Home » অর্থনীতি (page 27)

অর্থনীতি

কৃষি পণ্যের দরপতন :: গ্রামে মন্দা, সংকটে কৃষক

বিশেষ প্রতিনিধি, যশোর থেকে

dis-5কৃষি পণ্যের দর পতনে দক্ষিণ পশ্চিমের জেলাগুলোতে কৃষক চরম আর্থিক সংকটে পড়েছে। দফায় দফায় ধানের দরপতনে চাষি ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। যারা অপরের জমি লিজ নিয়ে ধান চাষ করেছেন, তাদের এখন মাথায় হাত। বাজারে ধানের ক্রেতা মিলছে না। আড়াই মাসের ব্যবধানে প্রতি মন মোটা ধানের দাম দেড়’শ টাকা থেকে দুশো টাকা পর্যন্ত কমেছে। এখনও গোলা ও ঘরে বিপুল পরিমান ধান মজুত রয়েছে। জেলাগুলো হচ্ছে মাগুরা, ঝিনাইদহ, যশোর, চুয়াডাঙ্গা, মেহেরপর, কুষ্টিয়া, নড়াইল, সাতক্ষীরা, বাগেরহাট ও খুলনা। আমন মৌসুমে এসব জেলায় প্রায় ৩০ লাখ টন ধান উৎপাদন হয়েছিল বলে কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তর সুত্রের খবর। বিস্তারিত »

বিনিয়োগে আস্থা তলানিতে

আমাদের বুধবার প্রতিবেদন

dis-4রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা ফিরলেও বিনিয়োগে আস্থা ফেরেনি। এতে ক্রমেই জটিল হয়ে উঠছে বিনিয়োগ পরিস্থিতি। বিনিয়োগ কমে যাওয়ায় কর্মসংস্থান কমে গেছে ২৫ ভাগ। বিনিয়োগে গতি আনতে বেশ কিছু উদ্যোগ নেয়ার চিন্তা করছে অর্থ মন্ত্রণালয়। তবে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বেশি কিছু দরকার নেই, ব্যবসায় আস্থা, অবকাঠামো আর ব্যবসায়িক ব্যয় কমানো নিশ্চিত করতে পারলেই বিনিয়োগে গতি আসবে।

নাম না প্রকাশ করার শর্তে তৃতীয় প্রজন্মের একটি ব্যাংকের অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক হতাশা প্রকাশ করে বলেছেন, ‘ব্যাংক ঋণের সুদের হার কমিয়ে আনা হয়েছে। ব্যাংকেও বিনিয়োগযোগ্য উদ্বৃত্ত তহবিল রয়েছে। এর পরও বিনিয়োগকারীরা বিনিয়োগমুখী হচ্ছেন না। নতুন কোনো শিল্পকারখানা স্থাপন করতে অর্থের জন্য ব্যাংকে আসছেন না। এভাবে চলতে থাকলে ব্যাংকের ব্যবসা ‘লাটে’ উঠবে’। বিস্তারিত »

বিদেশীদের অর্থ প্রত্যাহারের পরেও এগিয়ে চলছে সুন্দরবন বিনাশী তৎপরতা

এম. জাকির হোসেন খান

dis-3গত ১০ মার্চ বৃটেনের প্রভাবশালী দ্য গার্ডিয়ান পত্রিকা জানায়, ‘রামপালে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র প্রকল্পে নরওয়ের পেনশন ফান্ড থেকে ৫ কোটি ৬০ লাখ ডলার বিনিয়োগ করার কথা থাকলেও নরওয়ের ‘কাউন্সিল অন এথিকস’ পরিবেশগত বিপর্যয়ের কথা বিবেচনা করে বিনিয়োগ প্রত্যাহারের সুপারিশ করেছে’। উল্লেখ্য, ভারতের ছত্তিশগড়ে একই ধরনের তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপন করার চেষ্টা করেছিল ভারতের জাতীয় তাপবিদ্যুৎ বিষয়ক কর্তৃপক্ষ। কিন্তু অনেক চেষ্টা করেও পরিবেশগত ছাড়পত্র না পাওয়ায় ব্যর্থ হয় তারা। এদিকে, রামপালে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র কেন্দ্রটি নির্মাণে সম্ভাব্য ব্যয় ধরা হয়েছে ১৫শ’ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। বিস্তারিত »

মূল্যস্ফীতি এশিয়ার মধ্যে বাংলাদেশেই বেশি

আমাদের বুধবার প্রতিবেদন

dis 5বাংলাদেশের মূল্যস্ফীতি এশিয়ার মধ্যে এখন সবচেয়ে বেশি এবং ৬ শতাংশের ওপর। আন্তর্জাতিক বাজারে জ্বালানি তেলের দাম অর্ধেকের বেশি কমে আসায় এসব দেশের মূল্যস্ফীতি কমেছে। কিন্তু বাংলাদেশে সেটি হয়নি সরকারের একঘুয়েমির কারণে। বৈদেশিক মুদ্রার রির্জাভ রেকর্ড পরিমাণ, আসছে রেমিট্যান্স। তারপরও তেলের দাম কমিয়ে মূল্যস্ফীতির চাপ থেকে স্বত্তি প্রদানে সরকারের কোনো পদক্ষেপ নেই। রাজনৈতিক অস্থিরতায় ব্যক্তিখাতের বিনিয়োগ স্থবির হয়ে পড়েছে। দেশে রাজনৈতিক উদারতা ও সমঝোতামূলক রাজনৈতিক পরিবেশের অভাবে ব্যক্তি খাতের বিনিয়োগে উৎসাহ কিংবা তেজিভাব নেই। বিরাষ্ট্রীয়করণ বন্ধ, সরকারিবেসরকারি অংশীদারীত্ব (পিপিপি) উদ্যোগে স্থবিরতা ও ব্যাংকিং খাতে সুশাসনের অভাবেও দেশে কাঙ্খিত বিনিয়োগ হচ্ছে না। বিস্তারিত »

ভারত কেন বাংলাদেশকে বিদ্যুৎ দিচ্ছে

বি.ডি.রহমতউল্লাহ্

dis 2বিদ্যুৎ ঘাটতির দেশ ভারত থেকে বাংলাদেশ বেশি দামে আরো বিদ্যুৎ আনবে। জাতীয় অর্থনৈতিক কাউন্সিলের (একনেক) নির্বাহী কমিটি তার শেষ সভায় এর জন্য ১৬০০ কোটি টাকা অনুমোদন দিয়েছে। এর মধ্যে ভারতের বহরমপুর থেকে বাংলাদেশের ভেড়ামাড়ায় গ্রীড নির্মাণ খাতে এবং ভেড়ামাড়াঈশ্বরদী ২৩০ কেভি ডাবল সার্কিট সঞ্চালন লাইন নির্মানের জন্য বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। এ লাইন দিয়ে ৫০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আনার কথা ঘোষণা করা হয়েছে। এ বিদ্যুতের ট্যারিফও ধরা হয়েছে অনেক বেশী। বাংলাদেশভারত বিদ্যুৎ ক্রয়বিক্রয়ে ট্যারিফ নির্ধারনে বাংলাদেশের কোন ভূমিকা নেই । বিস্তারিত »

বিনিয়োগে মন্দায় চাহিদা সঞ্চয়পত্রের

আমাদের বুধবার প্রতিবেদন

DIS 6বাজেট ঘাটতি মেটাতে এবার ব্যাংক থেকে ৩১ হাজার ২২১ কোটি টাকা ঋণ নেয়ার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছিল সরকার। কিন্তু সঞ্চয়পত্র বিক্রি অতীতের সব রেকর্ড ছাড়িয়ে যাওয়ায় ব্যাংক থেকে সরকারের ধার করার প্রয়োজন পড়ছে না। ফলে চলতি অর্থবছরের ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত নীট হিসাবে ব্যাংকিং খাত থেকে কোন অর্থ ধার করেনি সরকার। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, চলতি অর্থবছরের জুলাই থেকে ফেব্রুয়ারি মাসে সরকার ব্যাংক থেকে যত টাকা ঋণ নিয়েছে তার চেয়ে বেশি আগের নেয়া ঋণের সুদআসল বাবদ পরিশোধ করেছে। গত অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় ব্যাংক থেকে সরকারের নিট ঋণ ৬ হাজার ৪৬০ কোটি টাকা ঋণাত্বক হয়েছে। অর্থ্যাৎ এ সময়ে সরকার বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে নেয়া আগের ঋণের সুদআসল বাবদ ৯ হাজার ৪৭৩ কোটি টাকা পরিশোধ করেছে। প্রসঙ্গত বাজেট ঘাটতি মেটাতে ট্রেজারি বিল ও বন্ডের বিপরীতে সরকার বিভিন্ন মেয়াদে কেন্দ্রীয় ব্যাংক ও বাণিজ্যিক ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে থাকে। বিস্তারিত »

কোটিপতিদের কর ফাঁকি

এম. জাকির হোসেন খান

DIS 5সাধারণ নাগরিকদের কল্যাণের চেয়ে রাষ্ট্র কিছু স্বার্থান্বেষী মহলের অনৈতিক সুবিধার দিকে বেশি নজর দিচ্ছে। অথচ ১৬ কোটি জনসংখ্যার মধ্যে মাত্র ৩৩ লাখ নাগরিকের টিআইএন থাকলেও ১.৫ লাখ সরকারি কর্মকর্তাসহ মাত্র ১০ লাখ (প্রায় ৩৬ শতাংশ) নিয়মিত কর রিটার্ন ফরম দাখিল করে। এখনো প্রায় ২০ লাখ টিআইএনধারী করের আওতার বাইরে। ২০১১এর এনবিআর রিপোর্টে দেখা যায়, সম্পদের বিবরণ অনুযায়ী ১০ লাখ টাকার উর্ধ্বে করদাতার সংখ্যা ছিল মাত্র ১.৩২%, ২ কোটি টাকার ওপর সম্পদের পরিমাণ ছিলো ৪,৩০৩ জনের। ২০১২১৩ অর্থ বছরে ২ কোটি টাকার ওপর নিট সম্পদের মালিকদের ওপর সারচার্জ আরোপ করা হলেও এ পর্যন্ত মাত্র ৪ হাজার ৮৬৫ জন ২ কোটি টাকার বেশি সম্পদ দেখিয়েছেন এবং এনবিআরের আদায়কৃত মোট কর রাজস্বের মাত্র ১১.১৭% দিয়েছে। বিস্তারিত »