Home » মতামত (page 8)

মতামত

বিস্মৃত বীরেরা (শেষ পর্ব)

last 5(বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে বিস্তর লেখালেখি হলেও তার অধিকাংশই যতো না বস্তুনিষ্ঠ তার চেয়ে অনেক বেশি আবেগাক্রান্ত এবং পক্ষপাতদুষ্ট। ইতিহাসের সঠিক অনুসন্ধান এবং ঘটনার পাত্রপাত্রীদের সঠিক ভূমিকা মূল্যায়ন ও বিচার বিশ্লেষণভিত্তিক লেখা খুবই কম হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের পেনসিলভেনিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ডেভিড লুডেন নির্মোহ দৃষ্টিতে ইতিহাস সম্মত বিশ্লেষণে ‘ফরগটেন হিরোস’ শিরোনামে একটি লেখা লিখেছেন যাতে যে ঐতিহাসিক ঘটনাবলী পাকিস্তানের বিরুদ্ধে বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা প্রেক্ষাপট তৈরিকে অনিবার্য করে তুলেছিল, সে সব বিষয়গুলো তুলে ধরা হয়েছে। আর এটি ছাপা হয়েছিল ফ্রন্টলাইন ম্যাগাজিনের ২০০৩ সালে জুলাইআগস্ট সংখ্যায়। লেখাটির শেষ পর্ব প্রকাশিত হলো।) বিস্তারিত »

চীন :: পরাশক্তির বিবর্তন (পর্ব – ১২)

লাল অঞ্চলের খোঁজে এডগার স্নো

আনু মুহাম্মদ

last 2১৬ অক্টোবর ১৯৩৪ থেকে শুরু হয়ে ২২ অক্টোবর ১৯৩৫ পর্যন্ত চীনা কমিউনিস্ট পার্টির লাল ফৌজের যে লংমার্চ কর্মসূচি চলে তা সারাবিশ্বের বিপ্লবী আন্দোলনের জন্যই এক অনন্য অভিজ্ঞতা। কিন্তু প্রকৃতপক্ষে এই লংমার্চ পরিকল্পনা নেয়া হয়েছিলো পশ্চাদপসরণের কৌশল হিসেবে, এর মধ্য দিয়েই উদ্ভাবিত হয়েছিলো নতুন এক পদ্ধতি। চিয়াং কাই শেক এর বিশাল সেনাবাহিনীর উপর্যুপরি আক্রমণে পরাজিত বিপর্যস্ত হয়ে পার্টি বাহিনী যখন পশ্চাদপসরণ করছে, তার এক পর্যায়ে চীনের পশ্চিম ও উত্তর দিকে এই পশ্চাদপসরণকে নতুন অঞ্চল আবিষ্কার, নতুন জনপদের সঙ্গে সম্পর্ক স্থাপন, নতুন নতুন স্থানে মুক্তাঞ্চল বা সোভিয়েত গঠনের কর্মসূচির সাথে যুক্ত করা হয়। মাও সে তুং, চু তে এবং চৌ এন লাইএর নেতৃত্বে ৩৭০ দিনে লং মার্চ অতিক্রম করে ৬ হাজার মাইলেরও বেশি। কয়েকটি ভাগে যাত্রা অব্যাহত থাকে। এই যাত্রাপথে বেশ কয়েকবার চিয়াং বাহিনীর বড় ধরনের আক্রমণের মুখোমুখি হতে হয়েছে বিপ্লবী বাহিনীকে।

কখনো কৌশলে কখনও সম্মুখ সমরে চিয়াং বাহিনীকে মোকাবিলা করেছে লাল ফৌজ। হতাহত হয়েছেন অনেকে। বিস্তারিত »

বিস্মৃত বীরেরা (তৃতীয় পর্ব)

last 3(বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে বিস্তর লেখালেখি হলেও তার অধিকাংশই যতো না বস্তুনিষ্ঠ তার চেয়ে অনেক বেশি আবেগাক্রান্ত এবং পক্ষপাতদুষ্ট। ইতিহাসের সঠিক অনুসন্ধান এবং ঘটনার পাত্রপাত্রীদের সঠিক ভূমিকা মূল্যায়ন ও বিচার বিশ্লেষণভিত্তিক লেখা খুবই কম হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের পেনসিলভেনিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ডেভিড লুডেন নির্মোহ দৃষ্টিতে ইতিহাস সম্মত বিশ্লেষণে ‘ফরগটেন হিরোস’ শিরোনামে একটি লেখা লিখেছেন যাতে যে ঐতিহাসিক ঘটনাবলী পাকিস্তানের বিরুদ্ধে বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা এবং প্রেক্ষাপট তৈরিকে অনিবার্য করে তুলেছিল, সে সব বিষয়গুলো তুলে ধরা হয়েছে। আর এটি ছাপা হয়েছিল ফ্রন্টলাইন ম্যাগাজিনের ২০০৩ সালে জুলাইআগস্ট সংখ্যায়। লেখাটি এখনো প্রাসঙ্গিক বিবেচনায় তার বাংলা অনুবাদ তিন পর্বে ছাপা হওয়ার কথা থাকলেও, শেষ পর্যন্ত এটি চার পর্বে ছাপা হচ্ছে। এবারে ছাপা হলো তৃতীয় পর্ব।) বিস্তারিত »

রাজনৈতিক সঙ্কট ও সিটি করপোরেশন নির্বাচন :: আশা-নিরাশার দোলাচল

. তোফায়েল আহমেদ

last 1দেশের প্রধান দুটি মহানগরের তিনটি সিটি করপোরেশনের নির্বাচন ঘোষিত হয়েছে। এ নির্বাচন দেশের সঙ্কটাপন্ন রাজনৈতিক অঙ্গনে নানামুখী প্রশ্নের জন্ম দিয়েছে। অবস্থা দেখে মনে হচ্ছে, শেষ পর্যন্ত নির্বাচন চলমান সঙ্কটের মোড় পরিবর্তনকারী ঘটনা হিসেবে আবির্ভূত হতে পারে। তা দু’ভাবেই হতে পারে। এক, সঙ্কটকে আরও তীব্রতা দিতে পারে। দুই, সঙ্কট থেকে উত্তরণের সুযোগের জানালা হিসাবেও আবির্ভূত হতে পারে। দুটো সম্ভাবনাই এখন পর্যন্ত সমানভাবে সম্ভাবনাময়। আরও একটি সপ্তাহ অতিক্রান্ত হলে এপ্রিলের প্রথম সপ্তাহে একটি স্বচ্ছ চিত্র ফুটে উঠতে পারে। বিস্তারিত »

জনগণ নির্লীপ্ত, নিরুদ্বিগ্ন নয়

ফারুক আহমেদ

dis 6কোন কিছুর বিষয়ে নির্লীপ্ততা বলতে অনাগ্রহ এবং এক ধরণের স¤পর্কহীনতাকেই বোঝায়। বর্তমানে বাংলাদেশের জনগণের জীবন যে পরিস্থিতি এবং সংকটের মধ্য দিয়ে পার হচ্ছে তা বিচারবিশ্লেষণ করলে আপাতঃ দৃষ্টিতে জনগণকে নির্লীপ্ত বলেই মনে হবে। কিন্তু নিত্যদিন সে যে পরিস্থিতির মোকাবেলা করছে সেই নিরিখে দেখলে নির্লীপ্ত না বলে উপায়বিহীন বলেই মনে হবে। বর্তমানে ক্ষমতসীনরা যে পরিস্থিতি সৃষ্টি করেছে তাতে তাদের কেউই আক্রান্ত নয় এবং ক্ষমতাসীনদের প্রতিদ্বন্দ্বীরা এর উপরে দাড়িয়ে ক্ষমতায় যেতে চাইছে। এ অবস্থায় প্রকৃত অর্থে ক্ষতিগ্রস্ত ও আক্রান্ত হচ্ছে জনগণ। আবার জনগণের আক্রান্ত হওয়াকেই পুঁজি করে তাদের কর্মকান্ড চলছে। বিস্তারিত »

মেধা পাচার এবং অর্থবিত্তের রাজনীতি

ফারুক আহমেদ

dis 5রাজনীতি যখন অর্থবিত্ত অর্জনের প্রধান উপায়ে পরিণত হয় তখন অর্থবিত্ত অর্জনই সমাজের সকল পেশা, শিক্ষাসংষ্কৃতিসহ সব কর্মকাণ্ডের কেন্দ্রীয় লক্ষ্যে পরিণত হয়। রাজনীতি কোন না কোন শ্রেণীর প্রতিনিধিত্ব করে। বাংলাদেশে সাধারণ মানুষের রাজনীতি চলছে না। এ কারণেই স্বাধীনতার পর ৪৪ বছরে হাজার হাজার কোটিপতির সৃষ্টি হলেও এখানে উৎপাদনের সাথে সম্পর্কিত ধনিক শ্রেণী তৈরী হয়নি, বিদেশী ঋণ নির্ভর আর কর্পোরেটদের উচ্ছিষ্টভোগী ফাটকা ধনিক শ্রেণীর সৃষ্টি হয়েছে এবং জন্ম নিয়েছে নির্ভরশীল একটি পুঁজিপতি শ্রেণীর। ফলে শাসকদলগুলোর রাজনীতিই কোটিপতি তৈরীর কারখানায় পরিণত হয়েছে। বিস্তারিত »

অব্যাহত মানবাধিকার লংঘনের শেষ কোথায়?

এম. জাকির হোসেন খান

dis 2দ্যাশে তো আইনকানুন আছে। অপরাধ করলে তার শান্তি হইবে। তাই বইল্লা কি বিচার ছাড়াই পুলিশ একটা মানুষ মাইরা হালাইবে। এহন মুই দুইডা নাতি ও পোলার বউ লইয়া কই যামু। ওরে আল্লারে, আমার টিপুরে ফিরাইয়া দেও’। এভাবেই বিচারবহির্ভূত হত্যাকান্ডের শিকার এক সন্তানের জন্য এক মায়ের নিরন্তর আর্তি প্রকাশ। বিভিন্ন মানবাধিকার সংগঠন এবং মিডিয়ার প্রতিবেদন অনুসারে, গত ৭১ দিনে বিরোধী জোটের লাগাতার অবরোধ ও হরতাল চলাকালে সহিংসতা এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কথিত ‘ক্রসফায়ার’ ও ‘বিচারবহির্ভূত হত্যাকান্ডের’ শিকার হয়েছে প্রায় ১৩০ জন। আঞ্জুমানে মফিদুল ইসলামের তথ্য মতে, শুধুমাত্র ২০১৫ সালের জানুয়ারিতে ৭৪টি লাশ বেওয়ারিশ হিসেবে দাফন করা হয়। বিস্তারিত »