Home » রাজনীতি (page 31)

রাজনীতি

তেলের অর্থ এবং আন্তর্জাতিক অস্ত্র ব্যবসার নেপথ্যে (পঞ্চদশ পর্ব)

কাতার চুক্তি :: পুলিশকে হাত করার চেষ্টা

Last 5অস্ত্র ব্যবসার সাথে তেল সম্পদের অর্থের একটি গভীর সখ্যতা রয়েছে। একটি অপরটিকে টিকিয়ে রাখে। আর পরস্পরের ঘনিষ্ঠ দুই ব্যবসার কুশীলবরা। এই ব্যবসার নেপথ্যে রয়েছে ঘুষ, অর্থ কেলেঙ্কারিসহ নানা ভয়ঙ্কর সব ঘটনাবলী। এরই একটি খণ্ডচিত্র প্রকাশ করা হচ্ছে ধারাবাহিকভাবে। প্রভাবশালী দ্য গার্ডিয়ানএর প্রখ্যাত দুই সাংবাদিক ডেভিড লে এবং রাব ইভানসএর প্রতিবেদন প্রকাশের পরে এ নিয়ে বিস্তর আলোড়ন সৃষ্টি হয়েছিল। এ সংখ্যায় ওই প্রতিবেদনের বাংলা অনুবাদের (পঞ্চদশ পর্ব) প্রকাশিত হলো। অনুবাদ : জগলুল ফারুক বিস্তারিত »

এতো উন্নয়ন হলে কেন জীবনবিনাশী পথে বিদেশ যাত্রা

আমাদের বুধবার প্রতিবেদন

বাংলাদেশের আজকের অর্থনৈতিক অগ্রগতিপ্রবৃদ্ধি যাদের হাত ধরে এসেছে তারা কীভাবে বিদেশে পাড়ি দিয়েছে, তাদের সে অভিজ্ঞতা কখনোই আমরা জানতে চাইনি। সাম্প্রতিক সময়ে সাগরে একের পর এক নৌকা ডুবিতে বাংলাদেশী নিহত ও ইন্দোনেশিয়ামালয়েশিয়ার জঙ্গলে একাধিক কবর স্থানের সন্ধানের পর অভিবাসীদের কষ্টের কিছু গল্প আমরা জানতে পারছি, যা অত্যন্ত বেদনাদায়ক। এটি হিমশৈলের চূড়া মাত্র। বেশি অর্থের আশায় বাংলাদেশ ছাড়ছেন গরিব ও নিম্নবিত্ত জনগণ। ধনীরাও বিদেশ যাচ্ছেন তবে তা অবৈধ অর্থকে বৈধ করার জন্য। এক্ষেত্রে দরিদ্র্যদের অভিজ্ঞতা একেবারেই ভিন্ন। একদিকে বৈধ পথে বিদেশ যাত্রা সম্ভব হচ্ছে না, অন্যদিকে দেশে চাকুরি নেই। বিস্তারিত »

আবার গ্যাস-বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধির মূল রহস্য

বি.ডি.রহমতউল্লাহ্

Dis 4বলা নেই, কওয়া নেই সরকার তার স্বভাবসুলভ পদ্ধতিতে হুট করে বিদ্যুৎ ও গ্যাসের দাম সম্পূর্ণ অনৈতিক ও অযাচিতভাবে বাড়িয়ে দিলো। বাংলাদেশে এখনও প্রায় ৭০% ভাগ বিদ্যুৎ উৎপাদন করা হয় দেশে উৎপাদিত গ্যাস দিয়ে, আর প্রায় ৩০% বিদ্যুৎ উৎপাদন হয় বিদেশ থেকে আমদানীকৃত তরল জ্বালানী তেল দিয়ে। আমাদের দেশে প্রাপ্ত একটি অতি মূল্যবান জাতীয় সম্পদ গ্যাস ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত বিভিন্ন গণবিরোধী সরকারগুলো গ্যাসকূপের প্রায় ৩০% বিদেশী কোম্পানীগুলোকে অসম চুক্তির মাধ্যমে উত্তোলনের জন্য ইতোমধ্যেই দিয়ে দিয়েছে। আর বাকী প্রায় ৭০% গ্যাসকূপ বাংলাদেশ সরকারের বিভিন্ন কোম্পানীর আওতায় পরিচালিত হচ্ছে। বিস্তারিত »

ভারসাম্যহীনতার কারণে সৃষ্ট শূন্যতার বিপদ

আমীর খসরু

Dis 3কার্যক্রম, বাস্তবায়ন ও চর্চা পর্যায়ের অভিজ্ঞতার নিরীখে যতোদিন যাচ্ছে ততোই গণতন্ত্রের ধারণা এবং সংজ্ঞাগত পরিবর্তন ঘটছে। এই পরিবর্তনটি সূচিত হয়েছে রাষ্ট্র ব্যবস্থা অর্থাৎ রাষ্ট্র পরিচালনার ম্যানেজার হিসেবে সরকারটিতে জনঅংশীদারিত্ব কতো বেশি সম্ভব থাকবে তা নিশ্চিত করার লক্ষ্যেই। বহুদিন ধরে এই পর্যায়টি চলছে। ক্ষুদ্র রাষ্ট্র থেকে এ ব্যবস্থাটি যতোই বড় হতে শুরু করে ততোই গণতান্ত্রিক ব্যবস্থার পরিবর্তনপরিবর্ধন সূচিত হয়েছে। গণপ্রতিনিধিত্বশীল শাসন ব্যবস্থা বা রিপ্রেজেন্টেটিভ গভর্নমেন্ট ব্যবস্থা চালুর পর থেকেই জনঅংশীদারিত্বের প্রশ্নটির ক্ষেত্রে নির্বাচন ব্যবস্থাটি বড় আকারে সামনে চলে আসে। বিস্তারিত »

দুর্নীতির বিরুদ্ধে লড়াই :: লি কুয়ান ইউ বনাম আমাদের সরকার

শাহাদত হোসেন বাচ্চু

Dis 2অল্পস্বল্প’ গণতন্ত্রের দেশ বাংলাদেশের শাসকশ্রেনীর একটি প্রিয় উদাহরন হচ্ছে, সিঙ্গাপুরমালয়েশিয়ার উন্নয়ন মডেল। এদেশে শাসকরা এখন আপাতত: গণতন্ত্র ও অংশগ্রহনমূলক নির্বাচন বাদ দিয়ে স্বপ্ন দেখছেন ওরকম মডেলে উন্নয়ন করার জন্য। ভেতরে যাই থাকুক ধামাচাপা দিয়ে বাংলাদেশ এখন বিশ্বব্যাংকের স্বীকৃতিতে নিম্নমধ্য আয়ের দেশ এবং বাগাড়ম্বরে ২০১৯ সালের মধ্যে পরিণত হতে চলেছে মধ্যম আয়ের দেশে। এজন্যই তারা কথায় কথায় উদাহরণ দেন সিঙ্গাপুরমালয়েশিয়ার। সিঙ্গাপুরের শাসক লি কুয়ান ইউ একদলীয় শাসনের মধ্যে দেশকে উন্নয়নের শিখরে তুলে দিয়ে মডেল হয়েছিলেন। বিস্তারিত »

গণতন্ত্রই পারে বিপদের আশঙ্কা এড়াতে

হায়দার আকবর খান রনো

Dis 1মাত্র কয়েকদিন আগেই দলের অভ্যন্তরীণ অবস্থা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করার পর আবার সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম মুখ খুললেন। দলের নেতাকর্মীদের ‘খাই খাই’ ভাবকে সমালোচনা করে এটাকেই তিনি ’৭৫এর মহা বিপর্যয়ের কারণ হিসাবে উল্লেখ করেছিলেন গত ১১ আগস্ট। বঙ্গবন্ধুকে রক্ষা করতে চরম ব্যর্থতার কারণ তিনি খুজেছিলেন নিজ দলের তৎকালীন ক্রিয়াকর্ম ও ব্যর্থতার মধ্যে। এ সম্পর্কে দুই সপ্তাহ আগে আমি আমাদের বুধবারএ আলোচনা করেছিলাম। সেদিন তিনি বলেছিলেন, দ্বিতীয়বার ১৫ আগস্টের মতো ঘটনার পুনরাবৃত্তি হলে কি তার দল কি পারবে সেই রকম পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে? বিস্তারিত »

অধ্যাপক রেহমান সোবহানেরই যখন এই অবস্থা

আমীর খসরু

Coverপ্রবীণ অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক রেহমান সোবহান তার নিজ নতুন বই ফ্রম টু ইকোনমিস টু টু নেশনস : মাই জার্নি টু বাংলাদেশএর প্রকাশনা অনুষ্ঠানে শনিবার পাকিস্তানি সামরিক শাসন আমলে নিজের লেখালেখির কথা উল্লেখ করে বলেন, ‘ওই সব দিনে ফিরে গেলে এটা ভাবি, কিভাবে এসব কথা সেদিন বলতাম। এসব কথা বলার সময় ডানবাম চিন্তা করতাম না। এসব বলতে পারতাম, কারণ এগুলো ছিল মনে কথা। কিন্তু এখন কোনো লেখা লিখতে গেলে এটি প্রকাশের আগে এক সপ্তাহ লেগে যায় এবং ৫ বার পড়তে হয়। স্বাধীন বাংলাদেশের অন্য সবার মতো আমাকে আজকাল প্রতিটি শব্দ ব্যবহার নিয়ে ভাবতে হয়। বিস্তারিত »