Home » মতামত (page 6)

মতামত

চীন :: পরাশক্তির বিবর্তন (পর্ব – ২৪)

দুর্ভিক্ষ : প্রচারণা ও পর্যালোচনা

আনু মুহাম্মদ

Last 3গত পর্বেই বলেছি উল্লম্ফনের সময় জটিলতা হয়েছিলো, ব্যবস্থাপনার সমস্যা ছিলো, কিছু এলাকায় খাদ্য ঘাটতি হয়ে দুর্ভিক্ষ পরিস্থিতিও সৃষ্টি হয়েছিলো। পাশাপাশি প্রাকৃতিক দুর্যোগও ছিলো। মাও সেতুং নিজেও এই সময়ে ত্রুটিবিচ্যুতির কথা স্বীকার করেছেন। কিন্তু দুর্ভিক্ষ নিয়ে ফুলিয়ে ফাঁপিয়ে মনগড়া পরিসংখ্যান দিয়ে যেভাবে প্রচার চালানো হয় তাতে প্রকৃত চিত্র পাওয়া যায় না। এসব প্রচারণা অনেক সময় এই পর্যন্ত যায় যে, মাও সেতুং নিজেই এসব হত্যাকাণ্ডের পেছনে ছিলেন! তিনি চেয়েছিলেন এভাবে মানুষ মরুক, তাহলে উন্নয়নের সুবিধা হবে!!

মাও সেতুংএর বিরুদ্ধে বিশ্বজুড়ে সমালোচনা ও কুৎসার বড় ক্ষেত্র দুটি। এর মধ্যে একটি হলো Great Leap Forward বা উল্লম্ফন এবং আরেকটি হলো সাংস্কৃতিক বিপ্লব। বিস্তারিত »

তথ্য প্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারা বাতিলের দাবী যে কারণে

আমীর খসরু

Coverবাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার পরে সংবিধান প্রণেতারা সংবিধানে মানুষের বাকব্যক্তি স্বাধীনতার বিষয়গুলোসহ সামগ্রিক মৌলিক অধিকারের যতোটুকু সম্ভব তা সযত্নে লিপিবদ্ধ করেছিলেন। আর তা করা হয়েছিল মুক্তিযুদ্ধের মৌলচেতনাজাত গণতান্ত্রিক সমাজ প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে। এই বিষয়গুলো সন্নিবেশিত করা হয়েছিল এই কারণে যে, সংবিধান প্রণেতারা ভেবেছিলেন দেশটি গণতান্ত্রিক ভাবধারায় পরিচালিত হবে। কিন্তু স্বল্পকালেই সে পথ থেকে তৎকালীন সরকার দূরে সরতে থাকে এবং স্বাধীনতার অব্যবহিত পরেই জরুরি অবস্থা জারির বিধানসহ কতিপয় নিবর্তনমূলক আইন প্রবর্তন (২২ সেপ্টেম্বর ১৯৭৩), বিশেষ ক্ষমতা আইন (ফেব্রুয়ারি ১৯৭৪) জারি করা হয়। বিস্তারিত »

‘সব সময় টেনশনে থাকি’

আমাদের বুধবার প্রতিবেদন

Dis 3ক্ষমতাসীন দল ও এর অঙ্গসংগঠনের মধ্যেকার অর্ন্তদ্বন্দ্ব এবং অন্যান্য কারণে বেশ কয়েকজন নিহত হওয়া, ঘরের ভেতরে ঢুকে ব্লগার হত্যাসহ এ বছরেই চার জন ব্লগার হত্যা, বেশ কয়েকজন শিশুকিশোরকে পাশবিক নির্যাতনে নিহত করা, অনেক নারী ধর্ষণ ও যৌন সন্ত্রাসের ঘটনা এবং হত্যাকাণ্ড, সহিংসতার বিস্তার সাধারণ মানুষকে উদ্বিগ্ন করে তুলেছে। সামগ্রিকভাবে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতিতে সাধারণ মানুষ বিপন্ন এবং শঙ্কিত। তারা আরও ভীত হয়ে পড়েছেন এই কারণে যে, প্রত্যাশিত আইনের শাসনের অনুপস্থিতি, বিচারহীনতার সংস্কৃতি বিরাজমান থাকায় দায়মুক্তির একটি সংস্কৃতি সমাজে সৃষ্টি হয়েছে যা মানুষকে নিরাপত্তাহীনতায় ফেলেছে। এ ব্যাপারে সমাজের বিভিন্নস্তরের প্রতিক্রিয়া জানতে চাওয়ায় অনেকেই এড়িয়ে গেছেন সঙ্গত কারণেই। তারপরেও কয়েকজন তাদের প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন। বিস্তারিত »

চীন :: পরাশক্তির বিবর্তন (পর্ব – ২২)

অর্থনীতির নতুন গতি

আনু মুহাম্মদ

Last 2সমাজ ও অর্থনীতির গুরুত্বপূর্ণ সংস্কারের পাশাপাশি বিশাল দেশে পরিবহণ ও যোগাযোগ ব্যবস্থার পুনর্গঠন এবং অর্থনীতির ব্যবস্থাপনা গতিশীল করার জন্য ১৯৫২ পর্যন্ত অনেকগুলো ব্যবস্থা নেয়া হয়, যার ধারাবাহিকতা পরেও অব্যাহত থাকে। চীনের কেন্দ্রীয় ব্যাংক ‘পিপলস ব্যাংক অব চায়না’র কর্তৃত্বে পুরো ব্যাংক ব্যবস্থা জাতীয়করণ করা হয়। উচ্চ মুদ্রাস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ করতে মুদ্রাব্যবস্থা একীভূত করা হয়, ঋণ সংকোচন করা হয়, সরকারি ব্যয় কঠোর নিরীক্ষার মধ্যে আনা হয় এবং মুদ্রামান অক্ষণ্ন রাখবার বিষয়ে গুরুত্ব দেয়া হয়। আন্তর্জাতিক ও দেশিয় বাণিজ্য সম্প্রসারণে বিভিন্ন উদ্যোগ নেয়া হয় যার মধ্যে রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠান গঠন অন্যতম। বিস্তারিত »

বিচারহীনতার অপসংস্কৃতির কারণেই অপরাধীরা পার পেয়ে যাচ্ছে :: ড. মিজানুর রহমান

আমাদের বুধবার প্রতিবেদন

Protikriaব্লগার ও শিশু হত্যাসহ সামগ্রিকভাবে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির ব্যাপক অবনতি লক্ষ্য করা যাচ্ছে। এরই প্রেক্ষাপটে জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের প্রধান ড. মিজানুর রহমান এক প্রতিক্রিয়ায় বলেন, আইনের শাসনের অবস্থান বড় দুর্বল এবং বিচারহীনতার অপসংস্কৃতি আমাদের দেশে চেপে বসেছে। এই কারণেই আমরা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে তাদের যথাযথ ভূমিকায় দেখতে পাচ্ছি না। আর এর সুযোগেই অপরাধীরা নানা অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডকরে বেড়াচ্ছে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাবাহিনী নানাভাবে প্রভাবিত হচ্ছে এবং এই প্রভাবকে দুর্নীতি হিসেবেও আখ্যায়িত করা যায়। তাদের প্রভাবিত করা হচ্ছে কখনো অর্থের, কখনো পেশাশক্তির দ্বারা এবং কখনো রাজনৈতিক শক্তির মাধ্যমে। এ কারণেই অপরাধীরা পার পেয়ে যাচ্ছে। বিস্তারিত »

ফিরে দেখা আনবিক বোমার বর্বরতা :: হিরোশিমা-নাগাসাকি

হায়দার আকবর খান রনো

Last  1আজ থেকে সত্তর বছর আগে ১৯৪৫ সালের ৬ ও ৯ আগস্ট মার্কিন প্রশাসন জাপানের হিরোশিমা ও নাগাসাকিতে এটম বোমা নিক্ষেপ করে তাৎক্ষণিকভাবে ৩ লাখ ৪০ হাজার মানুষকে হত্যা করেছিল। আনবিক তেজষ্ক্রিয়ার কারণে পরে আরও অনেকে মারা যান। পরবর্তী এক দশক ধরে একই কারণে জাপানে অনেক বিকলাঙ্গ শিশু জন্মগ্রহণ করেছিল। মানবতার বিরুদ্ধে বিশ্ব ইতিহাসে এত বড় জঘন্য অপরাধ খুব কমই আছে। ইতিহাস সচেতন যে কোন সৎ ব্যক্তি স্বীকার করবেন যে, মানব ইতিহাসে সবচেয়ে বর্বর, সবচেয়ে নৃশংস মানবতাবিরোধী অপরাধ সংঘটিত হয়েছিল তিনটি এক, শ্বেতাঙ্গ কর্তৃক আমেরিকা মহাদেশে একটি জাতিকে পুরো নিশ্চিহ্ন করে দেয়া অর্থাৎ রেড ইন্ডিয়ান হত্যা, দুই, আফ্রিকা থেকে কালো মানুষ শিকার করে দাস ব্যবসা এবং আধুনিক যুগে আমেরিকায় দাস প্রথা নতুন করে প্রবর্তন, তিন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র কর্তৃক এটম বোমা নিক্ষেপ। বিস্তারিত »

বামপন্থী রাজনীতির অবস্থা প্রসঙ্গে :: আহমদ ছফা

বাংলাদেশের রাজনীতিতে বামপন্থীদের কোনো অবস্থান না থাকার কারণে বেবাক রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড দক্ষিণপন্থী কক্ষ পথে ঢুকে পড়েছে। এই দুষ্টচক্রের ভেতর থেকে রাজনীতিকে টেনে বের করতে না পারার কারণে গোটা রাজনীতিটাই পচে উঠেছে

Last 2সুবিধাবাদী, আপোষকামী, লাভালাভ বিবেচনায় নীতিবদল এবং এ কারণে মিথ্যাকে সত্য বলে বয়ান করার মানসিকতার একেবারেই বিপক্ষ দলের একজন মানুষ ছিলেন আহমদ ছফা। সত্যকে সত্য বলার, ন্যায়অন্যায় বিবেচনার সূক্ষ্ম বোধবুদ্ধিসম্পন্ন একজন বিরল মানুষ ছিলেন তিনি। সব সময়ই স্পষ্ট এবং অপ্রিয় কথাগুলো তিনি বলতেন নির্দ্ধিধায়, ভয়ভীতিহীনভাবে। দেশ এবং সাধারণ মানুষের প্রতি অসীম ভালোবাসার কারণে রাষ্ট্র ও সমাজের অবিচার, অনাচার এবং বুদ্ধিজীবী নামধারী চাটুকারদের বিরুদ্ধে রুখে দাড়ানো, প্রতিবাদ করার সক্ষমতা, দৃঢ়তা এবং ঋজু চরিত্রের অধিকারী ছিলেন বলেই তিনি হয়ে উঠেছিলেন তার সময়কালের হাতেগোনা দু’চারজনের মধ্যে সবচেয়ে অগ্রগামী। তাঁর জন্ম ১৯৪৩ সালের ৩০ জুন, আর প্রয়ান ২০০১ সালের ২৮ জুলাই। মহান, কৃর্তিমান ও সাহসী আহমদ ছফা’র প্রতি আমাদের অসীম শ্রদ্ধা। এই শ্রদ্ধা জানানোর উদ্দেশ্যেই তার লিখিত প্রাচ্যবিদ্যা প্রকাশনীর ‘সাম্প্রতিক বিবেচনা বুদ্ধিবৃত্তির নতুন বিন্যাস’ বইয়ের অংশ বিশেষ পুনঃপ্রকাশিত হলো।।

সম্পাদক

বাংলাদেশী রাজনীতি সংস্কৃতির যা কিছু উজ্জ্বল অংশ তার সিংহভাগই বামপন্থী রাজনীতির অবদান। ভাষা আন্দোলনের পরবর্তী সময়ে বামপন্থী রাজনীতির উত্তাপ থেকেই বাঙালি সংস্কৃতির নবজন্ম ঘটেছে। বিস্তারিত »