Home » অডিও » দলীয় বিবেচনায় ‘বসন্তের কোকিল’ও নির্বাচনে পর্যবেক্ষক হয়ে যায় : ড. বদিউল আলম মজুমদার

দলীয় বিবেচনায় ‘বসন্তের কোকিল’ও নির্বাচনে পর্যবেক্ষক হয়ে যায় : ড. বদিউল আলম মজুমদার

নির্ধারিত সময়ে ভিসা না দেয়াসহ ভিসা সংক্রান্ত জটিলতা এবং অন্যান্য কারণে এই একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিদেশী পর্যবেক্ষকদের সংখ্যা ২০০৮ ও ২০০১ সালের নির্বাচনের চাইতে অনেক কম হবে। ২০০৮ সালে বিদেশ থেকে আগত এবং বিদেশী সংস্থার ৫৯৩ জন; ২০০১ সালে ২২৫ জন বিদেশী পর্যবেক্ষক নির্বাচন পর্যবেক্ষন করেছিলেন। এই বছরে এ সংখ্যা শতাধিক হতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে। দেশী পর্যবেক্ষকদের সংখ্যাও একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অনেক কম হবে। এনজিওব্যুরোর প্রক্রিয়াগত ধীরগতি এবং নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে কম সংখ্যক দেশী পর্যবেক্ষককে অনুমতি দেয়ায় এ নির্বাচনে ২৫ হাজার ৯২০ জন দেশী পর্যবেক্ষক অনুমতি পেয়েছেন। সাড়ে আট হাজার পর্যবেক্ষনে ইচ্ছুককে অনুমতি দেয়া হয়নি। অনুমতি দেয়া হয়নি কিছু কিছু দেশী সংগঠনকেও। ২৫ হাজারের মধ্যে দেশী পর্যবেক্ষকদের সংগঠন ইলেকশন ওয়ার্কিং গ্রুপের ১৫ হাজার জনকে অনুমতি দেয়া হয়েছে। ২০০১ সালে দেশী পর্যবেক্ষকদের সংখ্যা ছিল ২ লাখ ১৮ হাজার এবং ২০০৮ সালে ছিল ১ লাখ ৫৯ হাজার। অর্থাৎ নির্বাচনে কম সংখ্যায় বিদেশী ও দেশী পর্যবেক্ষক নির্বাচন পর্যবেক্ষণ করবেন। ইতোমধ্যে দীর্ঘদিনের নির্বাচন পর্যবেক্ষককে সংস্থা ব্রতীর প্রধান নির্বাহী শারমিন মুরশিদ বলেছেন, এবার নির্বাচন পর্যবেক্ষকদের তালিকাভুক্ত করতে গিয়ে নির্বাচন কমিশন অভিজ্ঞ বেশ কছু পর্যবেক্ষকদের বাদ দিয়েছে। অন্যদিকে বেশ কিছু নির্বাচন পর্যবেক্ষক সংস্থা সংযুক্ত হয়েছে যাদেরকে সত্যি বলতে আমরা চিনি না।  দেশী ও বিদেশী পর্যবেক্ষকদের সংখ্যা কম হলে অবাধ, সুষ্ঠু ও অর্থবহ নির্বাচন অনুষ্ঠানের উপরে এর কোনো প্রভাব পড়বে কিনাসহ সে সব বিষয়ে আলোচনা করেছেন নাগরিক সংগঠন সুশাসনের জন্য নাগরিক বা সুজন-এর প্রধান ড. বদিউল আলম মজুমদার। সাক্ষাতকারটি নিয়েছেন আমীর খসরু।