Home » আন্তর্জাতিক (page 58)

আন্তর্জাতিক

আমেরিকান সামরিক শ্রেষ্ঠত্বের দুঃখদায়ক ইতিহাস (পর্ব – ২)

নিকোলাস জে এস ড্যাভিস, জেড ম্যাগাজিন

অনুবাদ: মোহাম্মদ হাসান শরীফ

(প্রথম প্রকাশের পর)

war-usaসোভিয়েতরা তাদের নিজস্ব পারমাণবিক অস্ত্রভাণ্ডার গড়ে তোলার প্রেক্ষাপটে যুক্তরাষ্ট্র অনিয়ন্ত্রিত প্রযুক্তিগত অস্ত্র প্রতিযোগিতায় ট্রিলিয়ন ট্রিলিয়ন ডলার এবং বিপুল মানবসম্পদ বিনিয়োগ করে। বিশ্বজুড়ে ছায়াযুদ্ধগুলোতে আমেরিকান জঙ্গি বিমান ও ট্যাংক সাধারণভাবে সোভিয়েতগুলোর চেয়ে শ্রেষ্ঠ প্রমাণিত হয়। তবে একে৪৭ পাশ্চাত্যের সাম্রাজ্যবাদ প্রতিরোধমূলক প্রতিরোধ আন্দোলনগুলোতে আদরণীয় ও প্রতীক হয়ে ওঠায় ওই শ্রেষ্ঠত্ব অপ্রাসঙ্গিক হয়ে পড়ে। এদিকে স্বেচ্ছাচারমূলক সামরিক উৎপাদন থেকে বাদ পড়ায় ও মুক্ত থাকায় জার্মানি ও জাপান তাদের সব সম্পদ বেসামরিক প্রযুক্তিতে বিনিয়োগ করার মাধ্যমে পরাশক্তিগুলোর চেয়ে ভালো গাড়ি ও গৃহস্থালি সামগ্রী প্রস্তুত করতে থাকে। বিস্তারিত »

ব্লাড ডায়মন্ড – যে গৃহযুদ্ধে মূল হোতাদের কোনোই ক্ষতি হয় না

(পূর্ব প্রকাশিতের পর)

ফ্লোরা সরকার

siera-leon-warগবেষক সো ইউয়ুং জাংয়ের বিশ্লেষণের আগে সিয়ারা লিয়নের একটি সংক্ষিপ্ত পরিচিতি জেনে নেয়া যাক। সিয়ারা লিয়নের আধুনিক ইতিহাস গড়ে উঠেছে ১৭৮৭ সাল থেকে, যখন ব্রিটিশ বাহিনী এখানে উপনিবেশ গড়া শুরু করে। তার আগে পর্তুগিজ বাহিনীর আগমন ঘটে ১৪৬২ সালে। ১৮০৮ এর মধ্যেই দেশটি সরাসরি ব্রিটিশ রাজতন্ত্রের অধীনে চলে আসে। ২০ এপ্রিল ১৯৬০ এ স্যার মিল্টন মারগাই (যাকে ১৯৫৩ সালে ব্রিটিশ শাসনাধীন সংবিধানের আওতায় প্রধানমন্ত্রিত্ব প্রদান করা হয়) এর নেতৃত্বে চব্বিশ সদস্যের একটি দল লন্ডনের ল্যানসেসটার হলে সমবেত হন দেশটির স্বাধীনতাপ্রাপ্তির উদ্দেশ্য নিয়ে। বিস্তারিত »

ক্ষমতা ভাগাভাগির মহাদ্বন্দ্বে নেপাল

কমল দেব ভট্টরাই

অনুবাদ: মোহাম্মদ হাসান শরীফ

nepal-3সঙ্কটের অন্ধকার গর্ত থেকে বের হতে পারছে না নেপাল। নির্বাচনের পরও যেভাবে নিত্যনতুন সমস্যা দেখা যাচ্ছে, তাতে করে দেশটিতে গণতান্ত্রিক যাত্রা কতটুকু মসৃণ হবে তা নিয়ে শঙ্কা দেখা দিয়েছে। আর এই সঙ্কটের আগুনে ঘি ঢালছে বিদেশি শক্তিগুলো।

দেশটিতে সদ্য গঠিত সংবিধান পরিষদের প্রথম সভা কে ডাকবেন তা নিয়ে যে জটিলতা দেখা দিয়েছিল, তা মাত্র কাটিয়ে ওঠা সম্ভব হয়েছে। সরকার ২২ জানুয়ারি প্রথম সভা ডাকবেতা নিয়ে সমঝোতা হয়েছে। এবার বিবাদ শুরু হয়েছে ক্ষমতা ভাগাভাগি নিয়ে। বিস্তারিত »

আমেরিকান সামরিক শ্রেষ্ঠত্বের দুঃখদায়ক ইতিহাস (পর্ব – ১)

নিকোলাস জে এস ড্যাভিস, জেড ম্যাগাজিন

অনুবাদ: মোহাম্মদ হাসান শরীফ

no-war-1মার্কিন জাতীয় নিরাপত্তার ধারণাটি দৃশ্যত সামরিক শ্রেষ্ঠত্ব ধারণার সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে রয়েছে। গত ১৫ বছর ধরে এটা ইতিহাসের সবচেয়ে ব্যয়বহুল একতরফা সামরিক শক্তি বাড়ানোর যুক্তি হিসেবে তুলে ধরা হচ্ছে। কিন্তু এমন কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি, যাতে বোঝা যায় যে সবচেয়ে ব্যয়বহুল এবং ধক্ষংসকারী সামরিক বাহিনী আমেরিকানদের অন্য দেশের জনগণের চেয়ে বেশি নিরাপদ করেছে কিংবা আরো ভারসাম্যপূর্ণ সামরিক অবস্থান আমাদেরকে বিপদে অরক্ষিত করে রাখবে। অপেক্ষাকৃত ছোট সামরিক বাহিনী দিয়েও অনেক দেশ তাদের জনগণকে রক্ষার কাজটি আরো ভালোভাবে সামাল দিচ্ছে। তারা এই কাজটি করছে মার্কিন সাম্রাজ্যবাদ, আগ্রাসন এবং অন্যান্য যুদ্ধাপরাধের ফলে সৃষ্ট বৈরিতা এড়ানোর মাধ্যমে। বিস্তারিত »

ভারত বাংলাদেশে কী চায়?

আনু মুহাম্মদ

BD-INdiaএরকম ধারণা সমাজে এখন বেশ জোরদার যে, ভারত বাংলাদেশের বর্তমান সরকারকে ক্ষমতায় টিকিয়ে রাখতে সকল সমর্থন প্রদান করেছে, তারা তাদের গোয়েন্দা সংস্থাসহ সবধরনের প্রতিষ্ঠানকে এই কাজে আগের চাইতে অনেক বিস্তৃতভাবে নিয়োজিত করেছে। সেকারণে দেশ ও বিদেশের সকল মত অগ্রাহ্য করে সরকার একতরফা নির্বাচন করতে সক্ষম হয়েছে। এতো বাধাবিপত্তির মধ্যে এরকম নির্বাচন সম্পন্ন করার জন্য যে মনোবল দরকার ছিলো তার অন্যতম যোগানদার ভারত। ভারতের সাহসেই এটা সম্ভব হয়েছে। সফলভাবে সরকারও গঠিত হয়েছে। ভারত শুধু যে সমর্থন দিয়েছে তাই নয়, অন্যদের সমর্থন আদায়ে প্রভাবও খাটিয়েছে। বিস্তারিত »

দেবযানী এবং ভারতের ‘মাথা উঁচু’ রাখা

মোহাম্মদ হাসান শরীফ, ইকোনমিস্ট ও নিউইয়র্ক টাইমস অবলম্বনে

debjani-2তার মাথা উঁচু ছিল’ ভারতীয় কূটনীতিক দেবযানী খোবরাগোড়ে যুক্তরাষ্ট্র ত্যাগ করার সময় তার আইনজীবী এমন মন্তব্যই করেছেন। ওই কূটনীতিকের বিরুদ্ধে অভিযোগ, তিনি তার গৃহকর্মীকে ঠকিয়েছেন এবং তার জন্য ভিসা সংগ্রহের সময় প্রতারণার আশ্রয় নিয়েছিলেন। ১০ জানুয়ারি যুক্তরাষ্ট্রে তার বিরুদ্ধে আনুষ্ঠানিকভাবে অভিযোগ আনা হয়। তবে ভারত এর আগেই দেবযানীর চাকরি জাতিসংঘে স্থানান্তরিত করার কারণে তিনি পূর্ণ কূটনীতিক দায়মুক্তি সুবিধা পেয়ে যান। এই দায়মুক্তি সুবিধা প্রত্যাহার করতে যুক্তরাষ্ট্র অনুরোধ করেছিল। বিস্তারিত »

এক ডলারে কতটুকু নিরাপত্তা কেনা যায়?

গ্যারি মিলান্তে

অনুবাদ: মোহাম্মদ হাসান শরীফ

dollarএক ডলারে কতটুকু খাবার বা জ্বালানি কেনা যায়, তা পরিমাপ করা সম্ভব। কিন্তু এক ডলারে কতটুকু নিরাপত্তা কেনা যায়? জবাবটা কি খুব কঠিন? অন্তত সহজ নয়। সবচেয়ে উন্নত দেশও এই সাদামাটা প্রশ্নটার উত্তর দিতে হিমশিম খায়….

এক ডলার দিয়ে কতটুকু নিরাপত্তা কেনা যায়, সেই হিসাব শুরু করতে হলেও প্রথমে জানতে হবে বর্তমানে কতটুকু নিরাপত্তাহীনতা বিরাজ করছে বলে জানা যাচ্ছে এবং এর সঙ্গে কতটুকু ব্যয় সম্পৃক্ত। এরপর হিসাব করতে হবে কতটুকু অজ্ঞাত হুমকি আছে বলে মনে হচ্ছে এবং তা সম্ভাব্য ব্যয় কত। বিস্তারিত »