Home » রাজনীতি (page 15)

রাজনীতি

ধর্মনিরপেক্ষতা যখন শাসকবর্গের হাতিয়ার

আমীর খসরু ও শাহাদত হোসেন বাচ্চু

Last-1প্রসঙ্গটি নতুন নয়। ধর্মের রাজনৈতিক ব্যবহার এবং বিভাজনের রাজনীতির শুরুতেই প্রসঙ্গটি ছিল নাস্তিকতাবাদ বা নাস্তিক। পাকিস্তান ও বাংলাদেশ আমলে কমিউনিষ্ট ঘরানার রাজনীতির সাথে যুক্তদের নাস্তিক হিসেবে অভিহিত করা হতো। পাকিস্তানের শাসকশ্রেনীর বিরুদ্ধে প্রতিবাদী যে কাউকেই তাৎক্ষণিক নাস্তিক হিসেবে চিহ্নিত করা হতো। প্রগতিশীল যে কোন মানুষকে সহজেই এই অভিধায় অভিষিক্ত করা যেত। যেমন বাঙালীদের কাফের হিসেবে আখ্যায়িত করে ‘৭১এ নিষ্ঠুর গণহত্যা চালানো হয়। সুতরাং শুরু থেকেই নাস্তিক শব্দটি ব্যবহৃত হয়েছে ধর্মাশ্রয়ী রাজনীতিতে শোষণের মৌল উপাদান হিসেবে। বিস্তারিত »

তাজউদ্দীন আহমদের রাজনৈতিক জীবন (পর্ব – ৩)

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী

Last-3ওই দুই ভুবনের তফাৎটা বাসিন্দাদের নামগুলোর দিকে তাকালে পরিস্কার ভাবে ধরা পড়ে। এঁদের সবার উল্লেখই দিনপঞ্জিতে রয়েছে। ঢাকায় যাঁরা থাকেন এবং আসাযাওয়া করেন তাঁরা হচ্ছেন, কায়েদে আজম মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ, হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী, লিয়াকত আলী খান, খাজা নাজিমুদ্দীন, মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানী, আবুল হাশিম, কমরুদ্দিন আহমদ, আতাউর রহমান খান, কফিলউদ্দিন চৌধুরী, তফাজ্জ্বল আলী, অজিতকুমার গুহ, মোজাফ্ফর আহমদ চৌধুরী, ‘পাকিস্তান অবজারভারে’র সম্পাদক আবদুস সালাম, . পি.সি. চক্রবর্তী, অধ্যাপক আবুল কাসেম, . কাজী মোতাহের হোসেন, তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া, মওলানা আকরাম খান, নূরুল আমিন, শেখ মুজিবুর রহমান, মোহাম্মদ তোয়াহা, মুনীর চৌধুরী, আবদুল মতিন, অলি আহাদ, ডা. এম এ করিম। বিস্তারিত »

প্রথম স্বাধীনতা যুদ্ধ ১৮৫৭ :: পুনঃঅনুসন্ধান (তৃতীয় পর্ব)

হায়দার আকবর খান রনো

Last-4বিদ্রোহীরা বিভিন্ন শহর ও অঞ্চলে যে প্রশাসনিক কাঠামো তৈরি করেছিলেন, তা ভারতের ইতিহাসে নতুনও বটে। কোন একক রাজা নয়, বরং একটা কমিটি বা কাউন্সিলের হাতে প্রশাসনের দায়িত্ব দেয়া হয়েছিল। যেমন দিল্লীতে সিপাহী ও নাগরিক প্রতিনিধি নিয়ে প্রশাসনিক কমিটি গঠিত হয়েছিল। এছাড়াও তাতিয়া তোপী, নানা সাহেব, ঝাসির রাণীর মতো ব্যক্তিদের নেতৃত্বের গুণাবলী, সামরিক দক্ষতা ও দেশপ্রেম তাদের চিরস্মরণীয় করে রেখেছে।

এই মহা বিদ্রোহের আরেকটি বড় বৈশিষ্ট হলো হিন্দু মুসলমান ঐক্য। বিস্তারিত »

সাগরপাড়ির অভিবাসন :: বাংলাদেশ-মিয়ানমার প্রশ্নে থাই সম্মেলন

আমাদের বুধবার প্রতিবেদন

Dis-5নতুন নৌচলাচল মওসুম আসছে। সেইসাথে আবার অভিবাসন সঙ্কট দেখা দেওয়ার শঙ্কা দেখা দিয়েছে। প্রতি বছরই এই সময়টাতে সঙ্কটটি দেখা দেয়। তাই প্রয়োজন স্থায়ী সমাধান। আর সেজন্যই ‘মূল কারণ’ খোঁজা ও সমাধানের জন্য মিয়ানমার ও বাংলাদেশকে নতুন করে চাপ দিয়ে থাইল্যান্ডে শুক্রবার শুরু হচ্ছে শীর্ষ সম্মেলন।

দারিদ্র থেকে পলায়মান বাংলাদেশীদের সাথে সাম্প্রতিক বছরগুলোতে ক্রমবর্ধমান হারে লাখ লাখ রোহিঙ্গা মুসলমান বঙ্গোপসাগরের বিপজ্জনক এবং প্রায়ই প্রাণঘাতী হয়ে ওঠা পথ পাড়ি দেয় মালয়েশিয়া যাওয়ার জন্য। অভিবাসীবোঝাই নৌকাগুলো সাধারণত নভেম্বরে মওসুমি বায়ু শেষ হওয়ার পর যাত্রা শুরু করে। বিস্তারিত »

গার্ডিয়ানের প্রতিবেদন – প্যারিস ঘটনার পর কঠিন পরিস্থিতিতে ব্রিটিশ মুসলমানরা

অনুবাদ : মোহাম্মদ হাসান শরীফ

Dis-4গ্লাসগোর দক্ষিণে বাড়ির কাছে হাঁটার সময় তিনজন মানুষের সামনে পড়ে গেলেন ওমর রাজা। তাকে দেখেই তারা বর্ণবাদী গালিবর্ষণ করতে লাগল। তারা তাকে ‘বজ্জাত পাকি’ বলে গাল দিয়ে ইসলামিক স্টেটকে (আইএস)-এর অর্থদাতা বলেও অভিযুক্ত করল। ‘তিনজনের বিপরীতে আমি ছিলাম একা। তাই পরিস্থিতি শান্ত করতে তাদের থেকে দূরে চলে যাওয়ার চেষ্টা করলাম। কিন্তু হঠাৎ করে পেছন থেকে আক্রান্ত হলাম, ঘাড়টি চেপে ধরল’ রাজাকে লাথি দিয়ে রাস্তায় ফেলে দেওয়া হয়েছিল। তার সাথে যে ব্যাগটি ছিল, সেটি খুলে ভেতরকার সবকিছু ফুটপাতে ছড়িয়ে দেওয়া হলো। তারপর হামলাকারীরা তাড়াতাড়ি কেটে পড়ল। ‘পুরো ঘটনাটাই ঘটল খুবই দ্রুত,’ তিনি গার্ডিয়ানকে বলেন। শুক্রবার ছিল গ্লাসগো সেন্ট্রাল মসজিদের জুমার নামাজের দিন। বিস্তারিত »

পৌরসভা নির্বাচনের নিরপেক্ষতা নিয়ে ঘোরতর সংশয় ॥ ক্ষমতাসীন দলে বাড়ছে অর্ন্তদ্বন্দ্ব

আমাদের বুধবার প্রতিবেদন

Dis-2দলীয় মনোনয়ন ও দলীয় প্রতীকে প্রথমবারের মতো পৌরসভা নির্বাচনে প্রধান প্রধান রাজনৈতিক দলসমূহক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ, এর মহাজোটভুক্ত শরীক জাতীয় পার্টি এবং বিরোধী দল বিএনপি অংশ নিচ্ছে। নির্বাচনে অংশ নেবে কিনা সে প্রশ্নে দোদুল্যমান থাকার পরে শেষ পর্যন্ত বিএনপি নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে শর্তসাপেক্ষে। শর্তগুলোর মধ্যে প্রধানতমটি হচ্ছে, নির্বাচন অনুষ্ঠান ১৫ দিনের জন্য পিছিয়ে দেয়া। এছাড়া দলীয় নেতাকর্মী যারা জেলে আছেন তাদের মুক্তি দেয়ার বিষয়টিও রয়েছে। ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের প্রস্তুতি অনেক দিনের। সে তুলনায় বিএনপির প্রস্তুতি যে খুবই কম তা বলার অপেক্ষা রাখে না। এর উপরে দলীয় নেতাকর্মীদের অনেকেই জেলে আর অনেকেরই মাথার উপরে রয়েছে এক বা একাধিক মামলা। বিস্তারিত »

বিভিন্ন হত্যাকাণ্ড :: সরকারের হাত লম্বা

হায়দার আকবর খান রনো

Dis-1অনেক বিলম্বে হলেও চারজন যুদ্ধাপরাধীর বিচার সম্পন্ন করে প্রানদণ্ড কার্যকর হয়েছে। এ কথা ঠিক যে, বিএনপিজামায়াত জোট ক্ষমতায় থাকলে এই বিচার হতো না। বরং যাদের ফাসি দেয়া হলো তারাই ক্ষমতায় থাকতেন। ১৯৯৬২০০১ সালের আওয়ামী লীগের শাসনামলেও এই বিচারের কোনো উদ্যোগ নেয়া হয়নি। কারণ ১৯৯৫৯৬ সালে আওয়ামী লীগ জামায়াতের সাথেই মৈত্রী স্থাপন করে একত্রে আন্দোলন করেছিল। তাহলে যুদ্ধাপরাধের বিচারের বিষয়টি পুরোপুরি রাজনৈতিক। যে সরকারের যখন যেভাবে সুবিধা হয়, তখন তারা সেভাবে ব্যবহার করেন। বিস্তারিত »