Home » শিল্প-সংস্কৃতি (page 9)

শিল্প-সংস্কৃতি

মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে ভারতীয় চলচ্চিত্রের বিকৃত বয়ান (শেষ পর্ব)

ফ্লোরা সরকার

last 7সাধারণত যার মাথা তারই ব্যাথা হবার কথা, কিন্তু বলিউডের ইয়াশ রাজ ফিল্মস এর ব্যানারে নির্মিত ও আলী আব্বাস জাফরের চিত্রনাট্য ও পরিচালিত ছবি ‘গুন্ডে’র ক্ষেত্রে ঠিক উল্টো ঘটনা ঘটতে দেখা গেলো। ছবিটি নির্মিত হলো ভারতে আর তার প্রতিক্রিয়া ঘটলো বাংলাদেশে। ইতিহাস যখন শুধুমাত্র মিথ্যে দিয়ে নয়, বিকৃত করে চিত্রিত বা রচিত হয় তখনই এমন ঘটনা ঘটে থাকে। ভারতের নির্মিত এই ছবি তাই বাংলাদেশের মাথা ব্যাথার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। সব থেকে যা গুরুত্বপূর্ণ তা হলো ছবির যেভাবে সমাপ্তি টানা হয়েছে তা শুরুর থেকেও যেনো আরো প্রশ্নবোধকে রূপান্তরিত হয়েছে। সেখানে যাবার আগে আমরা ছবির শুরু থেকেই আলোচনায় যেতে পারি।

ছবিটি শুরু হয় ভয়েসওভার বা ধারাভাষ্যের মাধ্যমে, ছবির পর্দায় ভেসে ওঠে – ’১৬ ডিসেম্বর, ১৯৭১’, ধারাভাষ্যের পাশাপাশি আমরা কাহিনী দেখতে থাকি। বিস্তারিত »

সংস্কৃতি :: বিদেশি আগ্রাসন আর নির্ভরশীলতার বছর

ফ্লোরা সরকার

last 6ক্ষমতা, আধিপত্য এবং কর্তৃত্ব বজায় রাখার অপর নাম বিশ্বায়ন। যে বিশ্বায়ন বা উন্নত পুঁজির হাত ধরে গুটি গুটি পায়ে এগিয়ে আসে সাংস্কৃতিক আগ্রাসন। নব্বইয়ের দশকে ‘আকাশ সংস্কৃতি’ নামে নতুন যে সংস্কৃতির সাথে আমাদের পরিচিতি ঘটে, তা প্রকৃতপক্ষে ছিলো পণ্যায়ন তথা সাংস্কৃতিক পণ্যায়নের এক বিস্ফোরণ। যে বিস্ফোরণ আনবিক বা পরামানবিক বিস্ফোরণের চাইতেও শক্তিশালী। কেননা, সাংস্কৃতিক পণ্যায়নের এই বোমার কোনো বাহ্যিক আকৃতি নেই। খালি চোখে তা দেখা যায় না, তার গতিবিধি চলে নিরবে, নিভৃতে। মুনাফা অর্জন এবং দেশীয় সংস্কৃতিকে আত্মসাৎ করাই এর মূল লক্ষ্য। ভারতের প্রখ্যাত ঐতিহাসিক এবং শিক্ষক কে.এন. পানিক্কর তাই যথার্থই বলেছেন ‘তৃতীয় বিশ্বের মানুষকে তার সাংস্কৃতিক ভিত্তিভূমি থেকে ছিন্নমূল করাটাই উন্নত পুঁজির বিশ্বজনীন চরিত্রের বৈশিষ্ট্য ’। ছিন্নমূল করার এই প্রক্রিয়া যে নতুন, তা বলা যাবেনা। কিন্তু অতীতের সাংস্কৃতিক পণ্যায়নের গতি বর্তমানের চেয়ে ছিলো কিছুটা স্লথ এবং তুলনামূলকভাবে কম প্রভাববিস্তারী। বিস্তারিত »

উত্তাল ষাটের দশক (অষ্টাদশ পর্ব)

তীব্র কৃষক আন্দোলন

হায়দার আকবর খান রনো

last-4ঊনসত্তরের গণঅভ্যুত্থানের সময় শ্রমিক আন্দোলনের পাশাপাশি কৃষক আন্দোলনও তীব্র হয়ে উঠেছিল। ফিরে আসি ১৯৬৯ সালের মার্চ মাসে। ফেব্রুয়ারির শেষ সপ্তাহে শ্রমিক অভ্যুত্থান। আর মার্চের প্রথম ও দ্বিতীয় সপ্তাহে সারা দেশব্যাপী কৃষক বিদ্রোহ। এই কৃষক বিদ্রোহ ১৯৪৬এর তেভাগা আন্দোলন অথবা নানকার বিদ্রোহ, নাচোলের কৃষক বিদ্রোহ থেকে ভিন্ন ধর্মী ছিল। মওলানা ভাসানীর উত্তেজনাময় বক্তৃতা কৃষককে জাগিয়ে তুলেছিল। প্রধানত তহসিলদারদের অত্যাচারের বিরুদ্ধে প্রায় সকল জেলাতেই কৃষকরা বিদ্রোহ করেছিল। গ্রামের পর গ্রামে তহসিল অফিস অগ্নিদগ্ধ হতে থাকে। তখন দেশে একটাই কৃষক সংগঠন ছিল ভাসানীর নেতৃত্বাধীন কৃষক সমিতি। এখন যেমনর হরেক রকমের কৃষক সংগঠন আছে (যদিও অধিকাংশেরই কোন সাংগঠনিক ভিত্তি নেই), তখন তেমনটি ছিল না। বিস্তারিত »

মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে ভারতীয় চলচ্চিত্রের বিকৃত বয়ান (প্রথম পর্ব)

ফ্লোরা সরকার

last 6যুদ্ধভিত্তিক যেকোনো চলচ্চিত্র নির্মাণের অর্থ তার ঐতিহাসিক অনিবার্যতাকে সঙ্গে রাখা। যে কোনো যুদ্ধেরই ঐতিহাসিক প্রেক্ষাপট থাকে। তেমনি আমাদের মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক নির্মিত চলচ্চিত্র যখন দেখি তখন তার সঠিক ইতিহাসের প্রতিও আমাদের দৃষ্টি নিবদ্ধ থাকে। আমাদের দেশ ছাড়াও ভারতেও আমাদের মুক্তিযুদ্ধকে কেন্দ্র করে ছবি নির্মিত হয়েছে। এই ধরণের ছবি নির্মাণের জন্যে আমরা অবশ্যই আনন্দিত। স্বাগত জানাই। কিন্তু একই সঙ্গে যখন এসব ছবির কাহিনীতে আমাদের মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস খুঁজে না পাই তখন স্বাভাবিক ভাবেই এসব ছবি প্রশ্নবিদ্ধ হয়ে উঠে। সাম্প্রতিক সময়ে এই রকম দুটি ছবি আমরা দেখতে পাই। যেখানে সঠিক ভাবে বাংলাদেশ বা তার মুক্তিযুদ্ধকে পাওয়া যায় না। ভিন্ন এক বাংলাদেশ, ভিন্ন এক মুক্তিযুদ্ধ দেখা যায়। যখন কোনো ছবি এভাবে নির্মিত হয় তখন বাংলাদেশের চোখ দিয়ে নয়, ভারতের চোখ দিয়েই সেসব ছবি নির্মিত হতে দেখি। আমাদের এবারের চলচ্চিত্র বিষয়ক আলোচনায়, এমন দুটি ছবি নিয়ে দুই পর্বে আলোচনা করা হবে। প্রথম পর্বে “ চিলড্রেন অফ ওয়ার” এবং দ্বিতীয় পর্বে “ গুন্ডে ” ছবি নিয়ে আলোচনা করবো। বিস্তারিত »

স্বল্পদৈর্ঘ্য ও মুক্ত চলচ্চিত্র উৎসব :: কয়েকটি ভালো ছবির গল্প

ফ্লোরা সরকার

last 6আমাদের সব থেকে বড় যে সমস্য তা হলো, আমরা কোনো কাজ শুরু করতে পারি সমাপ্তি টানতে পারিনা। শেষ করতে পারলেও তড়িঘড়ি করে তা করা হয়। এবারের চলচ্চিত্র উৎসবেও ঠিক তাই হতে দেখা গেলো। উৎসবের প্রথম দিনগুলোতে সিডিউল মেনে ছবি দেখানো হলেও, শেষের দুদিন তা আর দেখা গেলোনা। গত ১১ ডিসেম্বর উৎসবের সমাপ্তি ঘটেছে। এমনকি ফেসবুকের নিয়মিত সংবাদ বুলেটিনও পাওয়া যায়নি শেষের দিকে। সিডিউল বিপর্যয়ের কারণে বেশ ভালো ভালো ছবি থেকে দর্শক বঞ্চিত হয়েছেন। আশাকরি ভবিষ্যতে উৎসব কর্তৃপক্ষ এই বিষয়ে সচেষ্ট থাকবেন। গত পর্বের আলোচনায় আমরা ইরানের ছবি ‘মোর দ্যান টু আওয়ারস’ নিয়ে আলোচনা শুরু করেছিলাম। আমাদের এই পর্বে এই ছবি সহ আরো অন্যান্য ছবি নিয়ে আলোচনা করা হবে।

একটা সমাজব্যবস্থায় যখন নাগরিক সুবিধাঅসুবিধাকে বিবেচনার বাইরে রেখে, অনড় কোনো আইন প্রণয়ন করা হয়, তখন নাগরিকেরা কী নিদারুণ সমস্যার মুখোমুখি হয়, তারই চিত্র তুলে ধরা হয়েছে আলি আজগার পরিচালিত ‘মোর দ্যান টু আওয়ারস’ ছবিতে। বিস্তারিত »

১৩তম আন্তর্জাতিক স্বল্পদৈর্ঘ্য ও মুক্ত চলচ্চিত্র উৎসব

ফ্লোরা সরকার

last 5১৯৮৮ সাল থেকে এদেশে আন্তর্জাতিক স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র উৎসবের যে যাত্রা শুরু হয়েছিলো, তার ১৩তম উৎসব শুরু হয়েছে গত ৪ ডিসেম্বর থেকে। উৎসব চলবে আগামী ১১ ডিসেম্বর পর্যন্ত। আগে যা ছিলো শুধু স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র উৎসব, এবার তার নাম কিছুটা দীর্ঘ করে রাখা হয়েছে স্বল্পদৈর্ঘ্য ও মুক্ত চলচ্চিত্র উৎসব। উৎসবের স্লোগানও রাখা হয়েছে মুক্ত চলচ্চিত্র, মুক্ত প্রকাশ। স্লোগান যাই থাক না কেনো, এসব চলচ্চিত্র কতটা মুক্ত এবং প্রকাশিত তা অনেকটাই নির্ভর করে, আয়োজকদের উপর। অর্থাৎ শর্ট ফিল্ম ফোরামের সদস্যদের যাচাইবাছাইয়ের উপর। এবারের উৎসবে প্রায় ৫০টা দেশের ছবির কথা থাকলেও তাদের লিখিত সিডিউলে ৩২টা দেশের নাম পাওয়া যায়, যার মধ্যে বাংলাদেশ, ভারত, ইরান, শ্রীলঙ্কা, জার্মানির মতো বিস্তারিত »

খান আতাউর রহমান এবং ‘আবার তোরা মানুষ হ’

ফ্লোরা সরকার

last 6পরিচালক খান আতাউর রহমান (১৯২৮১৯৯৭) শুধু চলচ্চিত্র পরিচালকই ছিলেন না, একাধারে তিনি ছিলেন চলচ্চিত্র প্রযোজক, সঙ্গীত পরিচালক, গায়ক, গীতিকার, কাহিনীকার, চিত্রনাট্যকার, সংলাপকার, আবৃত্তিকার,পরিবেশক, নাট্যকার, লেখক এবং সর্বপোরি একজন শক্তিমান অভিনেতা। বাংলাদেশের চলচ্চিত্র অঙ্গনে এতো বহুগুনের সমন্বিত প্রতিভাবান ব্যক্তি খুঁজে পাওয়া বিরল। ১ ডিসেম্বর এবং ১১ ডিসেম্বর প্রতিভাবান এই পরিচালকঅভিনেতার মৃত্যু এবং জন্মবার্ষিকী। কর্মজীবন শুরুর আগে খান আতা ঢাকার কলেজিয়েট স্কুল এবং ঢাকা কলেজে পড়ার সময়েই অভিনেতা, গায়ক এবং আবৃত্তিকার হিসেবে পরিচিতি পান। চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্যে কোলকাতা, বম্বে, লাহোর ও পরবর্তীতে ব্রিটেনে অভিনয়, সঙ্গীত এবং বিভিন্ন রকমের প্রশিক্ষণে নিজেকে নিয়োজিত করেন। ১৯৫৭ সালে ঢাকায় ফিরে এলে, .জে.কারদার পরিচালিত ‘জাগো হুয়া সাভেরা (১৯৫৯)’ ছবিতে অভিনেতা হিসেবে প্রথম আত্মপ্রকাশ করেন। বিস্তারিত »