Home » প্রচ্ছদ কথা » সিইসিও বিব্রত ও মর্মাহত হতে পারেন!

সিইসিও বিব্রত ও মর্মাহত হতে পারেন!

আমীর খসরু ::

সংসদ নির্বাচনে ঢাকা-১ আসনের বিএনপি প্রার্থী খোন্দকার আবু আশফাককে পুলিশ বুধবার আটক করে ‘ভিন্ন এক পদ্ধতিতে’। দোহার থানার ওসির সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া ভাষ্য মোতাবেক – প্রার্থী  আবু  আশফাকের নিরাপত্তার জন্যই তাকে আটক করে পুলিশ কাস্টোডিতে নেয়া হয়।

১৯৭০-এর প্রথমদিকের ঘটনা। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের চালানো ভিয়েতনাম যুদ্ধের সময়কালে একটি ঘটনা বোধ করি অনেকেরই মনে নেই অথবা জানা নেই । সেই সময়ে ভিয়েতনামে ঘটে যাওয়া দুনিয়া কাঁপানো একটি ঘটনার কথা মনে পড়ে গেল। তৎকালীন সময়ে আন্তর্জাতিকভাবে খ্যাতিমান সাংবাদিক পিটার আর্নেট তখন এ্যসোসিয়েটেড প্রেস বা এপির ভিয়েতনাম বিষয়ক সংবাদদাতা। পিটার আর্নেটের ওই সময়কালের একটি প্রতিবেদন ছিল এই রকম- যুক্তরাষ্ট্রের সেনাবাহিনী তখন ভিয়েতনামের একটি গ্রাম জ্বালিয়ে-পুড়িয়ে ধ্বংস করে দেয়। ঘটনাটির খবর ঊর্ধ্বতন পর্যায়ে পৌছালে দায়িত্বপ্রাপ্ত যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক কর্মকর্তাকে জিজ্ঞাসা করা হয়, কেন গ্রামটি ধ্বংস করো হলো? জবাবে সেই ঊর্ধ্বতন সামরিক কর্মকর্তা জবাব দিয়েছিলেন- “We had to destroy the village in order to save it.”  অর্থাৎ ‘গ্রামটিকে রক্ষার  জন্যই ওই গ্রামটিকে আমাদের ধ্বংস করে দিতে হয়েছে।’ সাম্প্রতিক যেসব ঘটনাবলী ঘটছে তাতে কর্মকর্তাদের ভাষ্য শুনে ওই ঘটনা বারংবার মনে পড়ে যাওয়া খুবই স্বাভাবিক।

নির্বাচনী প্রচারণা শুরুর প্রথম থেকেই দেশের বিভিন্নস্থানে প্রতিপক্ষের উপরে হামলা, ভাংচুর, বাড়িঘর জ্বালিয়ে দেয়াসহ নানা সহিংস ঘটনা ঘটে চলেছে। ঠাকুরগাঁওয়ে বিএনপি মহাসচিবের গাড়িবহরে হামলা ও ভাংচুর, নোয়াখালীতে যুবলীগ নেতা নিহত হওয়াসহ সংবাদ মাধ্যমের হিসাব মোতাবেক আনুষ্ঠানিক প্রচার-প্রচারণা শুরুর প্রথমদিনেই কমপক্ষে ১৮টি স্থানে সহিংস রক্তাক্ত সংঘর্ষের ঘটনাবলী ঘটেছে। বুধবার সংঘর্ষের ঘটনাবলী ঘটেছে ১৭ জেলায়। এতে হামলা-ভাংচুর, সংঘর্ষে আহত হয়েছেন ১৩২ জন। বৃহস্পতিবারও ২৩ জেলার বিভিন্নস্থানে হামলা, সংঘর্ষ, বাধা দেয়ার ঘটনা ঘটেছে। অর্থাৎ দেশের বিশাল এক এলাকা এখন নির্বাচনী সহিংসতার কবলে।  আর এটি করা হচ্ছে, মূলত ক্ষমতাসীন দল ও  আইন শৃংখলা রক্ষায় দায়িত্বপ্রাপ্তদের মাধ্যমে।

শুক্রবার জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রধান ও গণফোরামের সভাপতি ড. কামাল হোসেনের গাড়িবহরেও হামলা হয়েছে। মিরপুরে শহীদ বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে বের হওয়ার সময় এ ঘটনা ঘটে। এসব ঘটনার মধ্য দিয়ে নির্বাচনী মাঠের ‘স্থিতিস্থাবকতা বা ভারসাম্য’ বিনষ্ট করা হচ্ছে – যার ফল স্বল্প থেকে দীর্ঘমেয়াদে ভয়াবহভাবে নেতিবাচক হতে বাধ্য। একটি বিষয় মনে রাখতে হবে, সব ঘটনার খবর সংবাদ মাধ্যমে আসে না, আসতে দেয়াও হয় না। কাজেই পরিস্থিতির ভয়াবহতা যে কতো বিশাল এবং ভীতিকর তার সামান্য হলেও কিছুটা আচ করা যাচ্ছে।

বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যম খবর দিচ্ছে-বুধবার আর বৃহস্পতিবার- দুইদিনেই বিএনপির প্রার্থীসহ দুইশতাধিক নেতাকর্মীকে আটক করা হয়েছে। ১৩ ডিসেম্বর প্রথম আলো স্পষ্ট করেই বলেছে, বিএনপিকে চাপে রাখতেই গ্রেফতার, হামলা, বাধার ঘটনা ঘটছে। আসলে কোন দল বা জোট প্রার্থীকে অর্থাৎ আওয়ামী লীগ না বিএনপি প্রার্থীদের বাধা দেয়া হচ্ছে সেটি বড় ও মুখ্য বিষয় নয়। মূল বিষয়টি হচ্ছে, নির্বাচনের জন্য সমান সুযোগ প্রাপ্তির যে আকাঙ্খাটুকু জনমনে ছিল তা যে কোথাও বিদ্যমান নেই; বরং এর উল্টো পরিস্থিতি বিরাজমান – তা চোখে আঙুল দিয়ে আর দেখানোর প্রয়োজন পড়ে না।

তবে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ন বিষয় হচ্ছে, এতোসব ঘটনা ঘটে যাচ্ছে, অথচ নির্বাচন কমিশনের কোনো কার্যকর ভূমিকাই দৃশ্যমান নয়। অবশ্য নির্বাচন কমিশনের ভূমিকা যে এরকমটি হবে, সাধারণ মানুষ ইতোপূর্বেই তার আলামত  টের পাচ্ছিলেন বা আচ করতে পারছিলেন। এ কারণে আমজনতা নির্বাচন কমিশনের এই ভূমিকায় অবাক তো হয়ইনি, বিস্ময়ের কোনো বিষয়ও নয় ওই ভূমিকা। এটা সবারই ধারণা ছিল যে, এমনটাই হবে। সাধারণ মানুষ এমনটাও ধারণা করেছিল যে, প্রশাসনের বিভিন্ন বিভাগের সম্ভাব্য ভূমিকা কি হতে পারে? তবে কিছুটা কৌতূহল জেগেছে এই কারণে যে, প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) এত্তোসব সহিংস ঘটনাবলীতে শুধুমাত্র ‘বিব্রত ও মর্মাহত হয়েছেন’। এর মধ্যদিয়ে একটি বিষয় প্রমাণিত হলো যে, সিইসিও বিব্রত ও মর্মাহতবোধ করতে পারেন। এটুকু এখনো অবশিষ্ট আছে। এ জন্য তাকে ধন্যবাদ জানাতেই হয়।

তবে সিইসি’’র এমন বক্তব্য তার এবং পুরো নির্বাচন কমিশনের অসহায়ত্ব আর ব্যর্থতাই প্রমান করে। এমন অসহায়ত্ব থাকলে জনমনে আস্থাহীনতা ও ভীতির সৃষ্টি হয়। ওই বক্তব্য সম্পর্কে সাবেক নির্বাচন কমিশনার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) ড. এম সাখাওয়াত হোসেনের মন্তব্য হচ্ছে- ‘‘নির্বচন কমিশন একটি এ্যকশন ওরিয়েন্টেড প্রতিষ্ঠান। কোনো ঘটনায় তার বিব্রত হওয়া বা মর্মাহত হওয়ার কোনো সুযোগ নেই। কমিশন চাইলে যেকোনো সিদ্ধান্তই বাস্তবায়ন করতে পারে।”

কিন্তু সাথে সাথে এ বিষয়টিও যেকোনো কান্ডজ্ঞানসম্পন্ন মানুষের মনে প্রশ্ন জাগা স্বাভাবিক যে, তফসিল ঘোষণার সাথে সাথে ক্ষমতাসীন দলের অর্ন্তদ্বন্দ্বে ঢাকার আদাবরে ২ জনের নিহত হওয়াসহ ওই সময় যেসব ঘটনাবলী ঘটেছে তাতে নির্বাচন কমিশন কঠোর হলে এখনকার ঘটনাবলী হয়তো এড়ানো যেতো। সিইসি ওই সময় এও বলেছিলেন, পুলিশ প্রশাসন অন্যায্য কিছু করছে না।

এদিকে, প্রচার-প্রচারণার শুরুতেই এমন সহিংস রক্তারক্তির ঘটনাবলীর পরেও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জানিয়েছেন, নির্বাচনের সময়ে প্রার্থীরা বৈধ অস্ত্র বহন করতে পারবেন। কিন্তু এক্ষেত্রে নির্বাচন কমিশন কেন চুপচাপ? বিগত নির্বাচনগুলোতে বৈধ অস্ত্রও সংশ্লিষ্ট থানায় বা  আইনী হেফাজতে রাখার বিধান ছিল। এবারই তার ব্যতিক্রম হতে যাচ্ছে।

যে ধারায় ও পর্যায়ে হামলা, গ্রেফতার, সহিংসতা চলছে এবং চালানো হচ্ছে এবং প্রশাসনের যে ভূমিকা তাতে সাধারণ মানুষের মন ও মনোজগতে বিদ্যমান উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা ও শংকা এতোটুকুও তো কমেইনি, বরং দিনে দিনে বাড়ছেই। এ কারণেই সর্বত্র একটি প্রশ্নই এখন উচ্চারিত হচ্ছে- ‘আমরা আমাদের ভোটটি শেষ পর্যন্ত ‘সহি-সালামতে’ দিতে পারবো তো?’ এই ভীতি, উদ্বেগ, উৎকণ্ঠা, শংকা দূর করতে না পারার ব্যর্থতা পুরোটাই নির্বাচন কমিশনসহ সংশ্লিষ্টদের নিতে হবে। এ বিষয়টিও মনে রাখতে হবে যে, সিইসি যতোই বিব্রত ও মর্মাহত হবেন, জনমনে একটি অবাধ, সুষ্ঠু, গ্রহণযোগ্য নির্বাচন অনুষ্ঠানের ব্যাপারে সংশয় -সন্দেহ ততোই বাড়তেই থাকবে। আসলে পুরো পরিস্থিতি এবং নির্বাচন কমিশনসহ সংশ্লিষ্টদের ভূমিকা এবং কর্মকান্ডে সাধারণ ভোটাররাই সত্যিকার অর্থে বিব্রত, মর্মাহত।