের রাজনীতির বিরোধিতা করে। যদিও রাজনীতি করার অধিকার ব্যবসায়ীদের রয়েছে। ফলে কেউ রাজনীতিতে আসলে তাকে রাজনীতি দিয়ে থামানোর বিকল্প পথও এখন আর খোলা নেই।

আসলে ব্যবসায়ীদের কাজ হচ্ছে, অর্থ বিনিয়োগ করা এবং তা থেকে নির্দিষ্ট মেয়াদে মুনাফা তুলে নেয়া। যেহেতু  দেশের রাজনীতি দুর্নীতিমুক্ত নয়। ফলে রাজনৈতিক দলে নেতা হতে বিপুল অর্থ বিনিয়োগ করতে হয়, নির্বাচন এলে মনোনয়ন পেতেও আবার অঢেল। সহজ কথায যার নাম-মনোনয়ন বানিজ্য। ব্যবসায়ীরা এই প্রক্রিয়ার অংশ হয়ে গেছেন। এই প্রক্রিয়ায় তারা তাদের বিনিয়োগকৃত অর্থ তুলে আনছেন, নিরাপদ করছেন। এটি তাদের জন্য স্বাভাবিক হলেও জনগনের জন্য ক্ষতিকর, যখন জানা যায় দেশ থেকে মাত্র একবছরেই ৭৩ হাজার কোটি টাকা পাচার হয়ে গেছে।

রাজনৈতিক দলগুলি, বিশেষ করে শাসক দলগুলি তাদের নেতা-কর্মী ও জনগনের ওপর আস্থা রাখতে পারছে না; নির্ভর করতে পারছে না। সেজন্য নির্বাচনে জিততে বা ক্ষমতায় থাকতে ব্যবসায়ীদেরও দয়া-আনুকুল্য দরকার হয়ে পড়ছে। নানাসময়ে ক্ষমতার সাথে যুক্ত দলগুলি টাকার ওপর নির্ভর করেছে, টাকা দিয়েই অবস্থান তৈরী করতে চেয়েছে। সেজন্যই ব্যবসায়ীদের এড়ানোর কোন সুযোগ নেই। এটি দুর্নীদির এক দুষ্টচক্রে আটকে ফেলেছে দেশের রাজনীতিকে।

মুশকিল হচ্ছে, বাংলাদেশে ব্যবসায়ীদের অর্থবান হওয়ার ক্ষেত্রটি বেশিরভাগই অবৈধ ও অন্ধকার পথে। এটিকে তারা অবলীলায় কাজেও লাগান। এ ধরনের ব্যবসাকে নিরাপত্তা দেয়ার জন্য রাজনীতির প্রয়োজন হয়। শেয়ার বাজার ও ব্যাংক লুঠ, মাদক-অস্ত্রের চোরাকারবার, মানবপাচার, খাদ্য পণ্যেও সিন্ডিকেট ও ভেজাল, দুর্নীতি-দখলসহ অবৈধ পন্থায় উপার্জিত হাজার কোটি টাকার নিরাপত্তা দিতে পারে একমাত্র রাজনৈতিক ক্ষমতা। এজন্যই মানুষের যত অস্বস্তি, সন্দেহ এবং প্রশ্ন।

দুই. সামরিক সরকারগুলোর সময় ক্ষমতার অংশীদার হিসেবে ব্যবসায়ীদের উত্থান ঘটেছিল পেশাদার রাজনীতিবিদদের নানান দুর্বলতায়। আশির দশকের সবচেয়ে নিকৃষ্টতম সামরিক স্বৈরাচার তৃণমূল পর্যায়ে যে টাউট-বাটপার শ্রেনী তৈরী করেছিল, তারাই কালক্রমে স্থানীয় ও জাতীয় রাজনীতিতে আধিপত্য বিস্তার করেছে। এই নবোত্থিত টাউট-ব্যবসায়ীরা অচিরেই অঢেল অর্থের মালিক হয়েছে, নব্বই দশকে নির্বাচিত সরকারগুলি দলে ও ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত করেছে এদেরকে।

আসছে সংসদ নির্বাচনে বড় দলগুলি কম-বেশি বড় ব্যবসায়ী ও ব্যবসা সংগঠনের নেতাদের মনোনয়ন দিয়েছে। অনেক দল বা জোট মনোনয়ন দিয়েছে শেয়ার বাজার কেলেঙ্কারি, ঋন খেলাপীর চিন্হিত মহানায়কদের। নির্বাচিত হয়ে যারা বাণিজ্য ও মুনাফাভিত্তিক নীতি প্রণয়নে সরকারকে প্রভাবিত করতে সক্ষম। পোশাক খাতের অন্তত: ৩০ জন ব্যবসায়ী চলতি সংসদের সদস্য। তাদের প্রবল রাজনৈতিক দাপটের কারনে সর্বোচ্চ আদালত কথিত “বিষাক্ত ক্ষত” বিজেএমই ভবন এখনও সপাটে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে। উপেক্ষিত হয়েছে ভবন ভাঙ্গার নির্দেশ। এ দিয়েই বোঝা যাবে রাজনীতিতে ব্যবসায়ীদের বর্তমান অবস্থান।

সদ্য স্বাধীন বাংলাদেশে ১৯৭৩ সালের সংসদে ব্যবসায়ীদের অংশগ্রহন ছিল অনধিক ১০ জন। সেটি এখন গিয়ে ঠেকেছে ৮০-৮৫ শতাংশে। অর্থাৎ পেশাদার রাজনীতিকরা এখন সংখ্যালঘু। এদের কল্যাণে দ্রব্যমূল্য, পরিবহন, পোশাক খাত, ঔষধ, চিকিৎসা ব্যবস্থা- সবকিছুর নিয়ন্ত্রন চলে গেছে ব্যবসায়িক রাজনীতিকদের হাতে। জনগন ও রাজনীতি জিম্মি এদের কাছে। সব খাতে ব্যবসায়ীরা এর সুবিধা ভোগ করছে। কর অবকাশ, নতুন ব্যাংক করা থেকে সব কিছুতেই পাচ্ছে রাজনৈতিক আনুকূল্য।

এর প্রত্যক্ষ ফল হিসেবে জনগন দেখছে বিভিন্ন ব্যাংক-শেয়ার বাজার লুঠকারী বা তাদের পৃষ্ঠপোষক, মাত্র দশককাল আগেও কপর্দকহীন- বর্তমানে হাজার কোটি টাকার মালিকরা স্থানীয় জাতীয়সহ সকল নির্বাচনে রাজনৈতিক মনোনয়ন লাভ করছে। এভাবেই তৃণমূল পর্যন্ত একটি ‘গডফাদার কালচার’ গড়ে উঠেছে রাজনীতিতে। নির্বাচন বাণিজ্যে এই যে বিশাল বিনিয়োগ, সেটি পেশাদার রাজনৈতিক নেতা-কর্মীকে মূলধারার রাজনীতি থেকে অপসৃত করে দিচ্ছে। তারা হয়ে উঠছেন দয়া-দাক্ষিণ্যের পাত্র।

তিন. বিশ্বজুড়ে সরকারে থাকার কতগুলি সাধারন নৈতিকতা আছে। এই নৈতিকতার স্খলন অনেক রাষ্ট্রে সরকারের পতন ডেকে আনে। এর অন্যতম হচ্ছে, লাভজনক কোন প্রক্রিয়ায় নীতি-নির্ধারকরা যুক্ত হতে পারবেন না। অর্থাৎ সরকার বা সাংবিধানিক পদের অধিকারী কোন ব্যক্তি তার পদকে ব্যবহার করে কোন লাভজনক প্রক্রিয়ায় যুক্ত হতে পারবেন না। তাহলে তার ‘শপথ’ ভঙ্গ হবে এবং তিনি ঐ পদে থাকার নৈতিক যোগ্যতা হারাবেন। গণতান্ত্রিক বিধি-ব্যবস্থায় পরিচালিত সরকারগুলি এটি মেনে চলেন।

কিন্তু বাংলাদেশে এর ব্যতিক্রম আকছার ঘটছে। ভরিষ্যতেও আরো বেশীভাবে যে ঘটবে   না, এরকম কোন গ্যারান্টি পাওয়া যায় না। এই অনৈতিকতাকে শাসক দলগুলি ‘স্বাভাবিক’ বলে মেনেও নিয়েছে। এ নিয়ে কখনও কোন তাড়া বা চাপ তারা অনুভব করেনি। দেশের দলদাস, বিবেকবর্জিত সুশীল সমাজ এ বিষয়ে তেমন করে উচ্চকিতও নয়। তবে ক্ষীণ হলেও বিবেকবান অনেকে এখন বলতে শুরু করেছেন, এটি বন্ধ হতে হবে। কারন দেশ থেকে অবাধে অর্থপাচার, রিজার্ভ চুরিসহ আর্থিক খাতে ভয়ঙ্কর দুর্নীতির সাথে কারা জড়িত, সেটি এখন ওপেন সিক্রেট।

সংসদ সদস্য হিসেবে যে সকল ব্যবসায়ী নির্বাচিত হচ্ছেন, তাদের যেখানে ব্যবসায়িক স্বার্থ রয়েছে, সেইখানে যেন নীতি-আইন প্রণয়নের দায়িত্ব তাদের না দেয়া হয়-এটি অন্তত: নিশ্চিত করতে হবে। নইলে রাজনীতির ‘আনুষ্ঠানিক মৃত্যু’ আর অনানুষ্ঠানিক থাকবে না। এ বিষয়ে রাজনীতিবিদদের মধ্যে সমঝোতা গড়ে ওঠা দরকার। যেমনটি রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদ আক্ষেপ করে বলেছিলেন, ‘‘রাজনীতি এখন আর রাজনীতিবিদদের হাতে নেই’’।

দেশের চলমান ঘটনাবলী চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখাচ্ছে, জাতীয় স্বার্থ দেখার মত কেউ নেই। সাধারন মানুষের স্বার্থ তো দুর কী বাত। রাজনীতি বাণিজ্যিকীকরনের প্রত্যক্ষ ফল হচ্ছে, ভোটের আগে জোট গঠন করা। উদ্দেশ্য জনগনের অধিকার রক্ষা নয়, ক্ষমতার উচ্ছিষ্ট ভোগ করা। এক সাক্ষাতকারে এরকমটিই মন্তব্য করেছেন ড. সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী- “নির্বাচনের এই খেলায় জনগন যে হারবে সেটি নিশ্চিত। আগেও হেরেছে তারা, এবারেও হারবে। কারন তাদের নিজস্ব দল নেই। যারা জিতবে তারা টাকাওয়ালা এবং বড় দলের লোক। নির্বাচনের পরের দিন থেকেই দেখা যাবে, তারা জনগনের প্রতিপক্ষ হিসেবেই আবির্ভূত হয়েছেন”।