Home » মতামত (page 20)

মতামত

সিটি করপোরেশন নির্বাচনের ফলাফল সম্পর্কে ড. আকবর আলি খান এবং অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ-এর বিশ্লেষণ

আমাদের বুধবার প্রতিবেদন

cityআকবর আলি খান

চারটি সিটি করপোরেশন নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে এমন এক সময়, যখন জাতীয় সংসদ নির্বাচন এগিয়ে এসেছে। সুতরাং সবগুলো রাজনৈতিক দলই এই নির্বাচনের আগে থেকেই রণকৌশল নির্ধারণ করে রেখেছিল। সুতরাং তাদের যে বক্তব্য অর্থাৎ হারলেও তাদের বক্তব্য আছে, জিতলেও আছে। তবে প্রকৃত পরিস্থিতির দিকে যদি আমরা তাকাই তাহলে দেখা যাবে যে, বিএনপি চারটি সিটি করপোরেশন নির্বাচনে জয়লাভ করার পরে তাদের মধ্যে নতুন করে রাজনৈতিক উদ্দীপনা সঞ্চারিত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। বিস্তারিত »

নির্বাচনী নয় বাস্তবায়নযোগ্য বাজেট হতে হবে

বিশেষজ্ঞদের অভিমত

আমাদের বুধবার প্রতিবেদন

budget 1আগামী ৬ জুন জাতীয় সংসদে নতুন বাজেট পেশ করা হচ্ছে। অর্থনৈতিক বিশেষজ্ঞ এবং বিশ্লেষকরা সরকারের শেষ বছরের এই বাজেট নিয়ে আশাবাদের চেয়ে হতাশাই ব্যক্ত করেছেন বেশি। সঙ্গে সঙ্গে তারা নির্বাচনকে মাথায় রেখে নয়, বাস্তবায়নযোগ্য একটি বাজেট প্রণয়নের উপরই গুরুত্বারোপ করেছেন।

তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক অর্থ উপদেষ্টা ড. আকবর আলী খান বলেন, ১৬ কোটি মানুষের অতি দারিদ্র্যপীড়িত বাংলাদেশের কাক্ষিত উন্নয়নের জন্য বার্ষিক উন্নয়ন পরিকল্পনা বা এডিপির আকার বর্তমানের চেয়ে অন্তত চারগুণ হওয়া উচিৎ। অথচ বাস্তবতা হচ্ছে, আমরা তার চার ভাগের একভাগের সমান একটি এডিপিও বাস্তবায়ন করতে পারছি না। বিস্তারিত »

বিপর্যস্ত মানুষ – ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরাও বিপাকে

আমাদের বুধবার প্রতিবেদন

unstable-economy-1-নিউমার্কেটের ব্যবসায়ী আবদুস সালাম জানান, ‘আগে যা ব্যবসা করতাম, এখন ব্যবসা তার অর্ধেকে নেমে এসেছে। বেচাকেনা নেই বললেই চলে। আগে মানুষ যে পরিমাণ কিনতো, এখন তার অর্ধেকও কিনে না। অনেকে ধারণা করেন, জিনিসপত্রের দাম বাড়লেই মনে হয় আমাদের ব্যবসা বাড়ে। আসলে এটা ঠিক না। বরং যদি বেশি বেচা বিক্রি হয় তাহলে আমাদের পয়সা উঠে যায় এবং লাভ থাকে। কিন্তু যদি বেচাবিক্রি কম হয়, তাহলে আমাদের খরচা ওঠানোই কষ্ট হয়ে যায়, লাভ তো দূরে থাক। আগে যারা আমার দোকান থেকে নিয়মিত মুদি মালামাল কিনতেন, তাদের অনেককেই এখন আর আমি দেখি না। দুয়েক জনের সঙ্গে রাস্তাঘাটে দেখা হলে তারা বলেন, আমরা এখন মহল্লার দোকান থেকে জিনিসপত্র কিনি। আমরা ব্যবসায়ীরা, দোকানদাররা তখনই বুঝে ফেলি, স্যারদের হাতে পয়সা নাই।’ বিস্তারিত »

ভারতের মূলা বাংলাদেশের সেবা

আনু মুহাম্মদ

carrotগত কয়েকবছর ধরেই আমরা শুনছি, ভারত থেকে ৫০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আসছে। লোডশেডিংএর মধ্যে এই খবরটা প্রচারিত হয় বেশি। এমনি এমনি আসা নয়। ভারতের এনার্জি রেগুলেটরী কমিশন নির্ধারিত দামে, নগদ অর্থে সবরকম শর্ত পালন শেষেই এই বিদ্যুৎ পাবার কথা। তারপরও এই লোডশেডিংএর মধ্যে এরকম খবর শোনার জন্যও মানুষ উন্মুখ হয়ে থাকে। এই খবর আরও জোর পায় যখন ভারত সরকারের কোনো বিশিষ্ট ব্যক্তি এই দেশ সফর করেন তখন। পত্রপত্রিকা টিভি সর্বত্রই এই খবর মানুষ মুগ্ধতার সঙ্গে দেখে, শোনে। সর্বশেষ খবর হলো, অবকাঠামো নির্মাণসহ আরও প্রস্তুতি কাজ বাকি আছে। সেজন্য শীগগিরই বিদ্যুৎ আসছে না। বিস্তারিত »

সংবাদপত্রের অনলাইন জরিপ – এপ্রিল

online-voting-1সংবাদপত্রে প্রকাশিত জরিপ, পূর্ণাঙ্গ জরিপ নয়। তবে এর মধ্যদিয়ে পাঠকদের মনোভাব প্রতিফলিত হয়। এ কারণেই তিনটি সংবাদপত্রের অনলাইন জরিপ প্রকাশ করা হলো।

প্রথম আলো

উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার দিন বিএনপি ও এর মিত্রদের হরতাল স্থগিত রাখা উচিত বলে মনে করেন কি? ভোট দিয়েছেন ৬২৭৭ জন। হ্যাঁ ৬৪, না ৩৪ শতাংশ। (২ এপ্রিল ২০১৩) বিস্তারিত »

ছোট হয়ে আসছে মিডিয়া

মতিউর রহমান চৌধুরী

matiur r chowছোট হয়ে আসছে মিডিয়া। বলছি বাংলাদেশী মিডিয়ার কথা। ইলেকট্রনিক বলুন আর প্রিন্ট বলুন, সবখানেই এক অবস্থা। বন্ধ হয়ে গেছে দুটি টিভি নেটওয়ার্ক। একটি সংবাদপত্র বন্ধ হয়েছে আগেই। চাপের মধ্যে রয়েছে একটি টিভি আর দুটি সংবাদপত্র। বন্ধ হওয়ার প্রক্রিয়া শুরু হয়ে গেছে। টিভির টকশোগুলো ভীষণ চাপের মধ্যে রয়েছে। যে কোন সময় খড়গ নেমে আসতে পারে। নব্বই দশকের পর আর কিছুর উন্নতি না হলেও মিডিয়া এগিয়ে যাচ্ছিলো। প্রশংসিত হচ্ছিলো দেশবিদেশে। এটা অনেকেরই পছন্দ নয়। তাই চাপ বাড়ছে মিডিয়ার ওপর। রাজনীতি অসুস্থ হলে মিডিয়া সুস্থ থাকে কি করে। গুটিয়ে নেয়া হচ্ছে রাজনীতি। কেউ বুঝুন আর না বুঝুন, রাজনীতি চার দেয়ালে বন্দি হতে যাচ্ছে সহসাই। আনুষ্ঠানিক কোন ঘোষণারও দরকার হবে না। বিস্তারিত »

বিদ্যমান অস্থিতিশীলতা নির্বাচনকেন্দ্রিক সঙ্কট – বিশিষ্টজনদের প্রতিক্রিয়া

জাকির হোসেন

violence 3বর্তমান রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতাকে নির্বাচন কেন্দ্রিক একটি সঙ্কট হিসেবে চিহ্নিত করেছেন বিশিষ্ট নাগরিকরা। তারা বলেছেন, নির্বাচনের সময় যতই ঘনিয়ে আসবে এই সঙ্কট ততই তীব্র হবে। এ সঙ্কট থেকে উত্তরণের জন্য সকল রাজনৈতিক দলের অংশগ্রহণের মাধ্যমে একটি অবাধ, সুষ্ঠু এবং গ্রহনযোগ্য নির্বাচন অনুষ্ঠানের ব্যবস্থা করতে হবে। এ জন্য নির্বাচন পদ্ধতির পরিবর্তন জরুরি। তারা বলেন, তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা বাতিল হওয়ার পর থেকে সরকার ও বিরোধীদলের মধ্যে টানাপোড়েন বাড়তে থাকে। বিস্তারিত »