Home » আন্তর্জাতিক (page 77)

আন্তর্জাতিক

ভারতে বাতিল হলে এ দেশে কেন?

শাহাদত হোসেন বাচ্চু (খুলনা থেকে)

coal power-1ভারত সরকারের বিদ্যুৎ সচিব উমা শংকর যতই আশ্বস্ত করুন কিংবা বাংলাদেশ সরকারের জ্বালানী উপদেষ্টা ড. তৌফিকএলাহী চৌধুরী যতই বলুন স্বপ্ন বাস্তবায়নের কথাবাস্তবতা হচ্ছে, রামপালে কয়লাভিত্তিক তাপ বিদু্যুৎ কেন্দ্র নির্মিত হলে দক্ষিনপশ্চিমাঞ্চলের ভয়াবহ বিপর্যয় এড়ানো যাবে না। এই সাথে সুন্দরবনের অনিবার্য ধ্বংসের আশংকাও উড়িয়ে দিতে পারছেন না পরিবেশ বিজ্ঞানীরা। আর পারছেন না জমি হারানো দিশেহারা আড়াই হাজার পরিবার, যাদের ভবিষ্যত এখনই অনিশ্চিত গন্তব্যে। রামপালে মেগা সাইজের কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ প্রকল্প স্থাপনের সূচনায় ভারতীয় বিদ্যুৎ সচিবের এই আশ্বস্তকরণে প্রশ্ন জেগেছে, তার দেশে বিপর্যয়ের আশংকায় কেন এরকম প্রকল্প বাতিল করা হয়েছে? অন্যদিকে, জ্বালানি উপদেষ্টা কোন্ ‘স্বপ্ন’ বাস্তবায়নের কথা বলছেন, সেটিই এখন এ অঞ্চলের জনগণের মুখ্য প্রশ্ন হয়ে দাঁড়িয়েছে। বিস্তারিত »

দেশ কি রুয়ান্ডা বা পাকিস্তানের পথে?

আমীর খসরু

democracy-1-পূর্ব আফ্রিকার ভূবেষ্টিত দেশ রুয়ান্ডা। দীর্ঘকাল ধরে দেশটির প্রধান দুই জাতিসত্ত্বা হুতু ও তুতসিদের মধ্যে সংঘাত আর সাংঘর্ষিক পরিস্থিতি চলছিল। ১৯৫০এর দশকে শুরু হওয়া ভয়াবহ সংঘাত এবং দাঙ্গা দীর্ঘকাল ধরে চলতে থাকে। বাড়তে থাকে মৃতের সংখ্যা। শুধু ১৯৬৩ সালেই নিহত হন ১৪ হাজারের বেশি মানুষ। এই পরিস্থিতি চলছিল দীর্ঘকাল। আর এতে মদদ ছিল দেশটির ক্ষমতাসীন শাসকশ্রেণী এবং ক্ষমতাশ্রয়ীদের। বিপুল খনিজ ও প্রাকৃতিক সম্পদে সম্পৃদ্ধ রুয়ান্ডার এই সংঘাতের পেছনে মদদ দিয়েছে পশ্চিমা দেশ এবং তাদেরই কোম্পানি। পরিণতিতে হুতু এবং তুতসিদের মধ্যে আরেক দফায় ভয়াবহ গৃহযুদ্ধ শুরু হয় ১৯৯০এর মধ্য পর্যায়ে। ১৯৯৪ সালের ভয়াবহ গৃহযুদ্ধে জাতিসংঘসহ বিভিন্ন সংস্থার হিসেবে, জাতিগত সংঘাতে নিহত হন কমপক্ষে ১০ লাখ মানুষ, যা ওই দেশটির জনসংখ্যার ২০ শতাংশের মতো। ওই গৃহযুদ্ধে গৃহহীন হয়েছে, স্বজন হারিয়েছে, বিপর্যস্ত ও বিপন্ন অবস্থায় পড়েছে অসংখ্য সাধারণ মানুষ। দেশটির এই রক্তাক্ত সাংঘর্ষিক অবস্থার পরিণতিতে, রুয়ান্ডা এখনও মাথা তুলে দাঁড়াতে পারেনি। অর্থনৈতিকভাবে কাটিয়ে উঠতে পারেনি সৃষ্ট নানাবিধ সঙ্কট। স্বজনহারা, গৃহহারা মানুষের কাছে এখনো ওই স্মৃতি বেদনার্থ এবং শোকের। সাধারণ মানুষ ওই গৃহযুদ্ধের শুরু করেনি, এমনকি এতে সক্রিয় অংশগ্রহণও তারা করেনি। যারা করেছিল তারা শাসক এবং ক্ষমতাবান শ্রেণী। আর এটা ছিল ক্ষমতা এবং কর্তৃত্বের লড়াই। বিস্তারিত »

সরকারের ব্যর্থ পানি কূটনীতি (প্রথম পর্ব)

. ইনামুল হক

inamul-huq-2-বাংলার সমভূমি বিগত ১৯৪৭ সালে ভারত ও পাকিস্তান নামে দু’টি রাষ্ট্রে ভাগ হয়ে গেলে এর অনেক নদনদীর প্রবাহপথ দুই দেশের সীমানা ভেদ করে যায়। ১৯৭১ সালে পূর্ব পাকিস্তান স্বাধীন হয়ে বাংলাদেশ হয় এবং ৫৪টি অন্তর্দেশীয় নদী ভারত ও বাংলাদেশের যৌথ নদী কমিশনের পর্যবেক্ষণের আওতায় পড়ে। ১৯৭৪ সালে গঙ্গা নদীর উপর ভারত ফারাক্কা ব্যারেজ চালু করেছিলো। তখন থেকেই বাংলাদেশকে পানি কূটনীতির আশ্রয় নিতে হয়েছে। ফারাক্কা ব্যারেজের ডাইভারশন খালের মাধ্যমে ৪০,০০০ কিউসেক পানি পশ্চিম বঙ্গের ভাগিরথী নদীতে প্রত্যাহার করা সম্ভব। ব্যারেজ চালূ হবার আগেই এ বিষয়ে ১৬ জুলাই ১৯৭৩ দুই দেশের মন্ত্রী পর্যায়ে আলোচনা হয়েছে। বিস্তারিত »

ইউরোপেই ভয়াবহ পারমাণবিক দুর্ঘটনার শঙ্কা

মোহাম্মদ হাসান শরীফ

Public domain image, royalty free stock photo from www.public-domain-image.comবিশ্ব এখন পারমাণবিক দুর্ঘটনার ঝুঁকিতে। আগের যেকোনো সময়ের চেয়ে এ ধরণের বিপদের আশঙ্কা অনেক বেশি। মেইঞ্জের ম্যাক্স প্লাঙ্ক ইনস্টিটিউট ফর কেমিস্ট্রির বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, যেকোনো সময় ঘটে যেতে পারে চেরনোবিল ও ফুকুশিয়ার মতো পারমাণবিক দুর্ঘটনা। এমনকি আগে যেমনটা আশা করা হয়েছিল, বিপদের ঝুঁকি তার চেয়ে ২০০ গুণেরও বেশি। গবেষকেরা আরো দেখিয়েছেন, এ ধরণের ভয়াবহ দুর্ঘটনার ক্ষেত্রে তেজষ্ক্রিয় সিজিয়াম১৩৭এর অর্ধেক পারমাণবিক চুল্লি থেকে এক হাজার কিলোমিটার দূরবর্তী এলাকাতেও ছড়িয়ে পড়তে পারে। বিস্তারিত »

সীমান্ত হত্যা – একটি ভিন্ন চিত্র

আমাদের বুধবার প্রতিবেদন

bsf_logo-1-বারবার ভারতের প্রতিশ্রুতি সত্বেও সীমান্তে বিএসএফ এর গুলিতে বাংলাদেশি নিহতের ঘটনা বন্ধ হচ্ছে না। গত বছরও সীমান্তে বিএসএফ এর গুলিতে ৩৮ জন বাংলাদেশি নিহত হয়েছেন। বিএসএফ ধরে নিয়ে যায় ৭৪ জনকে। চলতি বছরের জানুয়ারি মাসে ৫ জন এবং ফেব্রুয়ারির ১৫ তারিখ পর্যন্ত ৩ জন বাংলাদেশি বিএসএফ এর হাতে নিহত হয়েছেন। বিস্তারিত »

‘আমরা একেই বলি উন্নয়ন’ – শেষ পর্ব

আমি কেন লিখি’………..

অরুন্ধতী রায়

অনুবাদ: মোহাম্মদ হাসান শরীফ

arundhati-1আপনি যদি ভারতে ভূমি রক্ষা আন্দোলনের ইতিহাসের দিকে তাকান, দেখা যাবে, ভারত স্বাধীনতা লাভের পর নতুন সরকারের সামনে অন্যতম প্রধান এজেন্ডা ছিল ভূমি সংস্কার। দুঃখজনক ব্যাপার হলো, রাজনীতিবিদেরাযারা ছিল উচ্চবিত্তের লোক, ভূস্বামীতারা সেটা নস্যাৎ করে দিয়েছে। তারা আইনি ব্যবস্থায় এতসব শর্ত জুড়ে দিয়েছিল যে, কার্যত কোনো ধরনের পুনঃবণ্টন হয়নি। তারপর, ১৯৭০এর দশকে, নক্সালি আন্দোলন শুরুর পরপরই, যখন জনগণ প্রথমবারের মতো জেগে ওঠে, আন্দোলনের কথা ছিল ‘লাঙল যার, জমি তার।’ সেনাবাহিনী তলব করে আন্দোলন গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়। বিস্তারিত »

দেশের জনগণ নয়, ভারতের স্বার্থই যেখানে মুখ্য

শাহাদত হোসেন বাচ্চু (খুলনা থেকে)

coal power-1কৃষি ও মাছ চাষের স্বর্গভূমি রামপাল, উপকূলের রক্ষা কবচ একক বৃহত্তর ম্যানগ্রোভ সুন্দরবনের ভয়াবহ প্রতিবেশগত সংকটাপন্নতা, সর্বোপরি আড়াই হাজার পরিবারের ভিটামাটি থেকে উচ্ছেদ হওয়া কোন কিছুই বিবেচনায় নিতে রাজী নয় সরকার। কয়লাভিত্তিক বিুদ্যৎ কেন্দ্র নির্মাণে সরকারের অনড় অবস্থান রাষ্ট্রজনগনের সকল স্বার্থের বিপরীতে দাঁড়িয়ে গেছে। সরকার এ বিষয়ে এতোটাই স্পর্শকাতর হয়ে উঠেছে যে, ভারতের বিদ্যুৎ সচিব উমা শংকর’র রামপাল সফরের আগের দিন ২৯ জানুয়ারি চুলকাঠিতে তেলগ্যাসখনিজ সম্পদ ও বিুদ্যৎবন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটি এবং স্থানীয় জনগণের প্রতিবাদ সমাবেশ পুলিশী হামলায় পন্ড হয়ে যায়। সমাবেশকারীরা জানান, পুলিশের নির্দয় লাঠিচার্জে ১৬ জন আহত হয়। বিস্তারিত »