Home » মতামত (page 10)

মতামত

শঙ্কা-উৎকণ্ঠায় ব্যবসায়ীরা

আমাদের বুধবার প্রতিবেদন

dis 4রাজনৈতিক অস্থিরতায় আবারও আতঙ্কে পড়েছেন ব্যবসায়ী ও শিল্প উদ্যোক্তারা। একদিকে বিরোধী দলীয় জোটের দেয়া কঠোর আন্দোলনের শঙ্কা, অন্যদিকে সরকারের অনমনীয় মনোভাব। সরকার ও বিরোধী দলের কর্মসূচি রাজনৈতিক মাঠ যখন উত্তপ্ত হওয়ার আশঙ্কা,তখন সে আশঙ্কা ও উৎকণ্ঠা ছড়িয়ে পড়েছে দেশের ব্যবসায়ীদের মধ্যে। ব্যবসায়ীদের মতে, সরকারের অনমনীয় মনোভাবে বিরোধী দলের ডাকা কঠোর থেকে কঠোর আন্দোলনে নেতিবাচক প্রভাব পড়বে দেশের অর্থনীতি ও ব্যবসাবাণিজ্যে। বাধাগ্রস্ত হবে আমদানিরফতানি, ব্যবসাবাণিজ্য ও শিল্প কারখানার উৎপাদনসহ ব্যাংকিং লেনদেনও। ক্ষতিগ্রস্থ হবে ব্যবসায়ী ও শিল্প উদ্যোক্তাসহ সব নাগরিক। বিস্তারিত »

রাজনৈতিক সঙ্কট :: মূল কারণ অন্যত্র

বিদ্যমান সহিংস রাজনৈতিক পরিস্থিতির কারণ বিশ্লেষণ করেছেন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা ড. আকবর আলি খান এবং ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, গবেষক আফসান চৌধুরী।

. আকবর আলি খান

bisleson 1বর্তমান রাজনৈতিক সঙ্কটের পর্যালোচনা করতে হলে বাংলাদেশের সাম্প্রতিককালের ইতিহাস বিশ্লেষণ করতে হবে। এ দেশে রাজনৈতিক সহিংসতা শুরু হয়েছে স্বাধীনতার পর থেকেই। এরপরে বঙ্গবন্ধু, মরহুম জিয়াউর রহমান এসব বড় বড় হত্যাকান্ড ঘটেছে এবং এই ঘটনাগুলো ঘটার ফলে দুই দলের মধ্যকার বিভক্তি প্রকট আকার ধারণ করেছে। রাজনীতির বিভক্তির প্রেক্ষাপটে দু’দলই ক্ষমতায় আসতে চায়। এই যে ক্ষমতার লড়াই এবং তিক্ততা মিলেই দ্বান্দ্বিক রাজনীতির সৃষ্টি হয়েছে।

১৯৯০ থেকে যে ধারা আমরা পেয়েছিলাম তাতে আবারও ব্যতিক্রম হয়েছে। আবার ’৯০এর আগের যে পরিস্থিতি সেখানেই আমরা ফিরে গেছি, অর্থাৎ যেখানে যেনতেন নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। মনে রাখতে হবে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার জন্য নির্বাচনই যথেষ্ট নয়। বিস্তারিত »

গেলো বছরটিতে কেমন ছিলেন নারীরা?

খুজিস্তা নূর ই নাহরীন মুন্নি

dis 5বাংলাদেশে বাড়ছে যৌন সন্ত্রাস,বাড়ছে ধর্ষণ সেই সাথে বাড়ছে নারীর ক্ষমতায়ন। তাহলে নারীর ক্ষমতায়ন কি করে সম্ভব? তার অর্থ, যৌন সন্ত্রাস আর ধর্ষণ যে ভাবে বাড়ছে নারীর ক্ষমতায়ন সে ভাবে হচ্ছে না বা বাড়ছে না। কারণ নারীরা ক্ষমতায়িত হওয়ার সাথে সাথে যৌন সন্ত্রাস আর ধর্ষণের বিলুপ্ত হওয়ার কথা ছিল, নিদেন পক্ষে কমার কথা ছিল। কিন্তু বাস্তবচিত্র ভিন্ন যদিও আমাদের দেশের প্রধান মন্ত্রী, সংসদে বিরোধী দলীয় নেত্রী এবং সংসদের বাইরে থাকা অপর এক বড় দলের নেত্রী তিন জনই নারী। কিন্তু বর্তমানে তিন জন গুরুত্বপূর্ণ নারী নেত্রীই ক্ষমতায় এসেছেন পুরুষতান্ত্রিকতার ধারাবাহিকতায় পরিবারতন্ত্রের হাত ধরে। দেশের শীর্ষপদে নারী থাকা মানেই নারীর অধিকার সমাজে নিশ্চিত হচ্ছে এমনটি ভাবার কোন অবকাশ নেই। বিস্তারিত »

সুন্দরবন ধ্বংসের সমন্বিত উদ্যোগ কার স্বার্থে?

শাহাদত হোসেন বাচ্চু

last 1জলে কুমীরসহ জলজ সকল প্রাণী আর ডাঙ্গার মানুষকেউই এখন আর নিরাপদ নয়। দক্ষিণ, দক্ষিণপশ্চিমের রক্ষাকবজ সুন্দরবনের ওপর ভর করা পরিবেশপ্রতিবেশ এবং প্রাণীকূলকে ধ্বংস করে ফেলার আয়োজন চলছে। দামামা বাজছে যেন, জলজ, বনজ, ডাঙ্গার কোন প্রাণী নিরাপদ থাকবে না। সুন্দরবন সন্নিহিত উপকূলবাসীর এখন প্রশ্ন একটাই সুন্দরবনকে ধ্বংস করার মত ঝুঁকি সরকার নিচ্ছে কেন? বড় বড় উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে গিয়ে একটি বিশ্ব ঐতিহ্য ও পৃথিবীর একক বৃহত্তম ম্যানগ্রোভ কেন এভাবে ধ্বংসের মুখে ঠেলে দেয়া হচ্ছে। রামপালে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মান শুরু করার পরে পাথরঘাটায় জাহাজভাঙ্গা শিল্প স্থাপনের সিদ্ধান্ত নিয়ে সরকার ম্যানগ্রোভ সুন্দরবন ধ্বংসের কফিনে একটির পরে একটি পেরেক ঠুকে দিচ্ছে। বিস্তারিত »

মুক্তিযুদ্ধে বামপন্থীদের ভূমিকা :: চিরুলিয়া-বিষ্ণুপুর অঞ্চল

শাহাদত হোসেন বাচ্চু

last 3৭১এর মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে মুজিবনগর সরকারের কর্তৃত্বের বাইরে দেশের অভ্যন্তরে বেশ কিছু অঞ্চলে সশস্ত্র প্রতিরোধ গড়ে উঠেছিল। গেরিলা বাহিনী গঠন ও ঘাঁটি স্থাপন করে তাঁরা ক্রমাগত যুদ্ধ চালিয়ে গেছেন। মতাদর্শগত পার্থক্য থাকায় মুজিবনগর সরকারের সাথে এসব বাহিনীর কোন সম্পর্ক ছিল না। এসব বাহিনীর সকলেই বিশ্বাস করতেন, তাঁরা একটি দীর্ঘস্থায়ী জনযুদ্ধে লিপ্ত রয়েছেন এবং জনগনের সমর্থন ও সক্রিয় অংশগ্রহনের মাধ্যমে রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক মুক্তি লাভ করা সম্ভর হবে। বামপ্রগতিশীল রাজনৈতিক ধারার এ সকল নেতা ও কর্মীরা বিশ্বাস করতেন, সাম্রাজ্যবাদ ও ঔপনিবেশিকতার বিরুদ্ধে সংগঠিত এই দীর্ঘস্থায়ী সশস্ত্র সংগ্রামে কেবলমাত্র জনগনই তাদের বন্ধু হতে পারেন।

রাষ্ট্রযন্ত্র বা বাইরের কোন সহায়তা ছাড়া দেশের ভেতরে থেকে এরকম গেরিলা যুদ্ধ চালিয়ে যাওয়া সুকঠিন একটি কাজ হলেও দেশের কয়েকটি অঞ্চলে তাঁরা এই যুদ্ধ শেষ অবধি চালিয়ে যান। বিস্তারিত »

সুন্দরবনের মহাবিপর্যয় :: সরকারের নিস্ক্রিয়তা

কল্লোল মোস্তফা, জয়মণি, সুন্দরবন।

1111111111

ছবি: রাবারের বুম দিয়ে ঘিরে রাখা উদ্ধারকৃত তেলের ট্যাংকার

তেল বিপর্যয় শুরুর পর থেকে অনেকগুলো জোয়ার ভাটা পার করেছে সুন্দরবন। জোয়ারের সময় পানি সুন্দরবনের যতদূর ভেতরে প্রবেশ করে, শেলা নদী থেকে পশুর, বলেশ্বর নদী ও অসংখ্য খালের মাধ্যমে ভারী বিষাক্ত ফার্নেস তেল ততদূর প্রবেশ করেছে। দুর্ঘটনা কবলিত তেলের ট্যাংকার সাউদার্ন স্টার৭ কে উদ্ধার করার পর চাদপাই রেঞ্জের ঘাটে এখন যেভাবে রাবারের ভাসমান বুম দিয়ে ঘিরে রাখা হয়েছে, ৯ ডিসেম্বর ট্যাংকার দুর্ঘটনার সাথে সাথে যদি তা করা হতো তাহলে এই তেল সুন্দরবনের এত বিস্তৃত এলাকায় ছড়ানোর সুযোগ পেত না, ভারী ফার্নেস তেলকে দুর্ঘটনাস্থলেই আটকে রেখে সহজে নি:সরণ করা যেত। এখন বিষাক্ত পলিসাইক্লিক অ্যারোমেটিক হাইড্রোকার্বন সমৃদ্ধ হেভি ফুয়েল ওয়েল(এইচএফও)বা ফার্নেস অয়েল নদী পথে গোটা সুন্দরবন ছড়িয়ে পড়েছে, শত শত খাল হয়ে সুন্দরবনের দূরতম প্রান্ত পর্যন্ত ছড়িয়ে গেছে। বিস্তারিত »

ফুলবাড়ী, সুন্দরবন ও বঙ্গোপসাগর

আনু মুহাম্মদ

last 1বিদ্যূৎ ও জ্বালানি সংকট নিরসনের নামে সরকার বারবার যেসব পথ গ্রহণ করছে সেগুলো দেশের জন্য সর্বনাশা পথ। ফুলবাড়ী, সুন্দরবন, বঙ্গোপসাগর পড়ছে হুমকির মুখে। সুন্দরবনকৃষিজমিশহর ধবংসী রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্র; ফুলবাড়িবড়পুকুরিয়ার উন্মুক্ত খনির চক্রান্ত অব্যাহত রাখা; বঙ্গোপসাগরের গ্যাস ব্লক একতরফা অধিকতর সুবিধা দিয়ে বিদেশি কোম্পানির কাছে ইজারা দেবার জন্য পিএসসি ২০১২ সংশোধন ও পরে তাড়াহুড়া করে আকর্ষণীয় প্যাকেজ দেবার জন্য পিএসসি ২০১৫ প্রণয়ন; কুইক রেন্টালের নামে ১৪ থেকে ১৭ টাকা কিংবা তারও বেশি দরে বিদ্যুৎ ক্রয়; কোন প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা তৈরি না করে, প্রয়োজনীয় সমীক্ষা না করে রূপপুরে বিদেশি কোম্পানি নির্ভর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের উদ্যোগ ইত্যাদি দেশি বিদেশি কতিপয় গোষ্ঠীর মুনাফা ও লুটপাটের ব্যবস্থা করছে, কিন্তু এগুলো দেশের জন্য তৈরি করছে বিভিন্নমুখি বিপদ। বিস্তারিত »