Home » আন্তর্জাতিক (page 76)

আন্তর্জাতিক

পুঁজিবাদের একটি ভুতুরে গল্প (দ্বিতীয় কিস্তি)

কর্পোরেট সংবাদ মাধ্যম, ড্যাম নির্মাণ আর দমনের কলাকৌশল

অরুন্ধতী রায়

অনুবাদ: মোহাম্মদ হাসান শরীফ

arundhati-2ব্যাপক বিদ্রোহ ও যুদ্ধের কারণেই কেবল আমরা মধ্য ভারতের প্রতিবেশগত ও সামাজিক পুনঃগঠনের বিষয়টি জানতে পারছি। সরকার কোনো তথ্য দেয়নি। সমঝোতা স্মারকগুলোর সবই গোপন রাখা হয়েছে। মিডিয়ার কিছু কিছু অংশ মধ্য ভারতে যা কিছু ঘটছে, সে স¤পর্কে লোকজনকে অবগত করছে। তবে ভারতীয় গণমাধ্যমের বেশির ভাগই এ কারণে দুর্বল যে, এর আয়ের প্রধান অংশটি আসে করপোরেট বিজ্ঞাপন থেকে। এটাও যদি যথেষ্ট খারাপ বিবেচিত না হয়ে থাকে, তবে তার চেয়েও কঠিন খবর হলো মিডিয়া ও বৃহৎ ব্যবসায়ের মধ্যকার রেখাটি বিপজ্জনকভাবে অস্পষ্ট হতে শুরু করেছে। আমরা দেখেছি, আরআইএল প্রকৃতপক্ষে ২৭টি টিভি চ্যানেলের মালিক। তবে বিপরীতটাও সত্য। বিস্তারিত »

তেল-গ্যাস লুট দেশে দেশে

তেলের মওজুদ, ক্ষমতা আর বৈশ্বিক রাজনীতি

ফারুক চৌধুরী

coal power-1তেলগ্যাস লুটের বিষয়টি আলোচনার ক্ষেত্রে খনিজ সামগ্রীর প্রসঙ্গ উত্থাপনের কারণ হচ্ছে (), একটি দেশের বা সমাজের প্রতি দিনের জীবনযাত্রায়, (), অর্থনীতিতে ও () মুনাফা অর্জনের ক্ষেত্রে এ সবের প্রয়োজন ও গুরুত্ব। তেল, গ্যাসসহ নানা ধরনের জ্বালানির প্রয়োজন ও গুরুত্ব বুঝতে পারা যাবে এ সব খনিজ সামগ্রীর গুরুত্ব ও প্রয়োজন খেয়াল করলে।

এ সব খনিজ সামগ্রীর প্রয়োজন কতটা, তা একটি তথ্য উল্লেখ করলে বুঝতে সুবিধা হয়। একটি ক্ষমতাধর দেশ সাম্প্রতিককালে বিভিন্ন খনিজ দ্রব্যের মজুদ গড়ে তুলছে। কারণ, দেশটিতে এ সব খনিজ দ্রব্যের খনি নেই, এ মজুদের মধ্যে রয়েছে বক্সাইট : এক কোটি মেট্রিক টনের বেশি, ম্যাঙ্গানিজ : ১৭ লাখ মেট্রিক টন, ক্রোমিয়াম ১৪ লাখ মেট্রিক টন, টিন : প্রায় ৬০ হাজার মেট্রিক টন, কোবাল্টি : প্রায় দুশ মেট্রিক টন, ট্যান্টালাম : ৬শ টনের বেশি, প্যালাডিয়াম : ১২ লাখ ট্রয় আউন্সের বেশি, প্লাটিনাম : প্রায় পাঁচ হাজার কিলোগ্রাম, ইরিডিয়াম : প্রায় আট বা কিলোগ্রাম। বিস্তারিত »

সরকারের ব্যর্থ পানি কূটনীতি (শেষ পর্ব)

. ইনামুল হক

inamul-huq-2-ফেনী নদীর উৎপত্তি খাগড়াছড়ি জেলার সীমান্তে একটি বিরোধপূর্ণ ভূমির পশ্চিমে ভারতীয় প্রান্তে। একই এলাকায় আসালং নদী বাংলাদেশের ভেতর থেকে উৎপন্ন হয়ে, এই বিরোধপূর্ণ ভূমির পূর্ব প্রান্তে পৌঁছে দক্ষিণে প্রবাহিত হয়। এরপর উভয় নদীই মিলিত হয়ে ফেনী নাম নিয়ে বাংলাদেশ ও ভারতের সীমান্ত হিসেবে দক্ষিণ ও দক্ষিণপশ্চিমে প্রায় ৮০ কিলোমিটার পথ পাড়ি দেয়। এর প্রবাহপথে অনেক ছোট নদী যথা, তাইলালং, গুমতি, অযোধ্যা, আজুংরাই, নালোয়া, কালিয়া ইত্যাদি বাংলাদেশ থেকে এবং সাব্র“ম, লুধুয়া, বেলোগা ইত্যাদি ভারত থেকে এসে যোগ দেয়। বড় নদীর মধ্যে পিলাক বাংলাদেশ থেকে এবং মনু ভারত থেকে এসে যোগ দিয়েছে। ফেনী জেলার আমলিঘাট নামক স্থানে নদীটি পুরোপুরি বাংলাদেশের ভেতরে ঢুকে পড়ে। বিস্তারিত »

নারী নির্যাতন মহামারীর মতো ছড়িয়ে পড়ছে

৮ মার্চ আন্তর্জাতিক নারী দিবস। নারী দিবসে আমাদের বুধবারএর বিশেষ প্রতিবেদন

ফরিদা আখতার

women_day-1-বাংলাদেশে রাজনৈতিক সহিংসতা বেড়েছে বলে আমরা অনেকেই আতঙ্কিত হচ্ছি, কিন্তু হঠাৎ করে যেন নারী নির্যাতন সহিংসভাবেই বেড়ে গেছে। সংক্রামক রোগ যেমন ছড়ায় তেমনি নারী নির্যাতনও এখন মহামারী রোগের মতো ছড়িয়ে গেছে।এই মহামারীতে নারীরা ধর্ষিত হচ্ছেন, তাদের মেরেও ফেলা হচ্ছে অনেক ক্ষেত্রে, না হলে তাদের ছুঁড়ে ফেলে দেওয়া হচ্ছে চলন্ত কোন পরিবহন থেকে। একটি ঘটনা ঘটলে এবং তার প্রতিবাদ হলে আবার একই কায়দায় অন্য এলাকায়ও ঘটছে। পত্রিকায় ছাপা হওয়া বর্ণনা যেন পথ বাতলে দিচ্ছে পরবর্তী ঘটনা কেমন করে ঘটবে। একটি খারাপ প্রতিক্রিয়া হচ্ছে যে এই ভয়াবহ ঘটনা পাঠকের গাসওয়া হয়ে যাচ্ছে। শিরোনাম দেখে বাকী খবর কেউ পড়ছে না। বিস্তারিত »

তেল গ্যাস লুট দেশে দেশে – ১

লুণ্ঠনের প্রেক্ষাপট

ফারুক চৌধুরী

chevronখনিজ সামগ্রী বললে, লোহা, কালা, সোনা, রূপা, ইত্যাদির কথা আমাদের মাথার মধ্যে সহজেই ঘুরপাক খায়। কিন্তু খনিজ সামগ্রীর জগত আরো ব্যাপক ও বিস্তৃত। আবার এটাও খেয়াল রাখা দরকার যে, এক হিসেবে বাংলাদেশে কয়লাকে খনিজ দ্রব্য হিসেবে গণ্য করা হয় না। গুরুত্বের বিচারে লোহা, সোনা, রূপা, কয়লার গুরুত্ব একেবারেই কম নয়। কিন্তু খনিজ সামগ্রীর বিস্তৃত যে জগত, সেখানে অন্যান্য খনিজ দ্রব্যের গুরুত্বও অনেক। উদাহরণ দেয়া যাক, একটি বাড়ি তৈরি হবে। তাই দরকার হবে ইট, সিমেন্ট, বালি, রড, কাঠ, লোহা। যদি বাড়িটি দেয়াল ইটে তৈরি না হয়ে মাটির তৈরি হয়, যদি বাড়িটির ছাদ হয় টিনের, তাহলে প্রয়োজন হবে কাদা ও টিন। আর ইট তৈরি হচ্ছে মাটি দিয়ে। অর্থাৎ বাড়িটির জন্য দরকার হচ্ছে কয়েকটি খনিজ দ্রব্য : মাটি, লোহা, টিন, ইত্যাদি। পেরেক, স্ক্রু, সিমেন্ট, বল্টু, নাট, ঢেউ টিন, জলের পাইপ, বিদ্যুৎ তার, জানালার কাঁচ, ইত্যাদির প্রতিটিতে রয়েছে কোনো না কোনো খনিজ দ্রব্য। বাড়িতে ব্যবহৃত কোনো কোনো ধাতব সামগ্রী তৈরি হয় ক্রোমিয়াম দিয়ে। আর ক্রোমিয়াম আরো ক্রামাইট নামের খনিজ দ্রব্য থেকে। কাঁচ তৈরি হয় অভ্র এবং অন্যান্য সামগ্রি মিশিয়ে। অভ্র খনিজ দ্রব্য, বালিও কোথাও কোথাও খনিজ দ্রব্য। জলের নল বা পাইপ আগে তৈরি করা হতো শিসা দিয়ে। সেটি বিষাক্ত। তাই এখন তৈরি হয় তামা বা প্লাস্টিক দিয়ে। বিস্তারিত »

পুঁজিবাদের একটি ভুতুরে গল্প – ১

অরুন্ধতী রায়

অনুবাদ: মোহাম্মদ হাসান শরীফ

arundhati-2এটা বাড়ি না বাসা? নতুন ভারতের মন্দির না কি এর প্রেতাত্মাদের গুদামঘর? মুম্বাইয়ের অ্যালতামন্ট রোডে অন্টিলায় পৌঁছানোর পর চুইয়ে পড়া রহস্য আর চাপা আতঙ্কে কোনো কিছুই আর আগের মতো ছিল না। ‘এই আমাদের স্থান,’ যে বন্ধুটি আমাকে সেখানে নিয়ে গিয়েছিল সে বলল, ‘আমাদের নতুন শাসকের প্রতি শ্রদ্ধাজ্ঞাপন করো।’

অন্টিলা, ভারতের সবচেয়ে ধনী মানুষ মুকেশ আম্বানির বাড়ি। এযাবতকালের সবচেয়ে দামি বাড়িটি সম্পর্কে আমি অনেক কিছু পড়েছি : ২৭টি ফ্লোর, তিনটি হেলিপ্যাড, ৯টি লিফট, ঝুলন্ত বাগান, বলরুম, ওয়েদার রুম, জিমনেশিয়াম, পার্কিংয়ের জন্য ছয়টি তলা আর ছয় শ’ চাকর। বিশাল ধাতব তারজালির সঙ্গে লাগানো ২৭ তলা উঁচু ঘাসের খাড়া দেয়ালে তৈরি লনটি দেখার জন্য আমি একেবারেই প্রস্তুত ছিলাম না। কোনো কোনো জায়গায় ঘাস শুকিয়ে সুন্দর আয়তক্ষেত্রের মতো ঝরে পড়েছে। বোঝাই যাচ্ছে, ওপর থেকে পানি দেওয়ার যে ব্যবস্থা করা হয়েছিল, তা ঠিকমতো কাজ করেনি। বিস্তারিত »

সরকারের ব্যর্থ পানি কূটনীতি (দ্বিতীয় পর্ব)

. ইনামুল হক

inamul-huq-2-বাংলাদেশের আওয়ামী লীগ সরকার ভারতের মণিপুর রাজ্যে নির্মিতব্য টিপাইমুখ ড্যাম নিয়েও বেশ বিব্রতকর অবস্থায় পড়েছে। সরকারের পররাষ্ট্র বিষয়ক উপদেষ্টা গওহর রিজভীর বিগত ১৩ ডিসেম্বর ২০১১ টিপাইমুখ ড্যাম নিয়ে পত্রিকায় একটি প্রবন্ধ লিখে নিবেদন করেন যে, বিষয়টি নিয়ে আবেগ ও রাজনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গির উর্দ্ধে থেকে যুক্তিপূর্ণ এবং বৈজ্ঞানিক আলোচনা হওয়া দরকার।

টিপাইমুখ স্থানটি ভারতের মিজোরাম রাজ্যের কোলাশিব জেলা এবং মণিপুর রাজ্যের চূড়াচাঁদপুর জেলার সীমানায় অবস্থিত, যেখানে টিপাই নদী বরাক নদে এসে মিশেছে। এখানে বরাক নদ উত্তর পূর্বের কালা নাগা এলাকার ভেতর দিয়ে এসে একটি উল্টো বাঁক নিয়েছে। টিপাই নদীর উৎপত্তি মিয়ানমারে, যা’ দক্ষিণ দিক থেকে এসে এই বাঁকে এসে পড়েছে। বরাক এরপর ভূবন পাহাড় উপত্যকার ভেতর দিয়ে আসামের কাছাড় জেলার দিকে প্রবাহিত হয়েছে। পাহাড় ও সমতলের ভেতর দিয়ে এই নদটি আরও ১৮০ কিলোমিটার প্রবাহিত হয়ে অমলশিদের কাছে বাংলাদেশের সীমানা স্পর্শ করেছে। এখানে নদটি সুরমা ও কুশিয়ারা নামের দ’ুটি নদীতে ভাগ হয়ে বাংলাদেশের ভেতরে প্রবেশ করেছে। বিস্তারিত »