Home » আন্তর্জাতিক (page 17)

আন্তর্জাতিক

চীন :: পরাশক্তির বিবর্তন (পর্ব – ৩০)

সাংস্কৃতিক বিপ্লব :: একজন বাংলাদেশির অভিজ্ঞতা

আনু মুহাম্মদ

Last-3শুরু থেকেই চীনের সাংস্কৃতিক বিপ্লবের ঘটনাবলী প্রত্যক্ষ করেছেন বাংলাদেশের বিশিষ্ট সাংবাদিক ও লেখক ফয়েজ আহমেদ। তাঁর কাছ থেকে চীনের ইতিহাসের দুই পর্বের অভিজ্ঞতা পাওয়া যায়। একটি ১৯৬৬ সাল যখন সেখানে সাংস্কৃতিক বিপ্লব চলছিলো এবং আবার ১৯৮৩ সাল যখন চীন সম্পূর্ণ ভিন্ন অভিমুখে সংস্কার করে অগ্রসর হচ্ছে। ১৯৬৬ সালে তিনি পিকিংএ অবস্থান করছিলেন তৎকালীন দৈনিক আজাদএর প্রতিনিধি হিসেবে। এই সময় ভিয়েতনামে মার্কিনী আগ্রাসন চলছিলো। এই সময় অনেকবারই মার্কিন বিমান ও রণতরী চীনের আকাশ ও সমুদ্রসীমা লংঘন করে। তখন পর্যন্ত চীনকে ৪ শতাধিক সতর্কতামূলক প্রতিবাদ জানাতে হয়।

সাংস্কৃতিক বিপ্লবকে বলা হচ্ছিলো ‘শুদ্ধি অভিযানের আন্দোলন’ যা পরিচালিত হচ্ছিলো চার পুরাতনের বিরুদ্ধে – ‘প্রাচীন চিন্তাধারা’, ‘প্রাচীন অভ্যাস’, ‘প্রাচীন দেশাচার’ ও ‘প্রাচীন সংস্কৃতি’। বিরাট আকৃতির ‘তাজেবাও’ বা পোস্টারে লেখা হয়েছে– ‘আমরা প্রাচীন পৃথিবীর সমালোচক, আমরা নতুন পৃথিবীর স্রষ্টা।’ বিস্তারিত »

তেলের অর্থ এবং আন্তর্জাতিক অস্ত্র ব্যবসার নেপথ্যে (সপ্তদশ পর্ব)

অস্ত্র ব্যবসায় ব্রিটেনের দুর্নীতি

Last-5অস্ত্র ব্যবসার সাথে তেল সম্পদের অর্থের একটি গভীর সখ্যতা রয়েছে। একটি অপরটিকে টিকিয়ে রাখে। আর পরস্পরের ঘনিষ্ঠ দুই ব্যবসার কুশীলবরা। এই ব্যবসার নেপথ্যে রয়েছে ঘুষ, অর্থ কেলেঙ্কারিসহ নানা ভয়ঙ্কর সব ঘটনাবলী। এরই একটি খণ্ডচিত্র প্রকাশ করা হচ্ছে ধারাবাহিকভাবে। প্রভাবশালী দ্য গার্ডিয়ানএর প্রখ্যাত দুই সাংবাদিকম ডেভিড লে এবং রাব ইভানসএর প্রতিবেদন প্রকাশের পরে এ নিয়ে বিস্তর আলোড়ন সৃষ্টি হয়েছিল। এ সংখ্যায় ওই প্রতিবেদনের বাংলা অনুবাদের (সপ্তদশ পর্ব) প্রকাশিত হলো। অনুবাদ : জগলুল ফারুক বিস্তারিত »

নেপালে ভারতের নির্মম অবরোধ :: জনজীবন অচল ও বিপন্ন

মোহাম্মদ হাসান শরীফ

Nepal crisisনেপালের মনে হচ্ছে, তার শ্বাস চেপে ধরা হয়েছে। গ্যাসোলিন ফুরিয়ে যাচ্ছে। কেবল পেট্রোলিয়াম সামগ্রী নয় ডায়ালাইসিস, আইসিইউ রোগীদের জন্য অপরিহার্য অক্সিজেন, রাসায়নিক এবং হাসপাতালের জরুরি সরবরাহ পর্যন্ত বন্ধ। বিমানের জ্বালানি পর্যন্ত নেই। কোনো কোনো বিমান সংস্থা নয়া দিল্লি থেকে জ্বালানি সংগ্রহের উদ্যোগ নিয়েছিল। কিন্তু তাতেও ভারতের কড়াকড়ি। নেপালগামী বিমানের দিল্লি ত্যাগের আগে অনুমতি গ্রহণ বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। আর প্রায়ই দেখা যায়, অনুমতি পেতে বিলম্ব হচ্ছে। এটা আসলে নেপালে বিমান চলাচল নিরুৎসাহিত করার প্রয়াস। এর সবই হচ্ছে দেশটির প্রায় সব নিত্যপণ্যের একমাত্র সরবরাহকারী প্রতিবেশী ভারতের অঘোষিত অর্থনৈতিক অবরোধ আরোপের কারণে। বিস্তারিত »

গুয়ান্তানামো :: প্রতিশ্রুতি ভঙ্গের কাহিনী

জেনিফার ফেনটন, আলজাজিরা

অনুবাদ : মোহাম্মদ হাসান শরীফ

Last 1প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা গুয়ান্তানামো বে’র কারাগার বন্ধ করে দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছিলেন। কিন্তু সেটা সহসাই ফাঁকা বুলিতে পরিণত হতে যাচ্ছে। প্রশাসন যেসব বন্দীকে মুক্তি না দিয়ে অবশ্যই ‘চির জীবনের জন্য’ কারাগারে রাখতে হবে বলে জানিয়েছে, তাদের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের মাটিতেই বিকল্প স্থান নির্বাচনের দিকে মনোযোগ দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছেন দেশটির প্রতিরক্ষামন্ত্রী অ্যাশটন কার্টার। অনেকের মতেই কাজটি ঠিক হচ্ছে না। বরং তাদের মতে, প্রেসিডেন্টের উচিত ছিল যেসব লোককে সরিয়ে নেওয়ার ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে, তাদের মুক্তির ব্যবস্থা করা। বিস্তারিত »

চীন :: পরাশক্তির বিবর্তন (পর্ব – ২৯)

সাংস্কৃতিক বিপ্লবের ১৬ দফা কর্মসূচি

আনু মুহাম্মদ

Last 3১৯৬৬ সালের ৮ আগষ্ট সাংস্কৃতিক বিপ্লব সম্পর্কে চীনা কমিউনিস্ট পার্টি আনুষ্ঠানিক ঘোষণা গ্রহণ করে যা ১২ আগষ্ট পিকিং রিভিউএ প্রকাশিত হয়। এর শিরোনাম ছিলো ‘মহান সর্বহারা সাংস্কৃতিক বিপ্লব সম্পর্কে চীনা কমিউনিস্ট পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির সিদ্ধান্ত’। সাধারণভাবে ‘১৬ দফা’ নামে পরিচিত এই সিদ্ধান্তই সাংস্কৃতিক বিপ্লবের আনুষ্ঠানিক ঘোষণা হিসেবে ধরা হয়। এর ১ম দফা ‘সমাজতান্ত্রিক বিপ্লবের একটি নতুন পর্যায়’, ও ২য় দফায় ‘বর্তমান প্রবণতা এবং এর ওঠানামা’ শিরোনামে সাংস্কৃতিক বিপ্লবের কারণ, এর লক্ষ্য উদ্দেশ্য, নেতৃত্ব দানকারী বিভিন্ন অংশ, প্রতিবন্ধকতা ইত্যাদি নিয়ে আলোচনা করা হয়। ৩য় দফায় সাংস্কৃতিক বিপ্লবের সাফল্যের জন্য পার্টি নেতৃত্বের দৃঢ ভূমিকার ওপর গুরুত্ব দেয়া হয়। ৪র্থ ধারায় জোর দিয়ে বলা হয়, ‘এই আন্দোলনে জনগণকে নিজেরাই নিজেদেরকে শিক্ষিত করতে হবে। যদি ভুল বা বিশৃঙ্খলা হয় তবুও জনগণের নিজেদের চিন্তাশক্তির ওপর ভরসা করতে হবে।’ বিস্তারিত »

বিশ্বশান্তির জন্য সবচেয়ে মারাত্মক হুমকি কে? (শেষ পর্ব)

দুর্বৃত্ত রাষ্ট্রগুলো

নোয়াম চমস্কি

অনুবাদ : আসিফ হাসান

Last 5এটা যোগ করা যথাযথই হবে যে, এই ধারায় বিরতিও রয়েছে। উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, প্রেসিডেন্ট জর্জ ডব্লিউ বুশ ইরানের প্রধান দুই শত্রু সাদ্দাম হোসেন ও তালেবানকে ধ্বংস করার মাধ্যমে দেশটিকে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ উপহারের ব্যবস্থা করে দিয়েছেন। তিনি এমনকি মার্কিন পরাজয়ের পর ইরানের ইরাকি শত্রুকে তাদের প্রভাবে দিয়ে দিয়েছেন। এই পরাজয় এতটাই মারাত্মক ছিল যে, ওয়াশিংটনকে স্থায়ী সামরিক ঘাঁটি (‘টেকসই ক্যাম্প’) প্রতিষ্ঠা এবং ইরাকের বিশাল তেল সম্পদে মার্কিন করপোরেশনগুলোর সুবিধাজনক প্রবেশাধিকার লাভের আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষিত লক্ষ্যও বাতিল করতে হয়েছে। বিস্তারিত »

জলবায়ু ঝুঁকি মোকাবেলায় আরও যা করতে হবে

এম. জাকির হোসেন খান

Dis 5ছোট্ট এই দেশে ১৬ কোটি মানুষের বাস। তাদের জীবন পরিবর্তন করতে হলে উন্নয়ন করতে হবে। আর উন্নয়ন করতে গেলে পরিবেশের ওপর এর একটা প্রভাব পড়ে। তবে নগরায়ণও করতে হবে। দেশকে সবুজ রাখতে হবে। জলাধার ও জীববৈচিত্র রক্ষা করতে হবে’, পরিবেশ রক্ষায় প্রধানমন্ত্রী সম্প্রতি এ মন্তব্যটি করেছেন। প্রকৃতি, পরিবেশ এবং প্রতিবেশ রক্ষায় কোনো সাধারণ নাগরিকেরই দ্বিমত থাকার কথা না। কিন্তু উন্নয়ন করতে হলে নদী দুষন, খাল বিল দখল কিংবা নির্বিচারে বনভূমি নিধন বা মানুষের জীবন এবং সম্পদ রক্ষাকারী সুন্দরবনকে ধ্বংস করে হলেও কয়লা বিদ্যুৎ কেন্দ্র বসাতেই হবে এ ব্যাপারে সচেতন নাগরিক বা পরিবেশ বিশেষজ্ঞদেও দ্বিমত রয়েছে। ২০১৪ এ নতুন জলবায়ু অর্থনীতি (এনসিই)’র প্রতিবেদনে সুস্পষ্টভাবে বলা হয়েছে, ‘জলবায়ু পরিবর্তন রোধে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ না করে স্থায়িত্বশীল অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি সম্ভব নয় এবং জলবায়ু পরিবর্তনের ঝুঁকি হ্রাস (কার্বন নিঃসরণ কমানো) এবং অর্থনৈতিক অগ্রগতি একসাথে সম্ভব’। বিস্তারিত »