Home » অর্থনীতি (page 10)

অর্থনীতি

চীন: পরাশক্তির বিবর্তন (পর্ব – ৩৫)

চীনের পথ নিয়ে সংশয়

আনু মুহাম্মদ

Last-3১৯৭০ সালের মধ্যে চীনে সাংস্কৃতিক বিপ্লবের উচ্ছ্বাস অনেক কমে যায়। পার্টি ও সরকার তখন একদিকে উৎপাদন ও জাতীয় সক্ষমতা বৃদ্ধি এবং অন্যদিকে আন্তর্জাতিক বন্ধু সংযোগে বেশি মনোযোগী। ১৯৭০ সালের এপ্রিল মাসে চীন তাদের প্রথম কৃত্রিম উপগ্রহ মহাকাশে প্রেরণের মধ্য দিয়ে বিশ্ববাসীকে নিজেদের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিগত ক্ষমতার জানান দেয়। সেসময় ইন্টারকন্টিনেন্টাল ব্যালিস্টিক মিসাইল এবং নিউক্লিয়ার ক্ষমতাসম্পন্ন সাবমেরিন বানায়। সাংস্কৃতিক বিপ্লবের সময় ‘বিশেষজ্ঞ’ বিরোধী বৈরী মনোভাব এই সময়ে কমে আসে এবং সরকারি প্রকাশনাতে বিশেষায়ন, বিশেষ প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তি জ্ঞান, বিশেষজ্ঞদের প্রয়োজনীয়তার ওপর গুরুত্ব দেয়া হতে থাকে।

উৎপাদন ক্ষেত্রে সুস্থিরভাবও ক্রমে ফিরে আসতে থাকে। চীনের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী চৌ এন লাইএর ভাষ্যমতে, এই বছরে চীনে বিশ্বের সর্বোচ্চ পরিমাণ সুতিবস্ত্র উৎপাদিত হয়, তেল উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন করে। স্টীল উৎপাদনেও ঘাটতি কমিয়ে আনে। রাসায়নিক সার উৎপাদন আবার বাড়তে থাকে, কৃষি উৎপাদনও বিপ্লব পরবর্তী সর্বোচ্চ উৎপাদন বছর ১৯৫৭ সালের উৎপাদন সীমা অতিক্রম করে। রেশনিং ব্যবস্থা সচল রাখার জন্য খাদ্য সংগ্রহ এবং কানাডা, অস্ট্রেলিয়া, এবং অন্যান্য দেশ থেকে গম আমদানি করে খাদ্য মজুত ৪ কোটি টনে উন্নীত করা হয়।বিস্তারিত »

লাভবান শিল্পোন্নত দেশ ও কর্পোরেট ॥ উপেক্ষিত অনুন্নতরা

এম. জাকির হোসেন খান

Dis-4সদ্য সমাপ্ত কপ২১ প্যারিস সম্মেলনে গৃহীত জলবায়ু পরিবর্তন সংক্রান্ত বৈশ্বিক চুক্তিকে মূল্যায়ন করেছেন জলবায়ু পরিবর্তন সংক্রান্ত বিশ্বের প্রধান বিজ্ঞানী ও নাসার প্রাক্তন গবেষক জেমস হ্যানসেনঠিক এভাবেই– ‘এটা প্রৃকৃতপক্ষে প্রতারণা, একটা ভূয়া মন্তব্য যারা করো আমরা বৈশ্বিক তাপমাত্রা ২ ডিগ্রী সেন্টিগ্রেড কমানোর টার্গেট করেছি এবং প্রতি ৫ বছরে চেষ্টা করবো সামান্য পরিবর্তনের চেষ্টা করবো। এটা একটি অর্থহীন মন্তব্য. কোনো ধরনের বাস্তব পদক্ষেপ নেই, শুধুমাত্র প্রতিশ্রুতি। যতক্ষণ পর্যন্ত জীবাশ্ম জ্বালানি সবচেয়ে সস্তা জ্বালানি হিসেবে বাজারে থাকবে ততক্ষণ পর্যন্ত তার ব্যবহার হবেই’। জেমস হ্যানসেন জলবায়ু পরিবর্তন সংক্রান্ত বৈশ্বিক সচেতনতা সৃষ্টিকারীদের ‘পিতা’ বলেও পরিচিত। বিস্তারিত »

বাংলাদেশের অর্থনৈতিক মুক্তির সংগ্রাম :: ইতিহাস পর্যালোচনা

. সালেহউদ্দিন আহমেদ

Last-2পৃথিবীর যেকোনো মানুষের রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ও সামাজিক স্বাধীনতার সংগ্রামের একটি ঐতিহাসিক পটভূমিকা থাকে। সমষ্টিগত প্রতিটি জাতির এহেন সংগ্রামের ইতিহাস ঘটনাবহুল, বহু মানুষের ত্যাগ এবং ভবিষ্যৎ স্বপ্নের বাস্তবায়নের প্রচেষ্টায় সমৃদ্ধ। বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রাম, অর্থনৈতিক ও সামাজিক মুক্তির সংগ্রাম বাংলাদেশের মানুষের মনন, চিন্তা এবং সংগ্রামী কর্মেরই প্রতিফলন। এসব সংগ্রাম সবই বাংলাদেশীদের জাতীয়তাবাদী আন্দোলনের সঙ্গে ওতপ্রোতভাবেই জড়িয়ে আছে। এই নিবন্ধে আমাদের অর্থনৈতিক সংগ্রামের ঐতিহাসিক পটভূমি ও কিছু ঘটনার ওপর সংক্ষিপ্ত আলোকপাত করার চেষ্টা করছি। বিস্তারিত »

এডিপি বাস্তবায়নের হার সর্বনিম্ন

আমাদের বুধবার প্রতিবেদন

Dis-5চলতি অর্থবছরের পাঁচ মাস পার হয়ে গেলেও বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি (এডিপি) বাস্তবায়নে দৃশ্যমান অগ্রগতি আসেনি। এ সময় এডিপি বাস্তবায়ন হয়েছে মোট বরাদ্দের মাত্র ১৭ শতাংশ। যদিও গত অর্থবছরের একই সময়ে এডিপি বাস্তবায়নের হার ছিল ২০ শতাংশ এবং ২০১৩১৪ অর্থ বছরের প্রথম পাঁচ মাসে এ হার ছিল ১৯ শতাংশ। সে হিসাবে তিন বছরের মধ্যে এ বছর এডিপি বাস্তবায়নের হার সর্বনিম্ন। পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের বাস্তবায়ন পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন বিভাগের (আইএমইডি) প্রতিবেদনে এ চিত্র উঠে এসেছে। বিস্তারিত »

সুন্দরবন :: জনদাবি উপেক্ষিত হতেই থাকবে

আমাদের বুধবার প্রতিবেদন

Dis-4সরকার কোন জাতীয় ইস্যুতে কতটা জেদী ও অনমনীয় হতে পারে তার একটি প্রমান রামপালে নির্মানাধীন কয়লাভিত্তিক ১৩২০ মেগাওয়াট ক্ষমতা সম্পন্ন মৈত্রী সুপার থার্মাল পাওয়ার প্রজেক্ট। সরকার এক্ষেত্রে শুধু অনমনীয়ই নয়, স্পর্শকাতরও বটে। এই প্রকল্প বাস্তবায়নে এর বিরুদ্ধে কোন নাগরিক আন্দোলন সহ্য করতেও সরকার প্রস্তুত নয়। গতমাসে তেলবিদ্যুৎ ও খনিজ সম্পদ রক্ষা জাতীয় কমিটির লংমার্চ পুলিশের লাঠিপেটা ও গ্রেফতারের শিকার হয়। এই প্রজেক্ট নিয়ে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক অনুরোধউপরোধ অবলীলায় উপেক্ষা করছে সরকার। বিস্তারিত »

অপ্রতিরোধ্য অর্থ পাচার

এম. জাকির হোসেন খান

Dis-3গত বছরের ২০ জুন সুইস ন্যাশনাল ব্যাংক (এসএনবি)-র ‘ব্যাংকস ইন সুইজারল্যান্ড২০১৩’ প্রতিবেদনে ২০১২ এর তুলনায় ৬২ শতাংশ বেড়ে সুইস ব্যাংকগুলোয় বাংলাদেশিদের ৩,১৬২.৭২ কোটি টাকা গচ্ছিত থাকার সংবাদ প্রকাশিত হয়। এর আগেই আমাদের বুধবারের বিভিন্ন সংখ্যায় ‘কালো অর্থের পাচার’ সম্পর্কে বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছিল। গত ১০ ডিসেম্বর ওয়াশিংটনভিত্তিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান গ্লোবাল ফিন্যান্সিয়াল ইন্টিগ্রিটি কর্তৃক প্রণীত ‘ইলিসিট ফিন্যান্সিয়াল ফ্লোস ফ্রম ডেভেলপিং কান্ট্রিজঃ ২০০৪১৩’ প্রতিবেদনে জানানো হয়, ২০০৪ থেকে ২০১৩ অর্থাৎ এক দশকে বাংলাদেশ থেকে বিদেশে পাচার হয়েছে ৫,৫৮৭.৭০ কোটি ডলার। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি পাচার হয়েছে ২০১৩ সালে, যার পরিমাণ ৯৬৬ কাটি ৬০ লাখ ডলার বা প্রায় ৭৫ হাজার কোটি টাকা, যা দেশের বাইরে চলে গেছে। এর আগের বছর পাচার হয় ৭২২ কোটি ৫০ লাখ ডলার। এ হিসাবে এক বছরের ব্যবধানে অবৈধ অর্থ প্রবাহ বেড়েছে ৩৩ শতাংশ। বিস্তারিত »

৬ বছরে কোটিপতির অ্যাকাউন্ট বেড়েছে ৩৫ হাজার

আমাদের বুধবার প্রতিবেদন

Dis-3একদিকে কোটিপতির সংখ্যা বাড়ছে, অন্যদিকে বাড়ছে বৈষম্য। আবার দারিদ্র্য কমছে। এসব তথ্যের মধ্যে বড় ধরনের গড়মিল রয়েছে। দারিদ্র্য কমার হার এবং কোটিপতি হওয়ার হারের মধ্যে তুলনা করলে চলবে না। একদিকে কোটিপতি হচ্ছে বিলিয়নিয়ার আর অন্যদিকে জনপ্রতি দরিদ্র মানুষ দিনে দেড় ডলারের বেশি আয় করছে উভয়ের মধ্যে তুলনা করলেও প্রকৃত চিত্র ফুঠে উঠে না। কোটিপতির সংখ্যা বৃদ্ধির সঙ্গে বাড়ছে না কর্মসংস্থান ও সরকারের রাজস্ব। ফলে বাড়ছে সীমাহীন বৈষম্য। সেটি সম্পদের ক্ষেত্রেও যেমন সত্য, তেমনি আয়ের ক্ষেত্রেও।

বর্তমানে ব্যাংকিং খাতে মোট আমানতের ৪০ শতাংশের বেশি এখন কোটিপতিদের দখলে। বিস্তারিত »