Home » Author Archives: আমাদের বুধবার (page 11)

Author Archives: আমাদের বুধবার

উদ্বাস্তু :: ইউরোপে উগ্র ডানপন্থার উত্থান

অ্যানেলা সাফদার, আল জাজিরা

অনুবাদ : আসিফ হাসান

Last-2প্যারিসে অন্তত ১২৯টি প্রাণ ধ্বংসকারী হামলার দিন কয়েকের মধ্যেই ইউরোপের বিপুলসংখ্যক রাজনীতিবিদ এটাকে মুসলিমসংখ্যাগরিষ্ঠ দেশগুলোর যুদ্ধ ও নির্যাতন থেকে পালিয়ে আসা মানুষজনকে আর না গ্রহণ করার ব্যাপারে তাদের বক্তব্য আরো সোচ্চার করার সুযোগ হিসেবে কাজে লাগাতে শুরু করেছেন। প্যারিসে হামলাকারীদের একজন সিরীয় পাসপোর্ট বহন করছিল, যদিও হামলার সাথে তার সম্পৃক্ততা থাকাটা প্রমাণ হয়নি, এমন প্রতিবেদন প্রকাশের পর তাদের জোরালো হুঁশিয়ারি উদ্বাস্তুদের দুর্দশার আরো অবনতি ঘটবে বলেই আশঙ্কা বেড়েছে। বিস্তারিত »

তাজউদ্দীন আহমদের রাজনৈতিক জীবন (পর্ব – ২)

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী

Last-3রাজনৈতিক কারণে ব্যস্ততার দরুন বিএ অনার্স পরীক্ষা দিতে পারেন নি; শিক্ষকতার কাজ নিয়েছেন শ্রীপুর স্কুলে। সে স্কুলের অবস্থা খুবই খুবই সঙ্গীন। বেতন একশ’, তাও নিয়মিত পাবেন কিনা সন্দেহ। প্রধান শিক্ষক তহবিলের নয়ছয় করছেন বলে অভিযোগ। এরই মধ্যে তাজউদ্দীন চেষ্টা করছেন স্কুলটিকে দাঁড় করাতে। নিয়মিত শিক্ষা দানের পাশাপাশি খেলাধূলা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, গ্রান্ট ইন এইডের জন্য দরখাস্ত, সব চলছে। উদ্যোগটা তাঁরই। কিন্তু একটা সময় এলো যখন তাঁকে বিদায় নিতে হচ্ছে, বিশ্ববিদ্যালয়ে ফিরে গিয়ে পরীক্ষার জন্য প্রস্তুতি গ্রহণের প্রয়োজনে। তাঁর কন্যা শারমিন আহমদ তাজউদ্দীন আহমদ : নেতা ও পিতা নামে যে বইটি লিখেছেন তা থেকে আভাস পাওয়া যায় যে, তাঁর এই ছাত্রজীবনে প্রত্যাবর্তনের সঙ্গে রাজনীতির কাজকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার ইচ্ছা জড়িত ছিল। প্রাদেশিক ব্যবস্থাপক পরিষদের নির্বাচন আসছে, তাতে তিনি প্রার্থী হবেন’ স্নাতক ডিগ্রি না থাকলে পাছে প্রার্থিতা অগ্রাহ্য হয় এই শঙ্কাটিই ছিল তাঁর জন্য মুখ্য বিবেচনা। বিস্তারিত »

চীন :: পরাশক্তির বিবর্তন (পর্ব – ৩৪)

যুক্তরাষ্ট্রের সাথে সম্পর্কের প্রেক্ষাপট

আনু মুহাম্মদ

Last-4মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাথে চীনের যোগাযোগ এবং রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক সম্পর্ক স্থাপনের ক্ষেত্র তৈরি হয় ৬০ দশকের শেষ দিকে। ৬০ দশকের শুরুতে সীমান্ত বিরোধ নিয়ে চীন ভারতের সাথে যুদ্ধে জড়িয়ে পড়ে। বিরোধপূর্ণ অঞ্চল দখল করেও চীন নিজে থেকে যুদ্ধবিরতি ঘোষণা করে। কিন্তু বিরোধের সমাপ্তি হয়নি। সোভিয়েত ইউনিয়নের সাথে মতাদর্শিক বিরোধের সাথে সীমান্ত বিরোধ যুক্ত হয় ৬০ দশকের শেষে, এই বিরোধও একপর্যায়ে যুদ্ধের পরিস্থিতি তৈরি করে। সীমান্তের কোথাও কোথাও উত্তেজনা দেখা দেয়, দুই দেশেরই সৈন্য তৎপরতা দেখা যায়। এই সময়ে এশিয়ার চীন সংলগ্ন অঞ্চলে যুক্তরাষ্ট্র তার প্রভাব বলয় বৃদ্ধিতে মরিয়া। বিস্তারিত »

প্রথম স্বাধীনতা যুদ্ধ ১৮৫৭ :: পুনঃঅনুসন্ধান (দ্বিতীয় পর্ব)

হায়দার আকবর খান রনো

Last-5শোনা যায়, এই বিদ্রোহের সূচনা হয়েছিল এক ধরনের ধর্মীয় অনুভূতি থেকে। ইংরেজ শাসকরা এনফিল্ড রাইফেল নামে এক ধরনের রাইফেলের প্রচলন করে, যার কার্তুজ দাত দিয়ে ছিড়ে বন্দুকে পুরতে হতো। রটনা হয়েছিল যে, ঐ কার্তুজে শুকর ও গরুর চর্বি মেশানো আছে। এতে হিন্দু ও মুসলমান উভয় সম্পদায়ের সিপাহীরা ক্ষীপ্ত হয়ে ওঠেন। এবং এর থেকেই বিদ্রোহের সূত্রপাত। বিদ্রোহের তাৎক্ষণিক সূত্রপাতের জন্য হয়তো এটাকে কারণ হিসেবে চিহিৃত করা যেতে পারে। কিন্তু বিদ্রোহের মূল কারণ ছিল আরও গভীরে। আগেই বলেছি সিপাহীদের মধ্যে স্বাধীনতা স্পৃহা ও বৃটিশ বিরোধী ঘৃণা কাজ করছিল। সিপাহী বিদ্রোহ সর্বভারতীয় জাতীয় চরিত্র লাভ করেছিল। সিপাহী বিদ্রোহের গুরুত্বপূর্ণ ঘটনাগুলি উল্লেখ করা যাক।

১১ মে ১৮৫৭ মিরাট সেনানিবাসের ভারতীয় সৈন্যরা বৃটিশ অফিসারদের হত্যা করে দিল্লীর দিকে রওনা হন। দিল্লী গ্যারিসনের ভারতীয় সৈন্যরা তাদের সঙ্গে যোগদান করেন। দিল্লী বিদ্রোহীদের দখলে চলে আসে। বিস্তারিত »

জেমস বন্ড-এর সেকাল-একাল (পর্ব – ৩)

দর্শকের পছন্দের আর অপছন্দের ছবিগুলো

ফ্লোরা সরকার

Last-6এই পর্যন্ত জেমস্ বন্ডের প্রায় চব্বিশটি সিরিজের চলচ্চিত্রয়ান হয়েছে। ১৯৬২ সালে ‘ড. নো’ দিয়ে যার যাত্রা শুরু হয়েছিলো ২০১৫ তে এসে ‘স্পেকটা’র দিয়ে আপাত শেষ হয়েছে। সিরিজগুলো নিয়ে বেশ কৌতুহলোদ্দীপক প্রশ্ন জমা হয়েছে, যেমন দর্শক কাকে বেশি পছন্দ করে, টিমোথি নাকি শেনকে? বন্ড সিরিজের কোন শুটিং সেট দর্শকদের বেশি পছন্দের, গ্রীষ্মমণ্ডলীয় স্বর্গীয় পরিবেশ, নাকি বরফাচ্ছাদিত রিসোর্ট? দর্শকের কাছে কে বেশি পছন্দের, একজন রাজনৈতিক অনুসারি যে কিনা সেই আদর্শ বাস্তবায়নের জন্যে বিভিন্ন অন্যায় বা সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড করে বেড়ায়, নাকি ছবির খলনায়ককে? ০০৭ সিরিজটি ধীরে ধীরে কিভাবে এতো জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে তার অনুসন্ধান করতে গেলে এসব প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হয়। ইয়াহু মুভিজের বেন ফোক সম্প্রতি তেইশটি (সর্বশেষ ছবিটি বাদ দিয়ে) বন্ড সিরিজের একটা তালিকা করে, নিকৃষ্ট থেকে উৎকৃষ্ট ছবির উপর একটা চমৎকার আলোচনা করেছেন। আমরা আজ সেই আলোচনার উপর দৃষ্টিপাত করবো। বিস্তারিত »

ঋণের সুদেই দুটি পদ্মা সেতু নির্মাণ সম্ভব

আমাদের বুধবার প্রতিবেদন

Dis-4মাথাপিছু গড় আয় বাড়ছে বা উন্নতি হচ্ছে সত্য, কিন্তু তার সঙ্গে বাংলাদেশের মানুষের মাথাপিছু ঋণের পরিমাণও বাড়ছে। মাথাপিছু আয় বাড়ার পাশাপাশি যদি মাথাপিছু ঋণের পরিমাণও বাড়তে থাকে, তবে তা সামগ্রিক অর্থনীতির জন্য ইতিবাচক হয় না। সম্প্রতি প্রকাশিত খবরের মাধ্যমে জানা গেল, বর্তমানে মাথাপিছু বৈদেশিক ঋণের পরিমাণ ১৩ হাজার ১৬০ টাকা। অন্যদিকে মাথাপিছু সরকারি ঋণের পরিমাণ ২৬ হাজার ১৫২ টাকা। সবমিলে এইমাত্র যে শিশুটি জন্ম নিল সেও ৩৯ হাজার ৩১২ টাকা ঋণের বোঝা নিয়ে বাংলাদেশের আরেকজন হলো। নিশ্চিতভাবেই এ পরিস্থিতি সুখকর নয়।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য যে, ২০১৪১৫ অর্থবছরের ৩০ জুন পর্যন্ত বাংলাদেশের বৈদেশিক ঋণের (পাবলিক সেক্টরে) স্থিতির পরিমাণ ছিল ২৫ হাজার ৯০৮ মিলিয়ন মার্কিন ডলার; যা বাংলাদেশি মুদ্রায় ২ লাখ ৭ হাজার ২৬৫ কোটি টাকা। বিস্তারিত »

প্যারিস হামলা :: অসহায় শরণার্থীরাই ক্ষতিগ্রস্ত

আমীর খসরু

Dis-3দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধোত্তর সময়ে চলতি বছরের মতো এতো বিশাল সংখ্যায় মানুষ আগে আর কখনোই শরণার্থী হয়নি, ঘটেনি উদ্বাস্তু হওয়ার ঘটনা। একযোগে এতো দেশে ছোট কিংবা বড় যুদ্ধের ঘটনাই আর এক সাথে কোনোদিন দেখা যায়নি। জর্ডানের বাদশা দ্বিতীয় আবদুল্লাহ তো বলেই দিয়েছেন, মানব জাতি তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ প্রত্যক্ষ করছে। এই যুদ্ধ কেন হচ্ছে তার ব্যাখ্যা অবশ্য এর সাথে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে জড়িতরা তাদের নিজ নিজ অবস্থান থেকে দিচ্ছেন। কেউ বলছেন, তারা যুদ্ধ আর আক্রমণ করছে কথিত ‘আদর্শ’ প্রতিষ্ঠার জন্য। আবার ওই কথিত আদর্শের বিপরীতে অন্যরা যুদ্ধে লিপ্ত। তবে সবচেয়ে বড় বাস্তব ঘটনাটি যা ঘটছে তাহচ্ছে তেল ও অস্ত্র বিক্রির বিশাল বাজার সৃষ্টি হয়েছে। তেলের জন্য যুদ্ধ সেই চল্লিশের দশক থেকে এখন পর্যন্ত পুরোদমে চলছে, বরং বেশি মাত্রায়ই। এ্যন্থনী স্যামসন তার ‘দ্য সেভেন সিস্টারস : দ্য গ্রেট অয়েল কোম্পানিজ এ্যন্ড দ্য ওয়ার্ড দে শেফড’ গ্রন্থে (প্রথম প্রকাশ ১৯৭৫ সাল) তেল কোম্পানী এবং রাষ্ট্রসমূহ কিভাবে তেলের জন্য লড়াই বাধিয়ে দেয় আর যুদ্ধ সৃষ্টি করে, নানা কৌশলের আশ্রয় নেয় তার বিস্তারিত বিবরণ দিয়েছেন । বিস্তারিত »